শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ২২:৪৯

মরীচিকার পেছনে ছুটে চলা

মির্জা মেহেদী তমাল

মরীচিকার পেছনে ছুটে চলা

মুন্সীগঞ্জের শারমিন আক্তার। পরিবারে সুখ ফেরাতে জীবিকার সন্ধানে গিয়েছিলেন মধ্যপ্রাচ্যে। কিন্তু তিনি সুখের দেখা পাননি। প্রাণ নিয়ে তাকে ফিরতে হয়েছে দেশে। প্রায় প্রতিদিনই শিকার হতে হয়েছে শারীরিক ও  যৌন নির্যাতনের। কোনোমতে প্রাণ নিয়ে দেশে ফিরতে পারলেও এখানেই তার দুর্দশার সমাপ্তি হয়নি। রিয়াদে একজনের বাড়িতে গৃহকর্মী হিসেবে কাজ শুরু করেছিলেন তিনি। নির্যাতন সইতে না পেরে স্থানীয় রিক্রুটিং এজেন্টকে খবর দিলে তাকে জেদ্দায় আরেকজনের বাড়িতে পাঠানো হয়। একই কায়দায় সেখানেও নির্যাতিত হন। পরে বাধ্য হয়ে গত বছর এপ্রিলের মাঝামাঝির দিকে ওই বাড়ি থেকে পালিয়ে যান। শারীরিক আঘাত দেখে পুলিশ তাকে হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে হাসপাতাল থেকে একটি আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। আশ্রয়কেন্দ্রটিতে এক মাসের বেশি থাকেন শারমিন। সেখানে তার যৌনাঙ্গে সংক্রমণের চিকিৎসা করানো হয়।

কাজের সন্ধানে মধ্যপ্রাচ্যে যাওয়া বেশিরভাগ বাংলাদেশি নারীরই গল্প প্রায় একই রকম। ভাগ্য বদলের স্বপ্ন নিয়ে অজানা দেশের উদ্দেশে পাড়ি দিয়ে শারীরিক, মানসিক ও যৌন নির্যাতনের শিকার হয়ে খালি হাতে দেশে ফিরে আসতে হচ্ছে এরকম আরও শত শত নারীকে।

সৌদি ফেরত নারী কর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, অনেককেই তাদের চাকরিদাতারা বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছিলেন। পরে পুলিশ তাদের আটক করে দেশে ফেরত পাঠিয়ে দিয়েছে। মারাত্মক নিপীড়নের মুখে অনেকেই আবার নিজেরাই পালিয়ে গিয়ে জেদ্দা ও রিয়াদে বাংলাদেশ দূতাবাস পরিচালিত আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে যান। মাসের পর মাস নির্যাতন সহ্য করে পরে যারা দেশে ফিরে আসছেন তারাও সরকারি কর্তৃপক্ষের কোনো ধরনের সহায়তা পাচ্ছেন না। এদের অনেকেই কথিত কলঙ্কের কারণে পরিবারে জায়গা পাচ্ছেন না।

রিয়াদে সাত মাস একটি বাড়িতে কাজের পর গত মার্চ মাসের মাঝামাঝি সময়ে শূন্য হাতে দেশে ফিরে আসেন চুয়াডাঙ্গার দুলশান (৩৭)। প্রতিদিন তাকে দিয়ে ১৮-২০ ঘণ্টা কাজ করানো হয়। সেই সঙ্গে ছিল শারীরিক নির্যাতন। সব মিলিয়ে সহ্যের বাইরে চলে যাওয়ায় তিনি দেশে পালিয়ে আসেন। রিয়াদে যাওয়ার আগে জর্ডান ও দুবাইয়ে কাজ করেছিলেন তিনি। সেখানকার আয় দিয়ে তিন শতাংশ পরিমাণ জমিও কিনেছিলেন। তার স্বপ্ন ছিল সৌদি আরবে কাজ করে ওই জমির ওপর নিজের একটি বাড়ি তৈরি করবেন। দুলশান জানান, দেশে ফিরে চিকিৎসা করানোর মতো টাকাও ছিল না। বড় মেয়ের টাকায় চিকিৎসা শেষে এখন তার সঙ্গেই থাকছেন। শুধুমাত্র টাকার অভাবে ১০ বছরের ছোট মেয়ের পড়ালেখা চালানো সম্ভব হচ্ছে না।


আপনার মন্তব্য