শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২০ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ এপ্রিল, ২০১৯ ২৩:২৭

কৃষি সংবাদ

রাজশাহীর আম বিশ্ববাজারে

কাজী শাহেদ, রাজশাহী

রাজশাহীর আম বিশ্ববাজারে

বাহারি আর সুস্বাদু আমের কথা বললে সবার আগে আসে রাজশাহীর নাম। রাজশাহীর বিখ্যাত আম দেশের সব অঞ্চলে সমান সমাদৃত। দেশের চাহিদা মিটিয়ে এবার বিশ^বাজারে অবস্থান করে নিয়েছে এই আম। গত তিন বছর ধরে ইউরোপের বাজারে যাচ্ছে রাজশাহীর উৎপাদিত আম। সব শর্ত মেনে ২০১৮ সালে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ২০ মেট্রিক টন আম রপ্তানি করেছেন রাজশাহীর ১৪ জন ব্যবসায়ী। এর আগে ২০১৭ সালে রপ্তানি করেছিলেন ৩০ মেট্রিক টন। আগামীতে এই রপ্তানি আরও বাড়বে বলে আশাবাদী চাষিরা। তবে সে জন্য সরকারি সহায়তা দাবি তাদের।

রাজশাহীর বাঘা উপজেলার পাকুরিয়া গ্রামের আম ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম সানা বলেন, ‘বিদেশিদের শর্ত মেনে আমরা ১৪ জন ব্যবসায়ী একসঙ্গে আম রপ্তানি করেছি। এ পর্যন্ত তাদের কাছ থেকে কোনো অভিযোগ আসেনি। এবার হিমসাগর, ল্যাংড়া, আম্রপালি ও ফজলি জাতের ২০ মেট্রিক টন আম ইউরোপের ইংল্যান্ড, ডেনমার্ক, ইতালি ও ফ্রান্সে রপ্তানি করা হয়েছে।’ রাজশাহী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক দেব দুলাল ঢালী জানান, বিদেশে আম রপ্তানি করতে হলে ২৬টি শর্ত মানতে হয়। ব্যাগিং হচ্ছে ২৬টি শর্তের একটি। তবে ব্যাগিং করলেই চলবে না, মানতে হবে আরও ২৫টি শর্ত। এভাবে শর্ত মেনে আম উৎপাদন ও রপ্তানি করা বেশ কঠিন। তারপরও শুধু বাঘা উপজেলার ১৪ জন চাষি ২০১৮ সালে ২৬টি শর্ত মেনেই আম উৎপাদনে রাজি হয়ে বিদেশে আম রপ্তানি করেছেন। এ ছাড়া ২০১৭ সালে রাজশাহী থেকে চীন ও ইউরোপে ৩০ মেট্রিক টন আম রপ্তানি করা হয়। দেব দুলাল ঢালী জানান, ফ্রুট ব্যাগিং পদ্ধতিতে আম চাষ বাড়ছে। এ পদ্ধতিতে আম চাষ করলে কীটনাশকের ব্যবহার প্রয়োজন হয় না। ফলে সম্পন্ন বিষমুক্ত আম পাওয়া যায়। এই আমই যাচ্ছে বিদেশে। প্রতি বছরই বিদেশে যাতে আম পাঠানো যায়, সে জন্য চাষিদের নানাভাবে উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে। রাজশাহীর পবা উপজেলার হরিপুরের কসবার বাগান মালিক নাসির উদ্দিন জানান, ২০১৭ সালে তার বাগানে ফ্রুট ব্যাগিং পদ্ধতিতে আম চাষ করা হচ্ছে। আবদুর রশিদের ছেলে ড. সরফুদ্দিন পরীক্ষামূলকভাবে বাগানে এই পদ্ধতি নিয়ে আসেন। এতে স্বাভাবিক বাজারের চেয়ে অনেক বেশি দামে আম বিক্রি হয়। ড. সরফুদ্দিন বলেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগের মধ্যেই বেড়ে উঠে আম। আমের সময়ই ঝড় বেশি হয়ে থাকে। আমে ফ্রুট ব্যাগিং থাকলে অনেক আম রক্ষা পায়। এর ফলে আম ডালে ডালে আঘাত খেয়ে নষ্ট হয় না। আম রপ্তানি করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করতে হলে ফ্রুট ব্যাগিং পদ্ধতি ব্যবহারের বিকল্প নেই। এই ফ্রুট ব্যাগিং পদ্ধতিতে আম চাষ করলে রোগবালাই না থাকায় ফলন অনেক বেশি হয়। তিনিই রাজশাহীতে আম চাষে ব্যাগিং পদ্ধতি প্রথম চালু করেন। যা এখন বিদেশে আম রপ্তানিতে সহায়তা করছে।

রাজশাহী অঞ্চলের কৃষি সম্প্রসারণ অফিস সূত্রে জানা গেছে, গত বছর চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় ২৬ হাজার ১৫০ হেক্টর জমিতে আমের চাষ করা হয়েছে। এই জেলায় উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ২ লাখ ৪৪ হাজার মেট্রিক টন। নওগাঁ জেলায় ১২ হাজার ৬৭১ হেক্টর জমিতে লক্ষ্যমাত্রা ১ লাখ ৬১ হাজার ২৪২ মেট্রিক টন, নাটোরে ৪ হাজার ৮২৩ হেক্টর জমিতে ৫৬ হাজার ২১ মেট্রিক টন উৎপাদিত আমের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল।

এ ছাড়া রাজশাহী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস সূত্রে জানা গেছে, ২০১৭ সালে রাজশাহী জেলায় ১৬ হাজার ৯৬১ হেক্টর জমিতে আমবাগান ছিল। গত বছর তা বেড়ে হয়েছে ১৭ হাজার ৪৬৩ হেক্টর। রাজশাহী জেলার বাগানগুলোতে আছে মোট ২৪ লাখ ২৬ হাজার ১৮৯টি আম গাছ। সংশ্লিষ্টদের হিসাব মতে, রাজশাহীতে সবচেয়ে বেশি আমের গাছ আছে চারঘাট ও বাঘা উপজেলায়। এরমধ্যে চারঘাট উপজেলায় ৩ হাজার ৮১০ হেক্টর জমিতে ৫ লাখ ৫২ হাজার ৪৫০টি ও বাঘা উপজেলায় ৮ হাজার ৩৬৮ হেক্টর জমিতে ১১ লাখ ৯৬ হাজার ৬২৪টি আম গাছ রয়েছে। আগের জাতগুলোর সঙ্গে এবার নতুন জাতের আম যোগ হয়েছে বিদেশে পাঠানোর জন্য। উজ্জ্বল মেরুন রং। এই আমের নাম এখনো ঠিক হয়নি। তবে জাতের নাম জানা গেছে। টমিএটকিনস। বিদেশি জাত। এসেছে সৌদি আরব থেকে। গত আট বছরে এই জাতের পাঁচটি গাছ বেড়ে উঠছে রাজশাহী ফল গবেষণা কেন্দ্রে। গবেষকরা বলছেন, খেতে সুস্বাদু এই আম বিশ্ববাজারে রপ্তানিযোগ্য। এই আমকে জাত হিসেবে মূল্যায়নের জন্য এবার বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

রাজশাহী ফল গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. আলীম উদ্দীন জানান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ ফল গবেষণা কেন্দ্রের প্রাক্তন প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা গোলাম মর্তুজা ‘লিয়েনে’ সৌদি আরব গিয়েছিলেন। সেখানে তিনি আমবাগান নিয়ে গবেষণার কাজ করতেন। ফেরার সময় তিনি ‘টমিএটকিনস’ জাতের আম গাছের ডগা (সায়ন) সংগ্রহ করে আনেন। দেশে ফিরে সেগুলো তিনি রাজশাহী ফল গবেষণা কেন্দ্রে দেন। আলীম উদ্দীন বলেন, বাংলাদেশের আবহাওয়ার উপযোগী রপ্তানিযোগ্য রঙিন আমের জাত উদ্ভাবনে সাত বছর ধরে গবেষণা চালানো হয়েছে। বাংলাদেশে গুটি আমের জাতের সঙ্গে কয়েকটি কলম করা হয়। যার মধ্যে জাত হিসেবে ছাড়করণযোগ্য একটি আম পাওয়া যায়। পূর্ণ বয়স্ক এই আমের রং আকর্ষণীয় মেরুন বর্ণের হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, বিশ্ববাজারে এই আমের বাজার পাওয়া যাবে বলে তারা আশা করছেন। দেশি সব জাতের আম যখন প্রায় বাজারে ফুরিয়ে আসবে, সেই সময় এই আম বাজারে নামবে। তখন ভালো দামও পাওয়া যাবে। পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম জানান, রাজশাহীর আম যাতে বিদেশে রপ্তানি করা যায়, সে জন্য বিদেশি ক্রেতাদের সঙ্গে চাষিদের যোগাযোগ ঘটানো হয়েছে। এখন যে পরিমাণ আম রপ্তানি হচ্ছে, সেটি অনেক কম। আগামীতে আরও বড় চালান রপ্তানি করতে প্রস্তুত এ অঞ্চলের চাষিরা। সেই সুযোগ তৈরি করতে সরকারিভাবে সব ধরনের সহায়তা দেওয়া হচ্ছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর