শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:২৫

সাক্ষাৎকার - সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম

বড় দলগুলো থেকে ভোটাররা মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে

শফিকুল ইসলাম সোহাগ

বড় দলগুলো থেকে ভোটাররা মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমির সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম পীর চরমোনাই বলেছেন, স্বাধীনতার অর্ধশত বছরে নির্বাচনে বারবার বড় দলগুলো জয়ী হয়েও জনকল্যাণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে না পারায় ভোটাররা তাদের থেকে ক্রমেই মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে। আর ইসলামী আন্দোলন একটি আদর্শিক সংগঠন হওয়ায় ভোটাররা ক্রমেই আমাদের দিকে ঝুঁকছে। তিনি বলেন, সরকার নির্বাচনী ব্যবস্থাকে পুরোপুরি ধ্বংস করে দিয়েছে। তাই ভবিষ্যৎ প্রজন্মের নির্বাচন নিয়ে আগ্রহ নেই। গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে এ কথা বলেন তিনি। এ সময় দলের কার্যক্রম, ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা, সরকারের সফলতা-ব্যর্থতাসহ নানান বিষয়ে খোলামেলা কথা বলেন মুফতি রেজাউল করীম। দেশের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে আইএবি আমির বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে ভালো থাকার কোনো সুযোগ নেই। সার্বিক পরিস্থিতি ভালো নয়। মানুষের মধ্যে এক অজানা আতঙ্ক বিরাজ করছে। জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভয়াবহ ভোট ডাকাতি করে সরকার গঠনের পর বিশ্বব্যাপী দেশের ভাবমূর্তি চরমভাবে ক্ষুণ্ন হয়েছিল। ঢাকা সিটি নির্বাচনের আগে দেশবাসী আশা করেছিল সরকার হয়তো  আগের সেই অবস্থান থেকে ফিরে আসবে। জনগণ ভোটের অধিকার ফিরে পাবে। কিন্তু তাদের চরিত্রের কোনো হেরফের হয়নি।

তার দল ইসলামী আন্দোলন প্রসঙ্গে পীর চরমোনাই বলেন, এখানে সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, দুর্নীতিবাজ ও সমাজবিরোধী লোকের কোনো জায়গা নেই। ইসলামী আন্দোলন গতানুগতিক রাজনৈতিক দল নয়। দেশে একটি আদর্শিক ও গুণগত পরিবর্তনের লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে। আদর্শিক পরিবর্তন ছাড়া দুর্নীতি, দুঃশাসন, সন্ত্রাস, মাদকমুক্ত কল্যাণ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব নয়। তিনি বলেন, জনগণকে কল্যাণধর্মী রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত করতে ব্যাপক দাওয়াতি কার্যক্রম চলছে। গণমুখী কার্যক্রম এবং গণমানুষের চাহিদার আলোকে সাংগঠনিক কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। সরকারের সফলতা-ব্যর্থতা প্রসঙ্গে পীর চরমোনাই বলেন, আওয়ামী লীগ অবৈধভাবে ক্ষমতায় আছে এবং তা প্রশাসনের মাধ্যমে। সরকারের সফলতার চেয়ে ব্যর্থতার পাল্লাই ভারী। সরকার বড় বড় প্রজেক্টের নামে বড় বড় দুর্নীতি করছে। দেশের সম্পদ ক্ষমতাসীনদের হাতে কুক্ষিগত। রাস্তাঘাটের অবকাঠামোগত কিছু উন্নয়ন হলেও তার ব্যয়সীমা পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর তুলনায় ৩ থেকে ৪ গুণ বেশি। সরকারি দলের লোকজন দেশের সম্পদ বিদেশে পাচার করছে। জাতীয় সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সরকার ও সংসদে সাজানো বিরোধী দল উভয়ই অবৈধ। তাছাড়া মিডিয়ার বক্তব্য অনুযায়ী তারা একটি গৃহপালিত বিরোধী দল। এ ধরনের বিরোধী দলের কোনো প্রয়োজন নেই। বিরোধী দল হিসেবে জাতীয় পার্টির ভূমিকা হাস্যকর। প্রকৃতপক্ষে দেশে এখন একদলীয় কর্তৃত্ববাদী শাসন চলছে। নির্বাচন প্রক্রিয়া প্রসঙ্গে পীর চরমোনাই বলেন, বর্তমান সরকার নির্বাচনী ব্যবস্থাকে পুরোপুরি ধ্বংস করে দিয়েছে। নির্বাচনের নামে জনগণের সঙ্গে চরম তামাশা করা হচ্ছে। দেশবাসী নির্বাচন নিয়ে চরম উদ্বিগ্ন। নির্বাচন নিয়ে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের আর কোনো আগ্রহ নেই। নির্বাচন সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য না হওয়ায় ইসলামী আন্দোলনের প্রতি জনগণের প্রকৃত মতামত ফুটে ওঠেনি। বর্তমান নির্বাচন কমিশন তাঁবেদার ও ব্যর্থ। এই ব্যর্থ নির্বাচন কমিশন দিয়ে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়। এ নির্বাচন কমিশন একটি গৃহপালিত কমিশনে পরিণত হয়েছে। আমরা বহু আগেই প্রধান নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগ দাবি করেছি। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ক্রমেই অবনতির দিকে এগোচ্ছে। যার শক্তি আছে, তার জন্য আইন আছে। হাসপাতালগুলোতেও একই অবস্থা। বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থা অনেকাংশেই নাস্তিকবাদী।

 ইসলামী দলগুলো প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ইসলামী দলগুলোকে নিজস্ব স্বকীয়তা বজায় রেখে ইসলাম সম্মত পন্থায় অগ্রসর হয়ে কাজ করলে একসময় না একসময় লক্ষ্যস্থলে পৌঁছানো সম্ভব হবে। তাছাড়া এক প্লাটফর্মে আসতে না পারার অন্যতম কারণ পার্থিব লোভ ও ক্ষমতার মোহ। ২০১৫ সালে অনুষ্ঠিত সিটি নির্বাচনে ইসলামী আন্দোলন যে পরিমাণ ভোট পেয়েছিল এবার তার চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ পেয়েছে। এবার ঢাকা দক্ষিণ সিটিতে আবদুর রহমান ২৬ হাজার ৫২৫ ভোট পেয়েছেন। ২০১৫ সালের নির্বাচনে তিনি পেয়েছিলেন ১৪ হাজার ৭৮৪ ভোট। ঢাকা উত্তরে ফজলে বারী মাসউদ ২৮ হাজার ২০০ ভোট পেয়েছেন। যেখানে ২০১৫ সালে একই পদের প্রার্থী ১৮ হাজার ৫০ ভোট পেয়েছিলেন। সর্বশেষ ঢাকা সিটি নির্বাচনসহ গত তিন বছরে স্থানীয় সরকার নির্বাচনের ভোটের পরিপ্রেক্ষিতে দেখা যায় তৃতীয় প্রধান রাজনৈতিক দল হিসেবে দলটির উত্থান হয়েছে। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ দাবি করেছে ‘একলা চলো’ নীতি অনুসরণ করে তারা এই ফল পেয়েছে। ১৯৮৭ সালের ১৩ মার্চ মরহুম পীর সাহেব চরমোনাই মাওলানা ফজলুল করীম ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করেন। ২০১৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩০০ আসনের মধ্যে ২৯৯টি আসনে তারা প্রার্থী দিয়েছিল। ওই নির্বাচনে ইসলামী আন্দোলন মোট ১২ লাখ ৫৪ হাজার ৮০০ ভোট পায়।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর