শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৪ মে, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৪ মে, ২০২০ ০০:০৮

মার্কিন সিনেটে শীর্ষ কর্মকর্তারা

যথাযথ প্রস্তুতি ব্যতীত লকডাউন শিথিলের পরিণতি ভয়াবহ

লাবলু আনসার, যুক্তরাষ্ট্র

যথাযথ প্রস্তুতি ব্যতীত লকডাউন শিথিলের পরিণতি ভয়াবহ

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের শীর্ষ পর্যায়ের দুই স্বাস্থ্য কর্মকর্তার বক্তব্যে গভীর উদ্বেগ ছড়িয়ে পড়েছে সমগ্র আমেরিকায়। যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষস্থানীয় ইনফেকশাস ডিজিজ এক্সপার্ট ড. এন্থনি এস ফাউসি এবং সিডিসির পরিচালক রবার্ট আর রেডফিল্ড ১২ মে ইউএস সিনেটে প্রদত্ত বক্তব্যে স্পষ্টভাবে উল্লেখ করেছেন, সামাজিক দূরত্ব অটুট এবং মাস্ক ব্যবহারের নিশ্চয়তার পাশাপাশি সব আমেরিকানের করোনা টেস্টের পর যারা পজিটিভ, তাদের চিকিৎসা ও গতিবিধি মনিটরিংয়ের ব্যবস্থা ব্যতীত তাড়াহুড়া করে লকডাউন শিথিল এবং ব্যবসা-বাণিজ্য সচল করা হলে তার পরিণতি হবে ভয়াবহ। এতে যে মহামারী শুরু হবে তা কেউই নিয়ন্ত্রণে সক্ষম হবে না। উল্লেখ্য, এর আগের দিন ১১ মে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প করোনাবিষয়ক প্রেসব্রিফিংকালে দাবি করেন, ‘সবকিছু সচল করার জন্য আমরা সবকিছু করতে সক্ষম হয়েছি।’ এরপর তারই দুই শীর্ষ কর্মকর্তা সিনেটে করোনা সম্পর্কিত শুনানিতে বললেন, ‘এখনো প্রয়োজনীয় টেস্ট করা সম্ভব হয়নি। সে ক্ষমতাও নেই। এমনকি টেস্টের রেজাল্ট অনুযায়ী পজিটিভ লোকজনকে যথাযথভাবে মনিটরিংয়ের ব্যবস্থাও করা হয়নি এখন পর্যন্ত।’ ড. ফাউসি বলেন, ‘স্টেটগুলো যদি খুব দ্রুত তাদের অর্থনৈতিক কর্মকা  সচল করে তাহলে বড় ধরনের একটি ঝুঁকি নেওয়া হবে যে, আপনি করোনার ভয়াবহতাকে বিস্তৃত করার সুইচ টিপলেন, যা নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হবেন না। আর এর ফলে জনজীবনে স্বাভাবিক অবস্থা তথা ব্যবসা-বাণিজ্যে গতি আনা দূরের কথা, এমন একটি অবস্থা তৈরি হবে যা কল্পনাও করা যায় না।’ স্বাস্থ্য, শিক্ষা, শ্রম এবং পেনশনবিষয়ক সিনেট কমিটির শুনানিতে এফডিএর পরিচালক ড. রেডফিল্ডও বক্তব্য দিয়েছেন। তিনিও উল্লেখ করেছেন, সবকিছু সচল করার মতো পরিবেশ এখনো তৈরি হয়নি। চীন, দক্ষিণ কোরিয়া এবং জার্মানিতে লকডাউন উঠিয়ে নেওয়ার পর সংক্রমণের হার বৃদ্ধি পাওয়ায় আমেরিকানদের মধ্যে একই শঙ্কা বিরাজ করলেও প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সেটি আমলে নিতে চাচ্ছেন না- যা খুবই দুর্ভাগ্যের ব্যাপার-মন্তব্য করেছেন ডেমোক্র্যাট সিনেটররা। যার প্রভাব পড়ে বিনিয়োগের মার্কেটেও।

উল্লেখ্য, ডেমোক্র্যাট শাসিত প্রতিনিধি পরিষদে এমন একটি শুনানিতে ড. ফাউসিসহ শীর্ষ কর্মকর্তাদের অংশগ্রহণ থেকে বিরত করেন ট্রাম্প। ট্রাম্পের প্রত্যাশা ছিল রিপাবলিকান শাসিত সিনেটে হয়তো ড. ফাউসি, ড. রেডফিল্ড তার পছন্দের কথা বলবেন, কিন্তু তারা প্রকৃত পরিস্থিতি যথাযথভাবে উপস্থাপনে কার্পণ্য করেননি। এই প্রথম তারা সরাসরি আমেরিকানদের সামনে প্রকৃত পরিস্থিতি অবলীলায় উপস্থাপন করতে সক্ষম হলেন। কারণ, এই শুনানি প্রধান প্রধান সবকটি টিভিতে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়েছে। ড. ফাউসি সিনেটকে জানান, সেপ্টেম্বরে নতুন শিক্ষাবর্ষের ক্লাস শুরুর আগে করোনাভাইরাস থেরাপিউটিক্স এবং ভ্যাকসিন আবিষ্কৃত হবে বলে তিনি মনে করছেন না। আর ওই সময় অন্যান্য দেশে ভয়ঙ্করভাবে পুনরায় ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে, যা থেকে যুক্তরাষ্ট্রও রেহাই পাবে না। ড. ফাউসি উল্লেখ করেন, করোনা-সম্পর্কিত রোগে ইদানীং শিশুরাও আক্রান্ত হচ্ছে। অর্থাৎ কোনো বয়সের মানুষই অদৃশ্য একটি শত্রুর টার্গেটের বাইরে নেই।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর