শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১৩ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৩ জুলাই, ২০২০ ০০:২৭

মাহবুব উল আলম ব্যবস্থাপনা পরিচালক, ইসলামী ব্যাংক

শঙ্কা ভুল প্রমাণ করে সফলতার নতুন চূড়ায় ইসলামী ব্যাংক

আলী রিয়াজ

শঙ্কা ভুল প্রমাণ করে সফলতার নতুন চূড়ায় ইসলামী ব্যাংক
মাহবুব উল আলম

ইসলামী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাহবুব উল আলম বলেছেন, ইসলামী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিবর্তন নিয়ে সাধারণ গ্রাহক থেকে শুরু করে সব মহলে একটি আশঙ্কা জন্ম নিয়েছিল। অনেকে ভেবেছিলেন ইসলামী ব্যাংকের পরিবর্তনে বুঝি ব্যাংকটির সংকট সৃষ্টি হলো। প্রতিষ্ঠানটির সব অর্জন শেষ হয়ে যেতে পারে। পরিবর্তনের কারণে জন্ম নেওয়া এই আশঙ্কা ভুল প্রমাণ করে সফলতা নতুন চূড়ায় উঠেছে। ইসলামী ব্যাংক বেসরকারি খাতের সবচেয়ে বড় ব্যাংকই নয়, ১ লাখ কোটি টাকার আমানত সংগ্রহ করে নতুন মাইলস্টোন গড়েছে। গ্রাহকদের আস্থা, বিশ্বাস আরও দৃঢ় সুসংহত হয়ে ব্যাংকটি সম্পর্কে গ্রহণযোগ্যতা অনেক বেড়েছে, যা দেশের এই করোনা প্রাদুর্ভাবে সংকট মোকাবিলার ক্ষেত্রে ব্যাংকিং খাতে প্রভাব রাখছে। বিশিষ্ট ব্যাংকার মাহবুব উল আলম ৩৫ বছর ধরে কাজ করছেন ইসলামী ব্যাংকে। অফিসার হিসেবে যোগদান করে বৈদেশিক লেনদেন বিভাগে নিজের ব্যাংকিং ক্যারিয়ারের বেশির ভাগ সময় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। ২০১৭ সালে ইসলামী ব্যাংকের পরিবর্তনের পর দ্বিতীয় ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব নেন মাহবুব উল আলম। সে সময় ইসলামী ব্যাংকের মালিকানা পরিবর্তনে বিভিন্ন মহলে আশঙ্কা সৃষ্টি  হয়েছিল, হয়তো ব্যাংকটি পতনের দিকে যেতে পারে। সুশাসন ও বিনিয়োগের শীর্ষ প্রতিষ্ঠানটি থেকে গ্রাহকরা মুখ ফিরিয়ে নেবেন। কঠিন চ্যালেঞ্জ নিয়ে আশঙ্কা উল্টো প্রমাণ করে গত চার বছরে ব্যাংকটিতে আরও প্রায় ৩৭ হাজার কোটি টাকার আমানত সংগ্রহ করা হয়েছে। আগেও আমানতে শীর্ষে থাকা ব্যাংকটিতে এখন এর পরিমাণ ১ লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। ইউরোপ, আমেরিকার ব্যাংকগুলোর সঙ্গে নতুন করে বাণিজ্য সম্পর্ক তৈরি হয়েছে। ব্যাংকের এই সফলতা, করোনার প্রভাব কাটিয়ে দেশের ব্যাংকিং খাতের চ্যালেঞ্জ, সম্ভাবনা নিয়ে বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে কথা বলেছেন অভিজ্ঞ এই ব্যাংকার।

মাহবুব উল আলম বলেন, ‘আমাদের অর্থনীতিতে সংকট শুরু হয়েছে মার্চ থেকে। করোনা প্রাদুর্ভাবের কারণে সব শিল্পপ্রতিষ্ঠান, আর্থিক কর্মকান্ড স্থবির হয়ে যায়। এই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রীর তাৎক্ষণিক উদ্যোগ খুবই কার্যকর হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আমরা কৃতজ্ঞ, তিনি সঠিক সময় নির্দেশনা দিয়ে ব্যাংকগুলোকে সীমিত পরিসরে খোলা রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। একই সঙ্গে প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন। এ কারণে আমাদের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে ধাক্কা অনেক কম এসেছে। মূলত সীমিত পরিসরে খোলার রাখা কথা হলেও ব্যাংকের কাজ সীমিত হয়নি। বাংলাদেশ ব্যাংক এ ক্ষেত্রে চমৎকার সমন্বয় ও সঠিক দিকনির্দেশনা দিয়ে দক্ষতার সঙ্গে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেছে। ফলে ব্যাংকগুলোয় ঋণ প্রদান, আদায়, আমানত সংগ্রহে তুলনামূলক স্বাভাবিক কর্মকান্ড ছিল। এই সময় ব্যাংকের আমানত কমেনি বরং ধারণার চেয়ে বেশি এসেছে। এতে ব্যাংকগুলো কম আক্রান্ত হয়েছে। ব্যাংকের কর্মকর্তারা স্বাস্থ্যবিধি মেনে গ্রাহকদের সেবা দিয়েছেন। যদিও অনেক ব্যাংকার করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। আমাদের ব্যাংকিং খাতে গত কয়েক বছরে যে পরিবর্তন হয়েছে, বর্তমান স্থবির পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে সেটি বড় ধরনের ভূমিকা রেখেছে। তা হলো এজেন্ট ব্যাংকিং, মোবাইল ব্যাংকিং, যার মাধ্যমে প্রান্তিক পর্যায়ের গ্রাহকরা সেবা পেয়েছেন।’ তিনি বলেন, বিভিন্ন আশঙ্কার কথা বলা হলেও ব্যাংকিং খাতে কোনো সংকট হবে না। তারল্য প্রবাহ স্বাভাবিক এখন পর্যন্ত রয়েছে। সরকার যে প্রণোদনা ঘোষণা করেছে সবই ব্যাংক বাস্তবায়ন করতে পারবে। গার্মেন্ট খাতে ৫ হাজার কোটি টাকা সরকার সরবরাহ করেছে। এ ছাড়া ৩০ হাজার কোটি টাকা, ২০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা তহবিল থেকে ঋণ দেওয়ার পর ব্যাংকগুলো বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ৫০ শতাংশ পুনঃ অর্থায়ন পাবে। লকডাউনের সময় ঋণ আদায় কম হলেও প্রদানও কমেছে। এ ছাড়া আমানত এসেছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক সিআরআর কমানো ও এডিআর রেশিও বাড়ানোর কারণে অতিরিক্ত প্রায় ৪৫ হাজার কোটি টাকা ব্যাংকগুলোর হাতে এসেছে। এই টাকা বাজেট ঘাটতির জন্য সরকারের ঋণ নেওয়ার পরে তারল্য থেকে যাবে। তাই যারা আশঙ্কা করছেন ব্যাংক খাতে সমস্যা হবে তা ভুল। ইসলামী ব্যাংকের এমডি বলেন, ‘ধর্ম-বর্ণ, দল-মত নির্বিশেষে এখন একটি সর্বজনীন গ্রহণযোগ্য প্রতিষ্ঠান ইসলামী ব্যাংক, যা শুরুতে ছিল না। বাংলাদেশে ইসলামী ব্যাংকের একটি বাজার ছিল। প্রতিষ্ঠার পর ইসলামী ব্যাংক সেই গ্রাহকদের পেয়েছে। তবে দৃষ্টিভঙ্গির কারণে ব্যাংকটির গ্রহণযোগ্যতার ক্ষেত্রে কিছু সমস্যা ছিল। ২০১৬ সালে অনেকটা পটপরিবর্তনের মতো সেই সমস্যা কাটিয়ে সবার কাছে গ্রহণযোগ্য ব্যাংক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। সাধারণ মানুষ তো অবশ্যই, অনেক বোদ্ধা মহলেও ধারণা হয়েছিল ধসে পড়তে পারে ইসলামী ব্যাংক। তাই পরিবর্তনের শুরুতে আমানত উঠিয়ে নিতে শুরু করেছিলেন অনেক গ্রাহক। কিন্তু আমরা হতাশ না হয়ে সব কর্মকর্তাকে বলেছি, যিনি টাকা চান তাকেই দিয়ে দিন। চাপ নেওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই। সব গ্রাহককে সহায়তা করুন। মাত্র কয়েক মাসের ব্যবধানে আমরা গ্রাহকদের কাছে আস্থা ফিরিয়ে আনতে পেরেছি। তারা দেখেছেন ইসলামী ব্যাংকে সেবা পাওয়া যায়। টাকার কোনো সংকট নেই। এ সময় আমরা এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের ওপর জোর দিই। ফলে প্রান্তিক পর্যায়ের গ্রাহকরা ইসলামী ব্যাংকের নামফলক দেখে সেখানে আসতে শুরু করেন। রেমিট্যান্স গ্রাহকরাও বিপুল সংখ্যায় যুক্ত হন আমাদের সঙ্গে। এর সুফল এখন আমরা পাচ্ছি। সব ধরনের রেকর্ড ভেঙে আগে প্রায় ৩০ বছরে যে আমানত সংগ্রহ হয়েছে, মাত্র চার বছরের ব্যবধানে এর সমান আমানত আমরা সংগ্রহ করেছি। আমাদের আমানতের ৫০ শতাংশের বেশি সাধারণ গ্রাহকের। সরকারি বা করপোরেট আমানত তুলনামূলক কম।’ তিনি বলেন, ‘আমানত বাড়ানোর পাশাপাশি সমানভাবে বিনিয়োগও বাড়িয়েছি আমরা। বর্তমানে ইসলামী ব্যাংকের বিনিয়োগ ও আমানতের অনুপাত (এডিআর) ৮৫ শতাংশ। আমাদের এডিআর রেশিও হার ৯২ শতাংশ পর্যন্ত অনুমিত। অর্থাৎ আমরা আরও ৭ শতাংশ পর্যন্ত বাড়িয়ে বিনিয়োগ করতে পারি। পরিচালনা পরিবর্তন আমাদের আরেকটি সুযোগ তৈরি করেছে যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাংকগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নে, যেটা কয়েক বছর ধরে ছিল না। ইসলামী ব্যাংক যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম বৃহৎ ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠান জেপি মরগানের সঙ্গে চারটি হিসাব চালু করেছে। লন্ডন, নিউইয়র্ক, জাপান, ইউরোপে আমরা অ্যাকাউন্ট করেছি। তাদের সঙ্গে আমাদের ব্যবসা শুরু হয়েছে। মহামারী কেটে গেলে দেশের মোট বৈদেশিক বাণিজ্যের ২৫ শতাংশ ইসলামী ব্যাংকের হাতে চলে আসবে। ইসলামী ব্যাংকের অ্যাসেট কোয়ালিটি, ঝুঁকি ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে দেশের যে কোনো প্রতিষ্ঠানের চেয়ে উন্নত। আমরা প্রতিটি প্রকল্প প্রস্তাবের মেমো তৈরি করি অন্তত ২০ পৃষ্ঠার, যা বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠানের চার থেকে পাঁচ পৃষ্ঠার হয়। আমরা আরএমজি, চিনি, ইস্পাত, ফিড মিল, রাইস মিলসহ দেশের সব ধরনের বৃহৎ কোম্পানিতে বিনিয়োগ করেছি। আমাদের মোট বিনিয়োগের ৫০ শতাংশই শিল্প খাতে। আমাদের বোর্ড কখনো কোনো ঋণের বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে না। করার কোনো সুযোগ এখানে তৈরি হয়নি। আমাদের শ্রেণিকৃত ঋণের পরিমাণ মাত্র ৩.৯ শতাংশ।’ বিশিষ্ট এই ব্যাংকার বলেন, ‘আমাদের আমানত বৃদ্ধিতে রেমিট্যান্স একটি বড় ভূমিকা রেখেছে। আগেও আমরা বেশি রেমিট্যান্স এনেছি। তবে করোনা প্রাদুর্ভাবের মধ্যে আমরা যে সেবা গ্রাহককে দিয়েছি, এতে অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে মে মাসে ৪৬ কোটি ডলার, জুনে ৫৮ কোটি ডলার এসেছে। মাত্র দুই মাসে ৩২ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়ে মোট মার্কেট শেয়ার হয়েছে ২৬ শতাংশ। মধ্যপ্রাচ্যজুড়ে আমাদের ২৪ জন প্রতিনিধি আছেন, যারা রেমিট্যান্স নিয়ে কাজ করেন। এটা সবচেয়ে বেশি। আমাদের এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের সংখ্যা এখন প্রায় ১২০০, যা ২০১৭ সালে ছিল পাঁচটি। পুরোপুরি গ্রামনির্ভর এই এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে আমরা নতুন প্রায় ৮ লাখ গ্রাহক পেয়েছি, যার মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ আমানত এসেছে। শুধু এ বছরই আমানত পেয়েছি ১১০০ কোটি টাকা।’ বৈদেশিক ব্যাংকিংয়ে দক্ষ এই ব্যাংকার বলেন, ‘এলসি বিষয়ক দক্ষ কর্মী, যাদের সিডিসিএস বলা হয়। সিডিসিএস কর্মকর্তা যে ব্যাংকে বেশি থাকেন, বিশ্বে তাদের গ্রহণযোগ্যতা বেশি। বাংলাদেশে ছয়শর মতো সিডিসিএস কর্মকর্তা আছেন। এর মধ্যে শুধু ইসলামী ব্যাংকের ৩০০ জন। রিয়েল অটোমেশন, প্রসেসিংয়ের ক্ষেত্রে আমরা কেন্দ্রীয় বিভাগের মাধ্যমে পরিচালনা করি। কর্মকর্তাদের আইপ্যাড দিয়ে বাসায় বসে কাজের অনুমতি দিয়েছি। এতে গ্রাহকরা তাৎক্ষণিক সেবা পাচ্ছেন।’ তিনি বলেন, ‘গত বছর আমরা ২৯০০ কোটি টাকা মুনাফা করেছি, যা প্রতিবছর বাড়ছে। আমাদের শতভাগ ক্যাশ ডিভিডেন্ড দেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। বেশির ভাগ কোম্পানির ইপিএস ৩ শতাংশের নিচে, যা ইসলামী ব্যাংকের ৩.৪০ শতাংশ। বিশ্বের হাজারতম ব্যাংকের ৯৪৬তম আর্থিক প্রতিষ্ঠান ইসলামী ব্যাংক, যা বাংলাদেশে একমাত্র ব্যাংক। আগামী বছর এই অবস্থান আরও উন্নতি হবে।’


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর