শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১০ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ আগস্ট, ২০২০ ০০:১২

বিএনপির দুই জোট এখন কাগজে-কলমে

জামায়াত ইস্যুতে বেকায়দায় ২০ দল, টানাপড়েনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট

মাহমুদ আজহার

বিএনপির দুই জোট এখন কাগজে-কলমে

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর থেকেই জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলীয় জোট ‘নির্ভরতা’ কমিয়ে দিয়েছে বিএনপি। এই দুই জোটের সঙ্গে দলটির সম্পর্ক এখন অনেকটাই কাগজে-কলমে। এরই মধ্যে বিএনপির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটিতে জামায়াত ছাড়া নিয়ে আলোচনা হয়। এরপর জোটের শরিকদের মধ্যে নতুন করে অস্বস্তি সৃষ্টি হয়। স্থায়ী কমিটির অধিকাংশ সদস্যই জামায়াত ছাড়তে একমত হলেও এ ইস্যুতে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি বিএনপি।

ঈদুল আজহার দিন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে দলের স্থায়ী কমিটির নেতারা সাক্ষাৎ করেন। ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়ের সময় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় নতুন করে টানাপড়েনের সৃষ্টি হয়। আগামী দিনে জোট-ফ্রন্টকে নিয়ে বিএনপি কতদূর এগোবে তা নিয়েও সংশয় প্রকাশ করেছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা। বিএনপির নেতা-কর্মীদের বড় অংশই বলছেন, বিএনপি দেশের সবচেয়ে একটি বড় রাজনৈতিক দল। লাখ লাখ নেতা-কর্মী বিএনপির তৃণমূল পর্যন্ত নিজস্ব একটি শক্তি আছে। আগামী দিনেও বিএনপিকে নিজের শক্তিতেই দাঁড়ানো উচিত। জোট-ফ্রন্টের নির্ভরতা থেকে সরে আসা জরুরি। তাদের বিতর্কিত কর্মকান্ডের দায় বিএনপি নিতে পারে না। এতে দলের নেতা-কর্মীরাও মূল্যায়িত হবে এবং সংগঠন হিসেবেও দল আরও শক্তিশালী হবে। এ প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘২০ দলীয় জোট বা জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন করা হয়েছে একটি বিশেষ প্রেক্ষাপটে। তাদের সঙ্গে বিএনপির আদর্শিক জোট হয়নি, এটা একটি নির্বাচন ও আন্দোলনকেন্দ্রিক জোট। বর্তমানে দেশে করোনাকাল চলছে। তাই রাজনৈতিক সভা-সমাবেশ বা কর্মসূচি নেই। তাই বলে ২০ দলীয় জোট বা ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে বিএনপির টানাপড়েন চলছে, তা বলা যাবে না। সরাসরি বৈঠক কম হলেও দুই জোটের সঙ্গেই আমাদের যোগাযোগ অব্যাহত আছে। সময়মতো মাঠের কর্মসূচি নিয়ে আমরা যৌথভাবে রাজপথে নামব।’ হঠাৎ বিএনপির জামায়াত ছাড়া নিয়ে প্রশ্ন তুলে লিবারেল  ডেমোক্রেটিক পার্টি-এলডিপির প্রেসিডেন্ট ড. কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বীরবিক্রম বলেন, ‘জামায়াতের শীর্ষ নেতারা যখন জীবিত ছিলেন, তখন বিএনপি জামায়াতের সঙ্গত্যাগ করেনি। হঠাৎ এখন বিএনপি কেন জামায়াতকে  ছেড়ে দিচ্ছে তা আমার বোধগম্য নয়। তাছাড়া বর্তমানে জামায়াতে ইসলামীতে কোনো যুদ্ধাপরাধী নেই। এখন যারা  নেতৃত্বে আছেন, তারা স্বাধীনতাবিরোধী নন। তারা বাংলাদেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী।’ একইসঙ্গে তিনি জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের সমালোচনা করে বলেন, ‘ড. কামালের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নামে  যে জোট গঠন করা হয়েছিল তা ছিল মূলত বিএনপিকে নির্বাচনে নেওয়ার জন্য। তাদের মিশন ছিল, বিএনপি  নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটকে চিরতরে ক্ষমতার বাইরে রাখা। আমাকে যখন ঐক্যফ্রন্টে থাকার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল, তখন আমি সরাসরি না করে দিয়েছিলাম। কারণ, ড. কামাল হোসেন একজন নামকরা আইনজীবী। তাঁর সঙ্গে আইন পেশা মানায়, রাজনীতি নয়।’ তবে ঐক্যফ্রন্ট গঠনের প্রেক্ষাপট তুলে ধরে গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেন, ‘সবার অংশগ্রহণে একটি অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ এবং গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের দাবিতেই জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠিত হয়েছিল। এটাই ছিল আমাদের চাওয়া। কাজেই কোন প্রেক্ষাপটে এই জোট গঠিত হয়েছিল তা কারও কাছেই অজানা নয়। আগের রাতেই ভোট না হলে ইতিহাস অন্যভাবে লেখা হতো।’ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে টানাপড়েন : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে গঠন করা জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট এখন মুখ থুবড়ে পড়েছে। বিএনপির নেতা-কর্মীরাও এখন ঐক্যফ্রন্টে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন। শুরুর দিকে ঐক্যফ্রন্টের বৈঠকে বিএনপির হেভিওয়েট নেতারা অংশ নিলেও নির্বাচনের পর তারা আস্তে আস্তে সরে দাঁড়ান। অবশ্য এরপর কয়েকটি বৈঠক হয়েছে নামমাত্র। জানা যায়, নির্বাচনের আগে বিভিন্ন স্থানে সভা সমাবেশে ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেনের বক্তৃতা বিএনপির নেতা-কর্মীরা ভালোভাবে নেয়নি। একইভাবে ভোটযুদ্ধে জামায়াতের হাতে ধানের শীষের প্রতীক তুলে দেওয়ায় বিএনপির প্রতিও ক্ষুব্ধ হন ড. কামাল। তবে ঐক্যফ্রন্টের গুরুত্ব কমে আসার পেছনে বিএনপি ও গণফোরামকেই দায়ী করেন জোটের দুই শরিক দল জেএসডি ও নাগরিক ঐক্য। তাদের বক্তব্য, ভোটের পর তাদের না জানিয়েই এই দুই দল পার্লামেন্টে যায়, যার ব্যাখ্যা এখনো পর্যন্ত দেয়নি। এরপর অবশ্য জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আনুষ্ঠানিক কোনো বৈঠকও অনুষ্ঠিত হয়নি। বিএনপির তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা বলছেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে রাজপথের আন্দোলন কর্মসূচি নির্ধারণে ঐকমত্য হয়নি। তাছাড়া কারাবন্দী থাকা বিএনপি প্রধান বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি ঐক্যফ্রন্টে থাকা এক শীর্ষ নেতার কাছে তেমন গুরুত্ব পায়নি। এমনকি বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানকে স্বাধীনতার ঘোষক হিসেবে ঐক্যফ্রন্টের বলিষ্ঠ স্বীকৃতি না পাওয়ায় ক্ষুব্ধ হন বিএনপির মাঠ পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা। এ ছাড়া ফ্রন্টের কোনো কোনো নেতার বক্তৃতা বিবৃতিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে বারবার স্মরণ করাটাও বিএনপির তৃণমূল নেতা-কর্মীরা ভালোভাবে নেননি। এরপরও দলের ঐক্যফ্রন্টপন্থি কয়েকজন সিনিয়র নেতা ফ্রন্টকে সামনে  রেখেই অগ্রসর হওয়ার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু তৃণমূলের  নেতারা ঐক্যফ্রন্টের কর্মসূচিতে কর্মী না আনার কারণে  জোটের পক্ষ থেকে কর্মসূচি দিতে পারেনি। এরপর মার্চ  থেকে দেশে করোনা সংক্রমণ শুরু হলে বিবৃতি ছাড়া  কোনো তৎপরতাই দেখা যায়নি এই জোটের। এ প্রসঙ্গে ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম শীর্ষ নেতা ও নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘ঐক্যফ্রন্ট যদি নিষ্ক্রিয় হয় সেটা হয়েছে বিএনপি ও গণফোরামের কারণে। আমরা সব সময় ঐক্যফ্রন্টকে কার্যকর করতে বৈঠকে বসার কথা বলেছি। কিন্তু বিএনপি থেকে সাড়া পাওয়া যায়নি। বিএনপি ও গণফোরাম তাদের গুটি কয়েক এমপির সংসদে যাওয়া নিয়ে কোনো ব্যাখ্যাও ঐক্যফ্রন্টে তুলে ধরেনি। এটা সত্য যে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট এখন অনেকটাই কাগজে-কলমে। নির্বাচনের আগে যে আশা-আকাক্সক্ষা নিয়ে এই ফ্রন্ট গঠন করা হয়েছিল, জনগণের সেই প্রত্যাশা ঐক্যফ্রন্ট পূরণ করতে পারেনি।’ বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু বলেন, ‘আমরা শুরু থেকেই ঐক্যফ্রন্ট গঠনের বিরোধিতায় ছিলাম। এরা ব্যক্তিকেন্দ্রিক, তাদের কোনো জনসমর্থন নেই। ঐক্যফ্রন্ট গঠন করে বিএনপি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’ ২০ দলীয় জোটেও অস্বস্তি : জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের পর থেকেই ২০ দলীয় জোটের সঙ্গে বিএনপির এক ধরনের অস্বস্তি ও দূরত্বের সৃষ্টি হয়। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে ‘কার্যকর’ করতে গিয়ে বিএনপি জোটকে ‘গুরুত্বহীন’ করে তোলা হয়েছে বলে অভিযোগ আছে শরিক দলের নেতাদের। তাদের দাবি, ফ্রন্ট গঠনের পর ২০ দলের কিছু বৈঠক হলেও গুরুত্বপূর্ণ কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। ঐক্যফ্রন্টকে নিয়ে আগেভাগেই সিদ্ধান্ত নিয়ে জোটকে শুধু তা শুনিয়ে দেয় বিএনপি। এতে ক্ষুব্ধ হয় জোটের শরিক দলের নেতারা। এমন অভিযোগ তুলে জোটও ছাড়েন ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থর নেতৃত্বাধীন বিজেপি। এর আগেও ছোট ছোট কয়েকটি দলের শীর্ষ নেতা একই অভিযোগ করে বিএনপি জোট থেকে বেরিয়ে যান। জানা যায়, সর্বশেষ অনুষ্ঠিত ২০ দলীয় জোটের একটি ভার্চুয়াল বৈঠকে বিএনপির ওপর ক্ষোভ প্রকাশ করেন  নেতারা। ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেট নিয়ে ২০ দলীয়  জোট প্রতিক্রিয়া জানিয়ে যে বিবৃতি দেয়  সেখানে  জোটের  বেশ কয়েকজন শীর্ষনেতার নাম বাদ পড়ে। জোটের অন্যতম শরিক বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম মনে করেন, ঐক্যফ্রন্ট এবং ২০ দলীয় জোট- এ দুটোতে সমানভাবে মনোযোগ দিতে পারছে না বিএনপি। দুই জোটে তারা ভারসাম্য আনতে পারলে আমাদের কোনো আপত্তি নেই। তবে আমি মনে করি, ২০ দলীয় জোটের রাজনীতি শেষ হয়ে যায়নি।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর