শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ এপ্রিল, ২০২১ ২২:৫৯

প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি

২২ এপ্রিল থেকে মার্কেট-দোকান খুলতে চান ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা

রুহুল আমিন রাসেল

২২ এপ্রিল থেকে সারা দেশে মার্কেট ও দোকান খোলা রাখতে চান খুচরা ব্যবসায়ীরা। এ দাবি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দিয়েছেন তারা। একই দাবিতে আজ রাজধানীতে সংবাদ সম্মেলন ডেকেছে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ২০টি সংগঠন।

এ তথ্য জানিয়ে বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘দোকান মালিক সমিতিসহ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ২০টি সংগঠনের দাবি হলো, এ রমজানে পণ্য বিক্রির সুযোগ দেওয়া হোক। আমরা শতভাগ স্বাস্থ্যবিধি মেনে মার্কেট ও দোকান খোলা রাখতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। এখন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা সবচেয়ে বেশি বিপদে আছেন। তাদের পাশে দাঁড়ানো সবার নৈতিক দায়িত্ব। কারণ গত বছর বৈশাখ ও দুই ঈদে ব্যবসা হয়নি। যেটুকু সময় মার্কেট ও দোকান খোলা ছিল সে সময়টুকুতে           বিকিকিনি তেমন ছিল না।’ বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ পোশাক প্রস্তুতকারক সমিতির সভাপতি আলাউদ্দিন মালিক বলেন, ‘গত বছর পয়লা বৈশাখ ও ঈদের সময় লকডাউনের কারণে কোনো পণ্য বিক্রি হয়নি। এবার লকডাউনের কারণে যদি পণ্য বিক্রি করতে না পারেন তাহলে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের অস্তিত্ব হুমকির মুখে পড়বে। কর্মচারীতে পরিণত হবেন অনেক মালিক। তাই এ রমজানে ১৫ দিনের জন্য হলেও মার্কেট ও দোকান খোলা রাখতে চাই।’

বাংলাদেশ এসএমই ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আলী জামান বলেন, সীমিত পরিসরে হলেও শিল্পের পরিপূরক হিসেবে কিছু প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া উচিত। কারণ শিল্পে উৎপাদিত পণ্য বিক্রি করতে হবে।

দোকান মালিক সমিতির তথ্যমতে, করোনাভাইরাস মহামারীতে ক্ষতিগ্রস্ত সারা দেশের ৫৩ লাখ ৭২ হাজার ৭১৬টি প্রতিষ্ঠানের ক্ষুদ্র, পাইকারি ও খুচরা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। প্রতিটিতে গড়ে রয়েছেন ১৫ জন কর্মচারী। কিন্তু এখন দোকান বন্ধ থাকায় তারা কিছু করতে পারছেন না। এসব দোকানে প্রতিদিন গড় বিক্রির পরিমাণ ২০ হাজার টাকা, যা থেকে ১০ শতাংশ লাভ করেন মালিকরা।

এদিকে ২২ এপ্রিল থেকে সারা দেশে মার্কেট ও দোকান খোলার দাবি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দিয়েছে বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি। সংগঠনটির সভাপতি হেলাল উদ্দিন স্বাক্ষরিত পত্রে বলা হয়, সারা দেশের ৫৩ লাখ ৭২ হাজার ৭১৬টি ক্ষুদ্র, পাইকারি ও খুচরা প্রতিষ্ঠানে শ্রমিক-কর্মচারীর সংখ্যা ২ কোটি ১৪ লাখের বেশি। তাদের ঈদের সময় এপ্রিল ও মের বেতনের সঙ্গে বোনাসসহ গড়ে ৪৫ হাজার টাকা করে দিতে হবে। তাতে মোট বেতনের পরিমাণ দাঁড়াবে ৯৬ হাজার ৭০৮ কোটি টাকা। গত এক বছরে করোনার আঘাতে দোকান মালিকরা কর্মচারীদের বেতন প্রদানের ক্ষমতা প্রায় হারিয়ে ফেলেছেন। গত বছর লকডাউনে প্রায় ৭ হাজার কোটি টাকার পুঁজি বিনষ্ট হয়েছে। সেই সঙ্গে আরও বিনষ্ট হয়েছে ২০ হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগ। এ বছরও রমজান ও ঈদ সামনে রেখে ক্ষুদ্র এবং পাইকারি ব্যবসায়ীরা কিছুটা ব্যবসার আশায় বিনিয়োগ করেছেন। কিন্তু এবারও আকস্মিক লকডাউনে ক্ষুদ্র ও খুচরা ব্যবসায়ীদের পুঁজি ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে। এমন অবস্থায় সীমিত পরিসরে ব্যবসা করার সুযোগ না দিলে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা সর্বস্ব হারিয়ে নিঃশেষ হয়ে যাবেন। তাই ক্ষুদ্র, পাইকারি, খুচরা মার্কেট, দোকানসমূহ ২২ এপ্রিল থেকে প্রতিদিন বেলা ১১টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত সামাজিক দূরত্ব মেনে খোলা রাখার সুযোগ দেওয়া হোক।

এই বিভাগের আরও খবর