শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১২ জুন, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ জুন, ২০২১ ০০:০০

টিকা নিয়ে হচ্ছেটা কী

চীনের উপহারের ৬ লাখ টিকা ঢাকায় আসছে কাল

নিজস্ব প্রতিবেদক

টিকা নিয়ে হচ্ছেটা কী
Google News

দেশে আসছে চীনের উপহারের আরও ৬ লাখ ডোজ টিকা। এ ছাড়া কোভ্যাক্স থেকে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ১০ লাখ টিকা পাওয়া যাবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন। এর আগে কোভ্যাক্স থেকে বাংলাদেশ ১ লাখ ৬২০ ডোজ ফাইজারের টিকা পেয়েছে।  পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, কোভ্যাক্স উদ্যোগের আওতায় আমরা অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ১০ লাখ ৮০০ ডোজ টিকা পাচ্ছি। তবে কবে নাগাদ এই টিকা আসবে সে বিষয়ে তিনি কিছু বলেননি। এর আগে বৃহস্পতিবার তিনি সাংবাদিকদের বলেছিলেন, আমরা যুক্তরাষ্ট্রকে অনুরোধ করেছি টিকার জন্য। আমাদের দেশে প্রায় ১৫ লাখ মানুষ প্রথম ডোজ নিয়েছেন এবং টিকা না পেলে তারা দ্বিতীয় ডোজ নিতে পারছেন না। আমরা জরুরি ভিত্তিতে তাদের কাছে টিকা চেয়েছি। ইতিমধ্যে ১ হাজার ৬৫৪ জন বাংলাদেশি আমাদের সমস্যার বিষয়ে আমেরিকান হোয়াইট হাউসে একটি পিটিশন করেছেন। আমেরিকানদের বক্তব্য হলো, বাংলাদেশে এই রোগের প্রভাব কম এবং সেজন্য তারা আমাদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বিবেচনা করছে না বলে মন্ত্রী জানান। তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র জানিয়েছে আমাদের টিকা দেবে। তবে কবে দেবে সেটি এখনো বলেনি। তারা অ্যাস্ট্রাজেনেকা ও অন্যান্য টিকা কোভ্যাক্সের অধীনে দেবে।’ দেশে এ পর্যন্ত ৫৮ লাখ ২০ হাজার ১৫ জন অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার প্রথম ডোজের টিকা পেয়েছেন। দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন ৪২ লাখ ৪০ হাজার ৮৫৬ জন। ১৪ লাখ ৪০ হাজার মানুষকে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার মতো টিকা সরকারের কাছে নেই। মূলত যারা ১৪ মার্চের পর প্রথম ডোজের টিকা নিয়েছিলেন, তাদের দ্বিতীয় ডোজ পাওয়া নিয়ে এই অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার এই টিকা প্রথম ডোজ দেওয়ার আট সপ্তাহ পর দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হচ্ছিল। তবে তা ১২ সপ্তাহ পর পর্যন্ত সময়ের মধ্যে দেওয়া যায়। সে হিসাবে এই ১৪ লাখের বেশি মানুষের টিকার দ্বিতীয় ডোজ নিশ্চিত দ্রুত টিকা আনা প্রয়োজন। কোভ্যাক্সের আওতায় অক্সফোর্ডে টিকা দেশে এলে অপেক্ষমাণ জনগোষ্ঠীর বড় অংশ দ্বিতীয় ডোজের টিকা পাবেন। এ ছাড়া কোভ্যাক্স থেকে ফাইজারের ১ লাখ ৬২০ ডোজ টিকা পেয়েছে বাংলাদেশ। এই টিকা ইপিআই স্টোরে সংরক্ষণ করা হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদফতর জানিয়েছে, ফাইজারের টিকা পাবেন পূর্বের নিবন্ধিতরা। ঢাকার নির্দিষ্ট কয়েকটি কেন্দ্রে এই টিকা দেওয়া হবে। 

আরও ৬ লাখ টিকা আসছে চীন থেকে : দ্বিতীয় দফায় চীন সরকারের উপহারের ৬ লাখ টিকা আগামীকাল আসবে বলে জানা গেছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন গত বৃহস্পতিবার বলেছেন, রবিবার ৬ লাখ ভ্যাকসিন আসবে। আমরা এখান থেকে দুটি সি-১৩০ বিমান পাঠাচ্ছি। ওরা ওইদিনই গিয়ে নিয়ে আসবে।’ ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটে তৈরি অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনাভাইরাসের টিকা দিয়ে বাংলাদেশে গণটিকাদান শুরু হয়েছিল গত ফেব্রুয়ারিতে। সেরাম থেকে ৩ কোটি ডোজ টিকা কেনার চুক্তি হলেও ভারত মহামারীর করাল গ্রাসে পড়লে টিকা রপ্তানি বন্ধ করে দেয় দেশটির সরকার। ফলে বাংলাদেশে ৭০ লাখ ডোজ টিকা পাওয়ার পর আর পায়নি। এরপর সরকার টিকার জন্য চীনের দিকে হাত বাড়ায়। চীন ইতিমধ্যে সিনোফার্মের ৫ লাখ ডোজ টিকা উপহার হিসেবে পাঠিয়েছে। ওই টিকা ২৫ মে ৫০১ জন মেডিকেল শিক্ষার্থীকে প্রয়োগ করে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। এরপর গণহারে টিকা দেওয়া শুরু হবে। পরবর্তীতে বাংলাদেশকে আরও ৬ লাখ ডোজ সিনোফার্মের টিকা উপহার দেওয়ার কথা জানায় চীন। সর্বশেষ চীনের দ্বিতীয় টিকা হিসেবে বাংলাদেশে জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন পেয়েছে সিনোভ্যাক লাইফ সায়েন্সেস কোম্পানির তৈরি করোনাভাইরাসের টিকা। এ ছাড়া চীন থেকে দেড় কোটি ডোজ টিকা কিনতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। পাশাপাশি বাংলাদেশে চীনা টিকা উৎপাদনের আলোচনাও চালাচ্ছে। এর বাইরে রাশিয়ার স্পুটনিক-ভি টিকা আমদানি এবং যৌথ উৎপাদনের আলোচনাও চলছে।

এই বিভাগের আরও খবর