শিরোনাম
শনিবার, ৮ জুলাই, ২০২৩ ০০:০০ টা

নির্বাচন নিয়ে যা ভাবছে বাম দলগুলো

♦ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে অনড় ♦ নেই নির্বাচনী প্রস্তুতি ♦ সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টিতে জোট গঠনের চেষ্টা

শামীম আহমেদ

নির্বাচন নিয়ে যা ভাবছে বাম দলগুলো

আগামী জাতীয় নির্বাচনে আবারও ফলাফল নৌকায় তুলতে দলের ভিতরে বেশ আগেই প্রস্তুতি শুরু করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। সংবিধান অনুযায়ী দলীয় সরকারের অধীনেই নির্বাচনের কথা সাফ জানিয়ে দিয়েছে সরকার। তবে এখনো নির্বাচনকালীন নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে অনড় বাম দলগুলো। দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যেতে চায় না তারা। তাই নির্বাচনী প্রস্তুতিও সেভাবে শুরু হয়নি দলগুলোর ভিতরে। নির্বাচন ব্যবস্থা সংস্কারে আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে সমমনা দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে বাম দলগুলোর বিভিন্ন জোট। পৃথক জোটগুলোকেও একত্রিত করার উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

বাম গণতান্ত্রিক জোটের কেন্দ্রীয় কমিটির সমন্বয়ক ও বাসদের (মার্কসবাদী) সমন্বয়ক মাসুদ রানা গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, আমাদের কথা স্পষ্ট- দলীয় সরকারের অধীনে কোনো সুষ্ঠু নির্বাচন হতে পারে না। নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার দিতে হবে। এটাই মূল দাবি। এই দাবিতেই আমরা বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে আসছি। যতক্ষণ পর্যন্ত এই সরকার পদত্যাগ না করবে, ততক্ষণ আমরা নির্বাচনে যাব না। এ ব্যাপারে আমাদের জোটভুক্ত দল ছাড়াও অন্য শক্তিগুলোর সঙ্গেও যুগপৎ আন্দোলনের চেষ্টা করছি। ফ্যাসিবাদ বিরোধী বাম মোর্চা, বাংলাদেশ জাসদ, ঐক্য ন্যাপসহ বিভিন্ন দল ও জোটের সঙ্গে আমাদের আলোচনা হয়েছে। তাদের নিয়ে সামনে এগোব। তবে আওয়ামী লীগ বা বিএনপির সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার কোনো পরিকল্পনা আমাদের নেই। এই সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাব না এটাই শেষ কথা। তিনি বলেন, এই সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই আমরা বলে আসছি দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন হতে পারে না। আমরা স্থানীয় নির্বাচনে যাওয়া বাদ দিয়েছি। সর্বশেষ সিটি করপোরেশন নির্বাচনেও বাম গণতান্ত্রিক জোটভুক্ত কোনো দল অংশ নেয়নি। আগামী

নির্বাচনে যাওয়ার মতো পরিবেশ হওয়ার সম্ভাবনা এখনো দেখছি না। এ ব্যাপারে বাম ধারার আরেকটি জোট ‘গণতন্ত্র মঞ্চ’-এর সমন্বয়ক ও বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ২০১৪ ও ২০১৮ সালে দুটো একতরফা ও নজিরবিহীন জালিয়াতির নির্বাচনের পরে দলীয় সরকারের অধীনে আর কোনো গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হওয়া সম্ভব নয়। সরকারের নীলনকশার আর কোনো নির্বাচনে বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পাটি বা গণতন্ত্র মঞ্চ যাবে না। নির্বাচন করে ডিসি, এসপি, প্রশাসন। তারা সরকারের নির্দেশনার বাইরে স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারে না। তাই নির্বাচন কমিশনের চেয়ে নির্বাচনকালীন সরকারের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। তাই আগামী নির্বাচনের আগে বর্তমান সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে। নির্বাচনকালীন একটা নিরপেক্ষ অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠন করতে হবে। সেই লক্ষ্যে আমরা গণতন্ত্র মঞ্চ বিএনপিসহ রাজপথের অন্য বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে যুগপৎ আন্দোলনে আছি। সরকার যদি শেষ পর্যন্ত জনদাবি অস্বীকার করে জবরদস্তি করে আরেকটি নির্বাচন করতে চায়, তাহলে তা দেশের জন্যও আত্মঘাতী হবে, সরকারের জন্যও আত্মঘাতী হতে পারে। দেশটা সংঘাত-সহিংসতার দিকে চলে যেতে পারে। আওয়ামী লীগ ঐতিহ্যবাহী দল হিসেবে প্রজ্ঞার পরিচয় দেবে বলে আমি বিশ্বাস করি। না হলে বিরোধী সব শক্তি একত্রিত হয়ে আন্দোলনের মাধ্যমে তাদের বিদায় করা ছাড়া উপায় থাকবে না। তিনি বলেন, গত নির্বাচনে ছয়টি দল আমাদের মার্কা নিয়ে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিল। আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণের সুযোগ হলে গণতন্ত্র মঞ্চগতভাবে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার চেষ্টা করব। অপরাপর প্রগতিশীল শক্তিগুলোর সঙ্গেও আমরা একটা বোঝাপড়া তৈরি করতে পারি কিনা সেটা দেখব।

বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি-সিপিবির সাধারণ সম্পাদক রুহিন হোসেন প্রিন্স এ ব্যাপারে বলেন, সাংবিধানিক ধারা রক্ষা করতে নির্বাচনী ধারা অব্যাহত রাখা প্রয়োজন। কিন্তু, বাংলাদেশে পুরো নির্বাচনী ব্যবস্থাটাই ধ্বংস হয়ে গেছে। সারা বিশ্বের মানুষ আজ জানে বাংলাদেশে দিনের ভোট রাতে সম্পন্ন হয়। নির্বাচনী ব্যবস্থা ফিরিয়ে আনতে আমরা সংগ্রাম করছি। বাংলাদেশে বিগত দিন এবং নিকট অতীতেও প্রমাণিত হয়েছে দলীয় সরকারের অধীনে কখনো ভালো নির্বাচন হওয়া সম্ভব নয়। এজন্য আমাদের নির্বাচন ব্যবস্থা সংস্কারের অন্যতম দাবি হলো নির্দলীয়, নিরপেক্ষ তদারকি সরকারের অধীনে নির্বাচন। সুষ্ঠু গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের পরিবেশ থাকলে আমরা নির্বাচনে অতীতেও অংশ নিয়েছি, আগামীতেও নেব। তবে নির্বাচনের নামে কোনো প্রহসনের চেষ্টা করা হলে কমিউনিস্ট পার্টি তাতে পা দেবে না। দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে না কমিউনিস্ট পার্টি। তবে আমরা জানি আমাদের কথা সরকারের কানে ঢোকে না। তাই বাংলাদেশের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলনে নামতে হবে। যারা দ্বিদলীয় মেরুকরণের বাইরে আছে, তাদের সবার সঙ্গে ঐক্যবদ্ধভাবে আমরা আন্দোলন করব। ভালো নির্বাচনের নিশ্চয়তা পেলেই নির্বাচনে যাব। বাংলাদেশ জাসদের চেয়ারম্যান শরীফ নুরুল আম্বিয়া বলেছেন, আমাদের দলটি নতুন নিবন্ধিত। তাই এখনো কোনো প্রস্তাব আমরা দেইনি। তবে বিতর্কিত নির্বাচন করার কোনো আগ্রহ আমাদের নেই। বর্তমানে নির্বাচন নিয়ে একটা সংকট চলছে। আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে এটার নিরসন করা উচিত। আগের দুটি নির্বাচন বিতর্কিত হয়েছে। একটা গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য যেসব সংস্কার দরকার সেগুলো করতে হবে। নির্বাচনকালীন যে সরকার থাকবে সেই সরকারের কোনো সদস্যই পরবর্তী সরকারে থাকা উচিত নয়। তাদের নির্বাচন করারই সুযোগ থাকা উচিত নয়।

সর্বশেষ খবর