শিরোনাম
প্রকাশ : ২০ জুন, ২০২১ ১৫:৩৬
প্রিন্ট করুন printer

ঘর মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি ও আত্মমর্যাদা বাড়িয়ে দেয়: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঘর মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি ও আত্মমর্যাদা বাড়িয়ে দেয়: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী
Google News

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী  মো. ফরিদুল হক খান এমপি বলেছেন, ঘরের নিশ্চয়তা বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষের সাংবিধানিক অধিকার। একটি ঘর শুধু মাথা গোঁজার ঠাঁই নয়, একজন মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি ত্বরান্বিত করে, আত্মমর্যাদা নিয়ে বেঁচে থাকার প্রেরণা জোগায়। 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, জমি ও গৃহ প্রদানের সঙ্গে সঙ্গে সবুজ বেষ্টনী ও নির্মল পরিবেশ তৈরি এবং উপকারভোগীদের চাহিদা পূরণে ও বনজ বৃক্ষরোপণ এবং বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান প্রত্যেকটি পরিবারের জন্য বিশুদ্ধ খাবার পানি টয়লেট সুবিধা স্বাস্থ্যসেবা ও শিশুদের প্রাথমিক বিদ্যালয় গমন নিশ্চিতকরণসহ সকল নাগরিক সুবিধা প্রদান করা হচ্ছে।

প্রতিমন্ত্রী আজ সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান কার্যক্রম ২য় পর্যায় এর শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠানের সাথে সমন্বয় রেখে আশ্রয়ণ প্রকল্প- ২ এর আওতায় নির্মিত জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলার ২০০ পরিবারের মাঝে ঘরের সনদ ও অন্যান্য উপহার সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন। ইসলামপুর উপজেলা প্রশাসন এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের গৃহীত বিশেষ কার্যক্রম হল আশ্রয়ণ প্রকল্প। এর মাধ্যমে ভূমিহীন গৃহহীন, ছিন্নমূল অসহায় দরিদ্র জনগোষ্ঠীর পুনর্বাসন করা, ঋণদান ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ সক্ষম করে তোলা এবং আয়বর্ধক কার্যক্রম সৃষ্টির মাধ্যমে দারিদ্র দূরীকরণের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

প্রতিমন্ত্রী জানান, মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২৩ জানুয়ারি প্রথম পর্যায়ে ৬৯ হাজার ৯শ ৪টি পরিবারকে জমিসহ গৃহ হস্তান্তর করেন এবং দ্বিতীয় পর্যায়ে আজ আরো ৫৩ হাজার ৩শ ৪০টি পরিবারকে জমিসহ গৃহ প্রদান কার্যক্রম শুভ উদ্বোধন করেন। পর্যায়ক্রমে দেশের সকল ভূমিহীন গৃহহীন পরিবারকে জমি অগ্রিম প্রদান করা হবে। 

প্রতিমন্ত্রী  বলেন, ক্ষুধামুক্ত-দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলা বিনির্মাণে মুজিববর্ষে "বাংলাদেশের একজন মানুষও  গৃহহীন থাকবে না।" মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এ নির্দেশনা শুধু ঘোষণা নয়। এ লক্ষ্যে
ইতোমধ্যে সারাদেশের ভূমিহীন ও গৃহহীন ৮ লাখ ৮৫ হাজার ৬শ ২২টি পরিবারের তালিকা করা হয়েছে। এদের মধ্যে ভূমিহীন ও গৃহহীন  অর্থাৎ "ক" শ্রেণীর পরিবার ২ লাখ ৯৩ হাজার ৩৬১টি এবং ১-১০ শতাংশ জমি আছে কিন্তু ঘর নেই জরাজীর্ণ এমন অর্থাৎ "খ"শ্রেণীর পরিবার সদস্য সংখ্যা ৫ লাখ ৯২ হাজার ২৬১ টি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আশ্রয়ণ প্রকল্পের মাধ্যমে ভূমিহীন গৃহহীন ছিন্নমূল মানুষকে শুধু গৃহ প্রদান করা হয় না, পুনর্বাসিত পরিবারসমূহকে প্রশিক্ষণ, ঋণ, শিক্ষা, স্বাস্থ্য এবং পরিবার পরিকল্পনা কার্যক্রমসহ বিভিন্ন সুবিধা প্রদান করে তাদেরকে জাতীয় অর্থনীতির মূলধারায় সম্পৃক্ত করা হচ্ছে। 

ইসলামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম মাজহারুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন  ইসলামপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট এস এম জামাল আব্দুন নাছের বাবুল, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার  ইসলামপুর (সার্কেল) সুমন মিয়া, ইসলামপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল খালেক আকন্দ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রোজিনা আক্তার চায়না, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ  কর্মকর্তা ডা. এটিএম আবু তাহের প্রমুখ, উপজেলা প্রকৌশলী আমিনুল হক, উপজেলা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আ. মাজেদ প্রমুখ।

বিডি প্রতিদিন/আল আমীন

এই বিভাগের আরও খবর