শিরোনাম
প্রকাশ : ২৩ মে, ২০২১ ১৪:১৭
প্রিন্ট করুন printer

শিক্ষকদের স্বাধীনতায় বঙ্গবন্ধুর অবদান

অধ্যাপক ড. ফরিদ আহমেদ

শিক্ষকদের স্বাধীনতায় বঙ্গবন্ধুর অবদান
অধ্যাপক ড. ফরিদ আহমেদ
Google News

সাধারণ অর্থে, স্বাধীনতা মানে সক্ষমতা-মর্যাদাপূর্ণ জীবনযাপনের ও জাগতিক সুখ-সমৃদ্ধি অর্জনের স্বাধীনতা। স্বাধীনতা মানে মত প্রকাশের অধিকার থাকা। স্বাধীনতা মানে নির্বাচিত হওয়ার স্বাধীনতা। স্বাধীনতা মানে নিজের সিদ্ধান্ত নিজে নিতে পারা। স্বাধীনতা একটি শব্দ হলেও স্বাধীনতার মানে অনেক কিছু। স্বাধীনতা ও অধিকার যেন একই মুদ্রার এপিঠ-ওপিঠ। স্বাধীনতা সম্পর্কে দর্শনে আমরা ফরাসি দার্শনিক জঁ-পল সার্ত্রর লেখা থেকে জানি। তিনি বলেছেন, মানুষের চিন্তার স্বাধীনতা হলো অফুরন্ত। কিন্তু বাস্তব স্বাধীনতা সীমিত। সেজন্য তার মনস্তাপ হয়। সে এ মনস্তাপ থেকে মুক্তি পেতে কৃত্রিম বিশ্বাস ধারণ করে। আমরা কি এখন কৃত্রিম বিশ্বাস ধারণ করছি? 

বঙ্গবন্ধু, যখন থেকে বুঝতে শিখেছেন, সেই শৈশবেই তিনি দেখেছেন-আমরা পরাধীন। ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি আমাদের পরাধীন করে রেখেছে। ১৭৫৭ সালে তারা আমাদের দেশ দখল করেছে। আমরা নিপীড়িত, শোষিত, নানা বঞ্চনার শিকার। আমাদের নেই বাক স্বাধীনতা, রাজনৈতিক অধিকার। এমনকি আমরা আমাদের খেতে কী ফসল উৎপাদন করব নেই সেই স্বাধীনতা। তাই চাষ করতে হয় নীল। হয় আন্দোলন-নীল বিদ্রোহ। আমাদের এখন কি বাক/মত প্রকাশের স্বাধীনতা আছে?  

বঙ্গবন্ধু জেনেছেন ব্রিটিশ সরকার শিল্প বিকাশ ঘটাতে আমাদের তাঁতিদের হাতের আঙুল কেটে দেওয়া হয়েছে। এক নিষ্ঠুর পৃথিবীতে আমরা বাস করি! সেই নিষ্ঠুরতা থেকে মুক্তির সংগ্রাম করছে সারা ভারতবর্ষ। নিজেকে তাই বাঙালির জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমান নিবেদিত করেছিলেন স্বাধীনতা অর্জনের সংগ্রামে। আমরা কি বঙ্গবন্ধুকে মনে রেখেছি? 

১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ ভারত ছাড়লেও তারা বাঙালির স্বাধীনতাকে বন্দী রেখেই চলে গেছে। কারণ তারা ১৭৫৭ সালে বাঙালিকেই পরাজিত করে ভারত দখল করেছিল। এ বাংলার ক্ষুদিরাম, তিতুমীর, সূর্যসেন তাদের শত্রু হয়েছিল দেশ স্বাধীন করতে গিয়ে। ২০০০ কিলোমিটার ব্যবধানে অবস্থিত পাকিস্তানের সঙ্গে পূর্ববাংলার দেশ গঠন। খুবই রহস্যজনক। পরাধীন করে রাখার এক সম্পর্ক। বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েও রয়ে গেল কলোনি-এবার ব্রিটিশ কলোনি থেকে পাকিস্তানি কলোনি। কী নির্মম পরিহাস! 

বঙ্গবন্ধু ছিলেন কলকাতার ইসলামিয়া কলেজের ছাত্র। চলে এলেন ঢাকায়। নতুন করে শুরু করলেন আন্দোলন-বাঙালির মুক্তির সংগ্রাম। তিনি বিশ্বাস করতেন বাঙালিকে কেউ দাবায় রাখতে পারবে না। তাই তিনি আপসহীন রাজনীতি থেকে নতুন ধারা রাজনীতি চালু করলেন। বঙ্গবন্ধু হলেন শেখ সাহেব থেকে জাতির পিতা। 

১৯৭১ সালে দেশ স্বাধীন হলে বঙ্গবন্ধু বিশ্ববিদ্যালয়ের শাসনব্যবস্থায় মনোনিবেশ করলেন। তিনি সিদ্ধান্ত নিলেন-গণতন্ত্রকে যদি সমাজ চেতনার ভিত্তি না করা হয় তবে স্বাধীনতা হবে অর্থহীন। নির্বাচন হবে গণতন্ত্রের চালিকাশক্তি। বিশ্ববিদ্যালয় মেধাবীদের স্থান। সেখানে যদি গণতন্ত্র থাকে তবে সারা দেশেই গণতন্ত্রের ফুলে ফলে ভরে উঠবে। আর গণতন্ত্রের সুঘ্রাণ বইবে বাংলার আকাশে-বাতাসে। কিন্তু কীভাবে সেটা সম্ভব? 
আর সেই অসম্ভবকে সম্ভব করে দিলেন বঙ্গবন্ধু। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য দিলেন-১৯৭৩ সালের অ্যাক্ট। সেখানে উপাচার্য নির্বাচিত হবেন সিনেটের ভোটে, সিনেট হবে সব অংশীজনের সমন্বয়ে। এমনকি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নন-আমলা নন, একজন সাধারণ নাগরিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হতে পারবেন। এক পরম স্বাধীনতার দলিল ১৯৭৩ সালের স্বায়ত্তশাসন অ্যাক্ট। এখানে সিন্ডিকেট থাকবে- যার প্রতিনিধি আসবে সব অংশীজনের মধ্য থেকে, আজকে যেটা টেকসই উন্নয়নের শর্ত। সরকার, রাষ্ট্রপতি, আমলা, শিক্ষক, ছাত্র সবাই সেখানে থাকতে পারবেন।

একাডেমিক কাউন্সিলে থাকবে বিভিন্ন ক্যাটাগরির প্রতিনিধি। কী পড়ানো হবে, কী নিয়ে গবেষণা হবে, কীভাবে মূল্যায়ন করা হবে তা নির্ধারণ করবে অংশীজন। থাকবে ছাত্র সংসদ, রেজিস্ট্রার্ড গ্রাজুয়েট প্রতিনিধি। কারণ তিনি উপলব্ধি করেছিলেন-মেধাবীরা এক ধরনের সংকটে পড়তে পারে তাদের মেধার কারণে। আর সেটা মেধাতন্ত্র। সেই মেধাতন্ত্র পরিণতি হবে অভিজাততন্ত্রে যা জন্ম দেবে অগণতান্ত্রিক পরাধীন ব্যবস্থা। আর ওই অভিজাততন্ত্র গণতন্ত্রকে নির্মূল করবে এবং এক পর্যায়ে মানুষ হবে পরাধীন। সুতরাং স্বাধীনতাকে গ্যারান্টি দিতে হলে এবং মানুষকে প্রকৃতভাবে মর্যাদা দিতে হলে দেশের সর্বোচ প্রতিষ্ঠানে আনতে হবে গণতন্ত্র। 
আধুনিককালের আরেক দার্শনিক জন লক বলেছেন, Man has a power to think, or not to think; to move, or not to move, according to the preference or direction of his own mind, so far is a Man Free. (E2–5 II.xxi.8: 237). তিনি আরও বলেছেন, the Idea of Liberty, is the Idea of a Power in any Agent to do or forbear any particular Action, according to the determination or thought of the mind, whereby either of them is preferrÕd to the other. (E2–5 II.xxi.8: 237). লক যে স্বাধীনতা ও মুক্তির কথা বলেছেন সেই মুক্তি দিলেন বঙ্গবন্ধু ১৯৭৩ সালের আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় অ্যাক্ট ১৯৭৩ দিয়ে। বিশ্ববিদ্যালয়মুক্ত প্রতিষ্ঠান হয়ে সক্ষমতার অর্জনে ও জ্ঞান অর্জনের অধিকার নিশ্চিত করছে। এবং মানবাধিকার রক্ষা ও বাস্তবায়নে কাজ করছে। কিন্তু সেখানে এখন অগণতান্ত্রিক চিন্তার আনাগোনা। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে তৎকালীন আইনমন্ত্রীর সংলাপের উদ্ধৃতি দিয়ে গণতন্ত্রের গলা টিপে ধরে মেরে ফেলার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। মাত্র ১০ বছরের ব্যবধানে আজ মিয়ানমারে সামরিক বাহিনী ক্ষমতা কেড়ে নিয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্তশাসন কেড়ে নিলে গণতন্ত্রের জন্য দাঁড়ানোর কেউ কি থাকবে?

স্বাধীনতার মানে কি তা আমরা আরেক দার্শনিকের রাজনৈতিক দর্শন থেকে জানতে পারি। তিনি হলেন ব্রিটিশ দার্শনিক বার্লিন। তিনি স্বাধীনতা বা ফ্রিডম (Freedom) কে দুই ভাগে ভাগ করেছেন। নেগেটিভ ফ্রিডম ও পজিটিভ ফ্রিডম। কোনো কিছু ( যে কোনো ধরণের বাধা) থেকে মুক্ত (Freedom from) হচ্ছে নেগেটিভ ফ্রিডম বা লিবার্টি(Liberty)। আর কিছু করবার স্বাধীনতা (freedom to) হচ্ছে পজিটিভ ফ্রিডম। আমরা জ্ঞান অর্জন ও বিতরণ করতে বিশ্ববিদ্যালয় সৃষ্টি করি। বিশ্ববিদ্যালয়ে এধরণের কাজ করবার স্বাধীনতা ভোগ করে থাকি আমরা শিক্ষকরা। একসময় আমরণ একজন বিভাগে সভাপতি থাকতেন। বঙ্গবন্ধু আমাদের সকলকে সভাপতি হবার অধিকার দিয়েছেন। 

বিশ্ববিদ্যালয়ে আমরা স্বাধীন সত্তা। এবং বিশ্ববিদ্যালয়ও স্বাধীন সত্তা। সুতরাং, এরিস্টটলের মতে, আমরা সেখানে কার্যকরী সত্তা কেবল স্বাধীনতা আছে বলেই। আমরা যাতে স্বাধীনভাবে চলতে পারি সেজন্য আমাদের প্রয়োজন অর্থ। বঙ্গবন্ধু বিশ্ববিদ্যালয়কে অর্থ সরবরাহ করবার ব্যবস্থা করেছেন রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে। বঙ্গবন্ধু আমাদেরকে স্বাধীনতা দিয়েছেন-কারণ তিনি জানতেন আমরা দায়িত্বশীল। সুতরাং, আমাদের কর্মকান্ডগুলোতে যাতে স্বচ্ছ থাকে ও জবাবদিহিতাকে মর্যাদা দেয়া হয় সেদিকে মনযোগ দেয়া কর্তব্য। 

বিশ্ববিদ্যালয়কে স্বাধীনতা দিয়ে বঙ্গবন্ধু আধুনিক বাংলাদেশ গড়তে উত্তর-আধুনিক চিন্তাকে রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনায় নির্বাচনকে সংযুক্ত করেছিলেন গণতন্ত্র ও মানবাধিকারকে মর্যাদা দিতে। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন আজ থেকে বাংলাদেশ স্বাধীন। ১৯৭৩ সালে সেই স্বাধীনতা ভোগের দলিল হস্তান্তর করেছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়কে। বঙ্গবন্ধু তাই স্বাধীনতার মহাপুরুষ এক মহান নেতা। বংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয় তাই মত প্রকাশ, জ্ঞান চর্চা, মুক্ত বুদ্ধি বিকাশের তীর্থস্থান। 

তথ্যের অভাব মোচনে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক-ছাত্র জ্ঞান চর্চা করে। সেই আবিষ্কার বা তথ্য আমাদেরকে মুক্তির পথ দেখায়। সেই মুক্তবুদ্ধির চর্চা সম্ভব নয় যদি বিশ্ববিদ্যালয় স্বাধীন না হয়।  

স্বাধীনতা মানে আলাপ আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়ার সক্ষমতা। বিশ্ববিদ্যালয় স্বাধীন না হলে সেই সক্ষমতা অর্জন করতে পারে না। বঙ্গবন্ধু সেই সক্ষমতা অর্জনে বিশ্ববিদ্যালয়কে নানা ভাবে সুযোগ করে দিয়েছেন। বঙ্গবন্ধু আপনি চিরঞ্জীব হয়ে বাঙালির ঋদয়ে থাকবেন। বঙ্গবন্ধু আপনাকে অভিবাদন। জাতির অস্তিত্বের প্রয়োজনে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্তশাসন ও ১৯৭৩ সালের এক্ট রক্ষা করা আমাদের সকলের দায়িত্ব। 
আজ আমরা "গণতন্ত্র নিখোঁজ" শিরোনামে বই প্রকাশিত হতে দেখছি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৯৭৩ সালের এক্ট, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের, রাজশাহীর এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের এক্ট গণতন্ত্রের সঞ্জীবনী শক্তি - স্বাধীনতার দলিল। তাকে রক্ষা করা নাগরিক দায়িত্ব। 
আজ বিশ্ববিদ্যালয়কে সমাজের কাছে যারা পরিহাসের পাত্র করেছেন তারা কয়েকজন উপাচার্য। আর অনেকেই ১৯৭৩ সালের এক্ট কে দায়ী করছেন। এ যেন মাথা ব্যাথা সারতে মাথা কেটে ফেলা। বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বায়ত্তশাসন হলো বিশ্ববিদ্যালয় তথা দেশের কলিজা। তাকে কেবল নির্বোধরা দেখতে পায় না। আমার কি সতর্ক আছি?   

লেখক: অধ্যাপক, দর্শন বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়। 

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন