শিরোনাম
প্রকাশ : ৯ আগস্ট, ২০২০ ০৯:৫২

ব্রিটিশ প্রবাসীর শখের বাগানে ৫ ফুটের বাঁশ লাউ আর ১০ কেজি ওজনের পানি লাউ

যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি

ব্রিটিশ প্রবাসীর শখের বাগানে ৫ ফুটের বাঁশ লাউ আর ১০ কেজি ওজনের পানি লাউ

লন্ডন বাঙালি বাগান প্রেমীদের কাছে পরিচিত মুখ আজম খান। ইস্ট লন্ডনের ব্যাকটন এলকায় বাড়ির পেছনে সবুজের এক মহা সমারোহ গড়ে তুলেছেন সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার পাটলী ইউনিয়নের আজম খান ও তার স্ত্রী। এ বাগানের আঙ্গিনায় গেলে প্রেমে পরা ছাড়া উপায় নেই। করোনার এ মহাকালে এক টুকরো প্রশান্তির ছায়া ঘিরে রেখেছে আজম খানের শখের বাগান। আর এই শখের বাগান দেখতে লন্ডনের বিভিন্ন স্থান থেকে অনেক বাঙালি ভীড় করেন তার বাড়িতে। 

অনেক সময় অনেকে বাগান করার বিষয়ে তথ্যও জানতে চায় আজম খানের কাছে। বাগান বিষয়ে মানুষের অনেক প্রশ্নের উত্তর দিতে বা মানুষের এই আগ্রহ অনেক বেশি উপভোগ করেন বলে আজাম খান আমাদের জানান। 

তিনি বলেন, ২০০১ সাল থেকে বাড়ির পেছনের অল্প অল্প করে বাগান তৈরি করি। অনেকটা শখের বসে আবার কিছুটা দেশিয় খাবারের স্বাদ নিতেই এই পরিকল্পনা। প্রথম বছরই যখন গাছে লাউ আর শিম ধরে তখন এই শখ কয়েকগুন বেড়ে যায় আমার। 

আজম খানের শখের বাগানের সহযোগী তার স্ত্রীা। বাগান সম্পর্কে তিনি বলেন, প্রতিবছরই গ্রীস্মের সময় দু'জন মিলে বাগানের আয়োজন করি। সকাল-বিকেল পানি দেই। যত্ন করি। তারপর যখন সবজি ফলন হয়, তখন সব কষ্ট মিলিন হয়ে যায়। নিজেরা খেয়ে আত্মীয় বন্ধুর বাসায়ও দেশীয় এই সবজি পাঠিয়ে দেই। তাদের মুখেও যখন হাসি দেখি, তার অনুভূতি হয়তো ভাষায় প্রকাশ করা কঠিন। 

আজম খানের বাগানের সব থেকে বেশি জনপ্রিয় বাশ লাউ। এ বছর একটি বাঁশ লাউ হয়েছে যেটির দৈর্ঘ্য প্রায় ৫ ফুট। আর দুটি লাউ হয়েছে যার একেকটির ওজন প্রায় ১০ কেজির মতো। বাগানে সবজির তালিকায় আরও আছে শিম, করলা, বেগুন, টমেটো, কচু, পাতাকপি, ডাটা, ক্যাপসিকাম ও কাঁচামরিচসহ বিভিন্ন ধরনের সবজি। আর এসব সবজি সম্পূর্ণ বাংলাদেশি জাতের। শুধুই সবজিই নয়, পাশাপাশি বিভিন্ন রকমের ফলমূলের চাষও করেছেন তিনি।

করোনাকালের এই সময় কিভাবে তিনি বীজ সংগ্রহ করলেন ও চাষ করলেন জানতে চাইলে আজম খান বলেন, বর্তমান সময়টা আমাদের জন্য মহাবিপদ। প্রতিবছর ফেব্রুয়ারীতে দেশ থেকে বীজ আনাই। তবে এবার করোনার কারনে আনতে পারিনি। তবে গত বছর আমি কিছু বীজ সংগ্রহ করেছিলাম। যা দিয়ে এবার বাগান করি। চাইলে আমার মতো করে অন্যরাও এক বছরের ফসল কিছুটা সংগ্রহ করে ঘরে বসেই বীজ তৈরি করতে পারবেন। 

প্রবাস জীবনে রেস্টুরেন্ট ব্যবসার সাথে যুক্ত ছিলেন আজম খান, ব্রিটেনে এক নামে সবাই চিনে শেফ আজম খান নামে। বর্তমানে অবসর যাপন করলেও চেষ্টা করছেন 'মাদারকারি' নামে একটি কারি পেষ্ট বাজারজাত করার জন্য। রান্নায় যেমন দক্ষ তেমনি বাগানেও দক্ষতার পরিচয় রাখা আজম খান আমাদের সাথে তার বাগানের কিছু পরামর্শ শেয়ার করেছেন। তিনি বলেন , বাজারেতো অনেক ধরনের সার পাওয়া যায়। সেই গুলোর সাথে প্রবাসেও আপনি বাগানের জন্য সার তৈরি করতে পারবেন। 

তিনি বলেন, পাকা কলার বাকল না ফেলে দিয়ে তা পানির মধ্যে তিন-চারদিন ভিজিয়ে রাখলে গাছের পটাশিয়াম হিসেবে কাজ করে। যা গাছের ফলন বৃদ্ধি করে। অন্যদিকে ব্যবহৃত চা পাতা ভিজিয়ে তার পানি গাছে দিলে তা নাইট্রোজেন বা ইউরিয়ার সারের কাজ করে যা গাছের বৃদ্ধি ও সতেজতার সাহায্য করে। 

আজম খান বলেন, ব্রিটেনে ছোট আঙ্গিনায় বাগান করার জন্য সবচেয়ে বেশী প্রয়োজন আগ্রহ। তিনি আশা করেন, সবার বাসার পেছনেই গড়ে উঠুক ছোট করে হলেও একটি সবুজ জীবনের গল্প।

 

বিডি-প্রতিদিন/সিফাত আব্দুল্লাহ


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর