প্রকাশ : ১৮ জানুয়ারি, ২০২০ ২২:১১

সিটি নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনে অনশন ভাঙলেন ঢাবি শিক্ষার্থীরা

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক

সিটি নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনে অনশন ভাঙলেন ঢাবি শিক্ষার্থীরা

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনে নির্বাচন কমিশনের ঘোষণার পর অনশন ভেঙেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। শনিবার রাত সাড়ে আটটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান রাজু ভাস্কর্যে গিয়ে শিক্ষার্থীদের ফলের রস পান করিয়ে অনশন ভাঙান।

এর আগে, শনিবার রাতে জরুরি এক সভা শেষে ৩০ জানুয়ারির পরিবর্তে ১ ফেব্রুয়ারি ঢাকা সিটি নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা। এই ঘোষণার পর উল্লাস প্রকাশ করেন নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। এ সিদ্ধান্ত নেওয়ায় সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানান তারা। 

তারিখ পরিবর্তন করে নির্বাচন কমিশনের ঘোষণার পর অনশন ভাঙতে রাজু ভাস্কর্যে আসেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান। পরে তিনি অনশনরত শিক্ষার্থীদের ফলের রস (জুস) ও পানি পান করিয়ে অনশন ভাঙান। এ সময় তার সাথে উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মুহাম্মাদ সামাদ, ঢাবি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক নিজামুল হক ভূইঁয়া, জগন্নাথ হলের প্রাধ্যক্ষ মিহির লাল সাহা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। 

পরে উপাচার্য সাংবাদিকদের বলেন, ঢাকা বিশ্ববিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অসাম্প্রদায়িক চেতনা ও মানবিক মূল্যবোধ দ্বারা তাড়িত হয়ে এই যৌক্তিক দাবি করেছেন। নির্বাচন কমিশন সে দাবিকে সম্মান জানিয়েছে, এজন্য কমিশনকে ধন্যবাদ। শিক্ষার্থীদের এই অসাধারণ মূল্যবোধকে আমি শ্রদ্ধা করি। যখন সমাজের অনেক অংশ কথা বলতে পারে না, তখন অন্ততপক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা মহৎ মূল্যবোধ প্রতিফলনের জন্য বক্তব্য রাখে। এটি সমাজে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

দাবি পূরণ হওয়ায় সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে আন্দোলনের সমাপ্তি ঘোষণা করেন আন্দোলনকারীদের সমন্বয়ক জগন্নাথ হল সংসদের ভিপি উৎপল বিশ্বাস। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন যাতে এমন কোন সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে ভাবে, যা আমাদের সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি নষ্ট করতে পারে। 

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার দুপুর দুইটা থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে ঢাকা সিটি নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনের দাবিতে আমরণ অনশন চালিয়ে আসছিলেন অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী। গত তিন দিনে অসুস্থ হয়ে পড়েন প্রায় ১৪ জন শিক্ষার্থী। এছাড়াও গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন আরও চার শিক্ষার্থী।

বিডি-প্রতিদিন/মাহবুব


আপনার মন্তব্য