শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২৩ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২২ মার্চ, ২০২১ ২১:৫৪

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের সফল স্বপ্নযাত্রা

প্রতিদিন ডেস্ক

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের সফল স্বপ্নযাত্রা
Google News

২০১৮ সালে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মাধ্যমে বিশ্বের ৫৭তম দেশ হিসেবে স্যাটেলাইটের অভিজাত ক্লাবে প্রবেশ করে বাংলাদেশ। নিজস্ব স্যাটেলাইটের মালিক হতে বাংলাদেশের ২ হাজার ৯০২ কোটি টাকা খরচ হয়। দেশের প্রথম উপগ্রহ বিএস-১ উৎক্ষেপণ হয় ২০১৮ সালের ১১ মে ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে।

নানা চড়াই-উতরাই পেরিয়ে মহাকাশের দিকে উৎক্ষেপণ করা হয় বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১। ১২ মে ২০১৮ দিবাগত রাত ২টা ১৪ মিনিটে স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপণ করা হয়। এটি মহাকাশের কক্ষপথে পৌঁছতে ৩৩ মিনিট সময় লেগেছে। স্পেসএক্সের ফ্যালকন-৯ রকেটের নতুন সংস্করণ ব্লক ফাইভ ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টারের লঞ্চ প্যাড থেকে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটকে সঙ্গে নিয়ে রওনা হয় জিওস্টেশনারি ট্রান্সফার অরবিটের দিকে। দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর রাত ২টা ৪৭ মিনিটে এ স্যাটেলাইট বা কৃত্রিম উপগ্রহটি নির্ধারিত কক্ষপথে পৌঁছেছে। মহাকাশে যাত্রার জন্য প্রস্তুতি সেরে রাখা হয়েছিল আগেই। ১২ মে ২০১৮ দিবাগত রাত ২টা ১৪ মিনিটে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপণ করা হয়। বঙ্গবন্ধু-১ উৎক্ষেপণের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ বিশ্বের ৫৭তম দেশ হিসেবে নিজস্ব স্যাটেলাইটের মালিক হলো।

উৎক্ষেপণের এক বছর চার মাস পর ২০১৯-এর অক্টোবরেই আয়ের খাতায় নাম লেখানোর খবর আসে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর। এতে করে দেশি টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর খরচ কমেছে। ২০১৯ সালের ১ অক্টোবর বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মাধ্যমে সম্প্রচার শুরু হয়।

সরকারি ও বেসরকারি মিলিয়ে দেশে ত্রিশোর্ধ্ব স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল রয়েছে। এসব টিভি চ্যানেল এখন হংকংভিত্তিক অ্যাপস্টার সেভেন ও এশিয়াস্যাট স্যাটেলাইট ব্যবহার করে। টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বিএস-১ ব্যবহার করতে টিভি চ্যানেলগুলোকে দুটি মডুলেটর যন্ত্র কিনতে হচ্ছে। একটি গাজীপুরের গ্রাউন্ড স্টেশন ও আরেকটি বেতবুনিয়া স্টেশনের জন্য। এই বাড়তি খরচ যাতে টিভি চ্যানেলগুলোর ওপর বোঝা না হয়, সে জন্য বিসিএসসিএল তাদের স্যাটেলাইটের তরঙ্গ বরাদ্দ (ফ্রিকোয়েন্সি) ভাড়া কমিয়েছে। বিদেশি স্যাটেলাইট ব্যবহার করে টিভি চ্যানেলগুলোকে মাসে ১৩ থেকে ২৫ লাখ টাকা ব্যয় করতে হতো। আর বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটকে প্রতি মাসে ভাড়া দিতে হবে ১২ থেকে ১৬ লাখ টাকা।

২০২৩ সালের মধ্যে দেশের দ্বিতীয় স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ ও ব্যবহার শুরু হবে। দ্বিতীয় স্যাটেলাইটটির ধরন নির্ধারণে একটি পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। ফ্রান্সের প্রাইসওয়াটারহাউসকুপার্সকে (পিডব্লিউসি) পরামর্শক হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড (বিএসসিএল)।