শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩১ জুলাই, ২০১৯ ২৩:৩১

টেবিল টেনিসে হচ্ছেটা কী!

ক্রীড়া প্রতিবেদক

৭০ বা ৮০ দশকে ইনডোর খেলা টেবিল টেনিসে  দর্শকের কমতি ছিল না। পুরাতন জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের জিমনেসিয়ামে উপচেপড়া ভিড় হতো। জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপ ও লিগের আকর্ষণ ছিল অন্যরকম। কত তারকা যে বের হয়েছে তার হিসাব মেলানো মুশকিল। স্বামীবাগ, ফরাশগঞ্জ, আরমানিটোলা, ওয়ারী, ধানমন্ডি, শেখ রাসেল এমন কি দেশের দুই জনপ্রিয় দল মোহামেডান ও আবাহনী নিয়মিত লিগে অংশ নিতো। সেই টেবিল টেনিসে এখন কি আর আগের জৌলুস রয়েছে? ফেডারেশন রয়েছে ও নির্বাচনের মাধ্যমে কমিটি হচ্ছে। খেলাও হচ্ছে, কিন্তু সব কিছুতেই প্রাণহীন। বলা যায় কচ্ছপের গতিতে এগুচ্ছে টিটি। কতটা অব্যবস্থাপনার মধ্যে চলছে তা প্রমাণ মিলল গতকাল। স্বয়ং টেবিল টেনিস খেলোয়াড়রা স্বজনপ্রীতি ও অনিয়মের অভিযোগ তুলেছেন ফেডারেশনের সহ-সভাপতি খন্দকার হাসান মুনীরের বিরূদ্ধে। এমন অভিযোগের পর প্রশ্ন উঠেছে টিটিতে একি হচ্ছে। কখনো টেবিল টেনিসের সঙ্গে জড়িত না থাকলেও বিএনপির নেতৃত্বে চার দলীয় জোট ক্ষমতা থাকাকালীন ক্রীড়াঙ্গনে মুনীরের আগমন। হয়ে যান টেবিল টেনিসের সাধারণ সম্পাদক। দীর্ঘদিন ধরে ফেডারেশনের কমিটিতে থাকলেও খেলোয়াড়রা তার আচরণে ক্ষুব্ধ। গতকাল টেবিল টেনিস খেলোয়াড় সমিতি সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। সেখানে মূল এজেন্ডা ছিল মুনীরকে ঘিরে। কমিটির সভাপতি পাঁচবারের জাতীয় চ্যাম্পিয়ন মানষ চৌধুরী বলেন, ‘ফেডারেশনে কারও বিরুদ্ধে আমাদের অভিযোগ নেই। শুধুমাত্র সহ-সভাপতি মুনীর ভাইকে নিয়েই আমাদের যত ক্ষোভ। উনি যে স্বৈরাচারী কায়দায় টিটি চালাতে চাচ্ছেন তাতে কেউ হস্তক্ষেপ না করলে এ খেলা ধ্বংস হয়ে যাবে। যোগ্যতা বা র‌্যাঙ্কিং গুরুত্ব না দিয়ে তিনি তার পছন্দের খেলোয়াড়দের প্রাধান্য দিচ্ছেন। সামনে সাফ গেমসে তিনি তার পছন্দের মতো দল গড়তে চান। এ ব্যাপারে তার একটাই কথা আমার কথা মতো সব চলবে। যদি কেউ বাড়াবাড়ি করে তবে দেখে নেওয়ার হুমকিও দিয়েছেন।’


আপনার মন্তব্য