শিরোনাম
৩০ ডিসেম্বর, ২০২২ ০১:০৬

রোহিত-কোহলিদের বাদ দিলে ক্ষতি কিসের, প্রশ্ন গৌতম গম্ভীরের

অনলাইন ডেস্ক

রোহিত-কোহলিদের বাদ দিলে ক্ষতি কিসের, প্রশ্ন গৌতম গম্ভীরের

বিরাট কোহলি ও রোহিত শর্মা। ফাইল ছবি

শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে টি-টোয়েন্টি সিরিজে দলে রাখা হয়নি বিরাট কোহলি, রোহিত শর্মা ও লোকেশ রাহুলের মতো অভিজ্ঞ ক্রিকেটারদের। তাদের বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে, নাকি বাদ দেওয়া হয়েছে সেই বিষয়ে কিছু বলেনি ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। এমন পরিস্থিতিতে বিতর্ক আরও বাড়ালেন গৌতম গম্ভীর। ভারতের সাবেক এই ক্রিকেটার জানিয়েছেন, বিরাট-রোহিতদের বাদ দিলে তাতে দলের কোনো ক্ষতি হবে না। কারণ, সাফল্যই আসল।

সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে নিজের মত জানিয়েছেন গম্ভীর। তিনি বলেছেন, সব কিছুর মধ্যে একটা স্বচ্ছতা থাকা উচিত। যদি নির্বাচকদের মনে হয় যে বিরাট, রোহিতদের বাদ দিয়ে দল তৈরি করা হবে, তাতে কোনো ক্ষতি নেই। আসল হলো সাফল্য। তার জন্য যা করা দরকার করতে হবে। অনেক দলই সেটা করে। তবে সেটা স্পষ্ট করে জানাতে হবে। যাদের বাদ দেওয়া হচ্ছে, তাদের সঙ্গে নির্বাচকদের ভালো যোগাযোগ থাকা জরুরি।

কোনো ব্যক্তি বা নামের পেছনে না ছুটে বিশ্বকাপে সাফল্য পাওয়ার কথা মাথায় রেখে দল তৈরি করা উচিত বলে মনে করেন গম্ভীর। তিনি বলেছেন, যখন বড় নাম বাদ দেওয়া হয়, তখন আমরা একটু বেশিই চিৎকার করি। কিন্তু আমাদের ভেবে দেখতে হবে ২০২৪ সালের বিশ্বকাপে আমরা কীভাবে সাফল্য পেতে পারি। তার জন্য একটা দলকে দীর্ঘদিন ধরে খেলাতে হবে। তবেই দলের মধ্যে বোঝাপড়া অনেক ভালো হবে। আগে যাদের উপর ভরসা করা হয়েছিল, তারা পারেনি। তাহলে নতুনদের সুযোগ দেওয়া উচিত। তারা না পারলে, তখন অন্য কথা ভাবতে হবে।

ভারতের তরুণ ক্রিকেটারদের মধ্যে কয়েক জনের কথা আলাদা করে বলেছেন গম্ভীর। তার মতে, এই ক্রিকেটাররা ছোট ফরম্যাটে ভারতকে সাফল্য এনে দিতে পারেন। তিনি বলেছেন, সূর্যকুমার যাদব, ঈশান কিশানদের সব ফরম্যাটেই সুযোগ দেওয়া যেতে পারে। হার্দিক পান্ডিয়াও রয়েছে। তাছাড়া পৃথ্বী শ, রাহুল ত্রিপাঠি, সঞ্জু স্যামসনের মতো ক্রিকেটারদেরও সুযোগ দিতে হবে। তারা ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলতে পারে। টি-টোয়েন্টিতে সেটা খুব দরকার।

গম্ভীরের মতে, ভারতের ব্যর্থতার সব থেকে বড় কারণ আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলতে না পারা। রোহিত-বিরাটরা এই ধরনের ক্রিকেটের কথা বললেও মাঠে নেমে করতে পারেননি বলে মনে করেন ভারতের সাবেক এই ওপেনার।

তিনি বলেছেন, আমরা মুখে আক্রমণাত্মক ক্রিকেটের কথা অনেক বলেছি। কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে সেটা করে দেখাতে পারিনি। তাই হারতে হয়েছে। হতে পারে তরুণ ক্রিকেটাররা সেটা করতে পারবে। কারণ, তারা এভাবেই ক্রিকেট খেলেছে। কিন্তু তার জন্য তাদের সুযোগ দিতে হবে। নির্বাচকরা সেটাই করেছে। শ্রীলঙ্কা সিরিজ়ই বোঝা যাবে তরুণরা চাপ সামলাতে কতটা দক্ষ।

বিডি প্রতিদিন/এমআই

এই রকম আরও টপিক

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর