Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ২৫ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, শনিবার, ২৫ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : ৩০ জুলাই, ২০১৫ ০০:০০ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ৩০ নভেম্বর, -০০০১ ০০:০০
পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তি এবং উন্নয়নের স্বপ্ন ও বাস্তবতা
ব্রি. জে. মো. তোফায়েল আহমেদ, পিএসসি
পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তি এবং উন্নয়নের স্বপ্ন ও বাস্তবতা

সুপ্রাচীনকাল থেকে পার্বত্য চট্টগ্রাম ঐতিহাসিক এবং ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে বাংলাদেশের অবিচ্ছেদ্য অংশ। এখানকার জীবনযাত্রা সমতলের তুলনায় কঠিন ছিল বিধায় অতীতে খুব বেশিসংখ্যক লোক এ এলাকায় বাস করতে উৎসাহী হয়নি।

বর্তমানে যেসব ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত আছেন তারা ইদানীং নিজেদের আদিবাসী বলে দাবি করেন এবং এ দেশের কিছু মিডিয়া ও বুদ্ধিজীবী বিষয়টির গুরুত্ব অনুধাবন না করে, জেনে অথবা না জেনে বিভিন্ন সময়ে এ শব্দের প্রতিধ্বনি করে যাচ্ছেন। আদিবাসী হচ্ছেন অস্ট্রেলিয়ার অ্যাবোরেজিনিয়াস, নেটিভ আমেরিকান রেড ইন্ডিয়ান, ফ্রান্স ও স্পেনের বাসকু, দক্ষিণ আমেরিকার ইনকা ও মায়া, জাপানের আইনু, আরব বেদুইন সম্প্রদায় ইত্যাদি যারা সংশ্লিষ্ট ভূখণ্ডে আদিকাল থেকে বসবাস করে আসছেন। কিন্তু বাংলাদেশের এক দশমাংশ পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় (১৩,২৯৫ বর্গকিলোমিটার/৫,১৩৩ বর্গমাইল) যে মাত্র এক শতাংশ জনসংখ্যা (২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী ১৫,৯৮,২৯১ জন) বাস করছে তার ৪৭% বাঙালি, ২৬% চাকমা, ১২% মারমা এবং ১৫% অন্যান্য পাহাড়ি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী; যারা সিনলুন, চীন, আরাকান, ত্রিপুরা, বার্মা এবং অন্যান্য এলাকা থেকে আনুমানিক মাত্র ৩০০ থেকে ৫০০ বছর আগে পার্বত্য চট্টগ্রামে এসে আবাস স্থাপন করেছেন। ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর মধ্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় প্রথম আসেন কুকিরা। পরবর্তীতে ত্রিপুরা এবং ষোড়শ ও সপ্তদশ শতাব্দীতে আসেন আরাকানি গোত্রভুক্ত চাকমা ও মার্মা সম্প্রদায়। অথচ এ দেশে বাঙালি বা তাদের পূর্বপুরুষরা বসবাস করতে শুরু করেছে প্রায় চার হাজার বছর আগে থেকে। কাজেই ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীদের আদিবাসী হওয়ার দাবির প্রশ্নটি এখানে অবান্তর এবং আবাস পত্তনের সময় হিসাব করলে বাঙালিরাই বাংলাদেশের আদিবাসী। আর পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত অবাঙালিরা এ দেশের সংবিধানের স্বীকৃতি অনুযায়ী ক্ষুদ্র জাতিসত্তা বা ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী।

দেশ বিভাগ ও মুক্তিযুদ্ধে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর ভূমিকা : কালের পরিক্রমায় পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় বসবাসরত ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী দুবার বড় ধরনের ভুল করে।

১৯৪৭ সালে ভারত বিভাজনের সময় তারা ভারতের অংশ হওয়ার চেষ্টা করে এবং চাকমা নেতা কামিনী মোহন দেওয়ান ও স্নেহকুমার চাকমা রাঙামাটিতে ভারতীয় এবং বোমাং রাজা বান্দরবানে বার্মার পতাকা উত্তোলন করেছিলেন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় চাকমা রাজা ত্রিদিব রায় এবং বোমাং রাজা মংশৈ প্রু চৌধুরী পাকিস্তানের পক্ষে যুদ্ধ করে রাজাকারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন। এর মধ্যে রাজা ত্রিদিব রায় যুদ্ধ শেষে পাকিস্তানে চলে গিয়েছিলেন এবং ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১২ সালে পাকিস্তানে মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুর আগে কখনই আর তিনি বাংলাদেশে ফেরত আসেননি। কিন্তু এর ব্যতিক্রম ছিলেন মং সার্কেলের রাজা মং প্রু সাইন। তিনিই একমাত্র রাজা যিনি মুক্তিযুদ্ধে আখাউড়া ও ভৈরব এলাকায় সরাসরি অংশগ্রহণ করেছিলেন এবং সেনাবাহিনীর কর্নেল পদমর্যাদাপ্রাপ্ত হয়েছিলেন। রাজা মং প্রু সাইন নিজস্ব ৩৩টি অস্ত্র, চারটি গাড়ি এবং অনেক অর্থ মুক্তিযুদ্ধের জন্য ব্যয় করেছিলেন। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী এবং তাদের দোসররা মং রাজার আটটি হাতি, সাতটি ঘোড়া, ১৭০টি মহিষ, ১ হাজার ৬৬৩টি গরু, গুদামঘরে রক্ষিত ৯০ হাজার আড়ি ধান, ২ হাজার ৭০০টি চেয়ারসহ অনেক মূল্যবান ফার্নিচার, ১০ হাজার অতিথিকে আপ্যায়ন করার মতো সরঞ্জামাদি, ১৮টি পাওয়ার টিলার, ১০টি জেনারেটর, রাজপরিবারের শত বছরের স্মৃতিবিজড়িত অজস্ত্র স্বর্ণালঙ্কার ও কয়েক কোটি টাকার ধনসম্পত্তি লুণ্ঠন করে। উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধে এত বড় ত্যাগ এবং অবদান রাখার পরও তাকে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃর্ক যথাযথ সম্মান প্রদর্শন এখন পর্যন্ত করা হয়নি। আশা করা যায় যে, মুক্তিযুদ্ধে তার এবং এই রাজপরিবারের অবদান যথাসময়ে মূল্যায়ন করা হবে।

কাপ্তাই ড্যাম ও সংরক্ষিত বনাঞ্চল : ১৯৬২ সালের কাপ্তাই ড্যাম অধ্যায় যে ন্যক্কারজনকভাবে সমাধান করা হয়েছে তা মানব সভ্যতার ইতিহাসে সত্যিই বিরল। হাজার হাজার মানুষ (তার মধ্যে অনেক বাঙালিও ছিল) যারা তাদের বসতবাড়ি হারাল অথচ তাদের যথাযথভাবে ক্ষতিপূরণ প্রদান এবং পুনর্বাসন করল না তদানীন্তন পাকিস্তানি সরকার। ১৯৭০ সালে থেগামুখ, শুভলং এবং রাইনখিয়াং থেকে সংরক্ষিত বনাঞ্চল সৃষ্টির জন্য অনেক পরিবারকে পাকিস্তান সরকার কর্তৃক একইভাবে যথাযথ পুনর্বাসন ছাড়া উচ্ছেদ করা হয়েছিল। অথচ ভাগ্যের কী নির্মম পরিহাস, মুক্তিযুদ্ধের সময় সেই পাকিস্তান সরকারের পক্ষেই অস্ত্র ধরল বেশির ভাগ পাহাড়ি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী এবং হত্যা করল ক্যাপ্টেন আফতাবুল কাদেরসহ অসংখ্য মুক্তিযোদ্ধাকে। তাদের এ ভূমিকার কথা এ দেশের আপামর জনসাধারণের কজনই বা জানে? এখন দেশে মানবতাবিরোধী অপরাধের জন্য রাজাকারদের বিচার কার্যক্রম চলছে। একই অপরাধে তারা অপরাধী কি না সময়ই তা বলে দেবে।

মুক্তিযুদ্ধ-পরবর্তী কার্যক্রম : মুক্তিযুদ্ধের ধকল কাটতে না কাটতেই এ অপার সম্ভাবনাময় পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় ১৯৭৬ সালের ১৮ জুলাই বিলাইছড়ি থানার তক্তানালার কাছে মালু মিয়া পাহাড়ের কাছে বেলা ১১টায় রাঙামাটি থেকে আগত পুলিশ পেট্রোলের ওপর আক্রমণ পরিচালনার মধ্য দিয়ে আরেকটি অসম যুদ্ধের সূচনা হয়। এর পরবর্তী ইতিহাস রক্তের হোলি খেলার। শান্তিবাহিনীর সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা হত্যা করেছিল অসংখ্য নিরীহ ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী, বাঙালি ও নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের। বর্তমানে একই ধরনের কার্যক্রম ইউপিডিএফ, জেএসএস এবং সংস্কারবাদী দলের সন্ত্রাসীরা মিলে করছে। তথ্যমতে, ৩০ জুন, ২০১৫ পর্যন্ত সন্ত্রাসীরা পার্বত্য চট্টগ্রামে ২ হাজার ৯৬ জনকে হত্যা, ১ হাজার ৮৮৭ জনকে আহত এবং ২ হাজার ১৮৮ জনকে অপহরণ করেছে। এর প্রায় এক তৃতীয়াংশ পার্বত্য ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর সদস্য। নিরাপত্তা বাহিনীকেও সন্ত্রাসীদের নিয়ন্ত্রণ এবং প্রাণপ্রিয় মাতৃভূমির ভৌগোলিক অখণ্ডতা রক্ষার জন্য বেশ চড়া মূল্য দিতে হয়েছে। শুরু থেকে ২০১৫ সালের জুন পর্যন্ত নিরাপত্তা বাহিনীর ৩৫৩ জন প্রাণ দিয়েছেন, আহত হয়েছেন ৪৫২ জন এবং ম্যালেরিয়া ও অন্যান্য রোগে প্রাণ হারিয়েছেন আরও ২৫৫ জন।

শান্তিচুক্তি ও পরবর্তী অধ্যায় : ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর শান্তিচুক্তির মাধ্যমে হত্যা, লুণ্ঠন, জ্বালাও-পোড়াও, নারী নির্যাতনসহ অসংখ্য সন্ত্রাসী কার্যক্রমের অবসান হবে বলে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত জনসাধারণ ধারণা করেছিল। কিন্তু বর্তমানে কী দেখা যাচ্ছে? শুধু বাঙালি ও নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা নয়, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীরাও অত্যাচারিত, নিপীড়িত এবং ভয়ঙ্কর জিঘাংসার শিকার। জেএসএস, ইউপিডিএফ এবং সংস্কারবাদী নামে গড়ে ওঠা সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত মানুষের কাছ থেকে নিয়মিত ও অনিয়মিতভাবে জোরজবরদস্তি করে চাঁদা আদায় করে, আদায়কৃত চাঁদার টাকা দিয়ে অস্ত্র কেনে এবং সেই অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে আরও বেশি চাঁদা আদায় করে। এ যেন এক সীমাহীন চলমান গোলক-ধাঁধার বৃত্ত। এখানকার বিত্তহীন নিরীহ মানুষদের হত্যা, অপহরণ, ধর্ষণ, ফসল ধ্বংস, বাগান ধ্বংস, জ্বালাও-পোড়াও, ভয়ভীতি এবং নির্যাতন এখনো চলছে। ইদানীং পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় সংঘটিত সব বিষয়ে তারা প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করছে এবং কোনো কোনো ক্ষেত্রে স্থানীয় প্রশাসনের সিদ্ধান্ত, আদেশ-নির্দেশ ও মীমাংসা না মানার জন্য ভয়ভীতি প্রদর্শনের মাধ্যমে চাপ সৃষ্টি করছে; যা সংবিধানবিরোধী এবং দেশদ্রোহিতার নামান্তর। তারা পার্বত্য জনপদে সরকার ও প্রশাসনের একটি বিকল্প সরকার ও ছায়া প্রশাসন জোর করে এখানকার মানুষদের ওপর চাপিয়ে দিয়েছে। আর প্রশাসন কখনো কখনো নিরুপায় হয়ে অনিচ্ছা সত্ত্বেও নির্যাতন ও অত্যাচারের ভয়ে এসব সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড মেনে নিতে বাধ্য হচ্ছে। এত অমিত সম্ভাবনাময় এ অঞ্চল অথচ এখানে সবাই আসতে ভয় পায় কেন? কেন সব উন্নয়ন কার্যক্রমে তাদের চাঁদা দিতে হয়? কেন কলা, কচু, মুরগি, ছাগল, শূকর, গরু বিক্রি থেকে শুরু করে ধানি জমি, বাগান সব কিছুর জন্য চাঁদা দিতে হবে? এ প্রশ্নের উত্তর কে দেবে?

শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নের অগ্রগতি : একটি অর্ধেক পানিভর্তি গ্লাসকে অর্ধেক পূর্ণ বা অর্ধেক খালি হিসেবে আখ্যায়িত করা যায়। শান্তিচুক্তির ৭২টি ধারার মধ্যে ইতিমধ্যে ৪৮টি ধারা সম্পূর্ণ, ১৫টি ধারার বেশির ভাগ অংশ এবং অবশিষ্ট ৯টি ধারার বাস্তবায়ন কার্যক্রম চলমান রয়েছে। বর্তমান সরকারের প্রধান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর শান্তিচুক্তি করেছিলেন এবং অবশ্যই তিনি তা বাস্তবায়ন করতে বদ্ধপরিকর। চুক্তি অনুযায়ী নিরাপত্তা বাহিনীর অনেক ক্যাম্প ইতিমধ্যে বন্ধ করা হয়েছে অথচ সন্ত্রাসীরা তাদের সব অস্ত্র এখন পর্যন্ত সমর্পণ করেনি। কিন্তু পার্বত্য এলাকায় বসবাসরত সাধারণ জনগণ দাবি করেছে যে, নিরাপত্তা বাহিনী এখান থেকে চলে গেলে তারা আরও বেশি নিরপত্তা ঝুঁকিতে আবর্তিত হবে। শান্তিচুক্তির সবচেয়ে জটিল যে বিষয়টি তা হচ্ছে ভূমি ব্যবস্থাপনা। এ বিষয়ে ভূমি কমিশন গঠন করা হয়েছে এবং সে কমিশন কাজ করছে। ভূমি কমিশনের প্রধান ছাড়া বাকি সব সদস্যই পার্বত্য ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর। বিষয়টির ব্যাপকতা এবং জটিলতার কারণেই একটু বেশি সময় লাগছে সমাধান করতে। তবে প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে এ কথা নিশ্চিত বলা যায়। এ পর্যন্ত ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ও বাঙালি উভয় পক্ষ খাগড়াছড়িতে ৩ হাজার ১০৫টি, রাঙামাটিতে ৯৬৯টি এবং বান্দরবানে ৩৮৪টিসহ মোট ৪ হাজার ৪০৮টি ভূমিসংক্রান্ত মামলা করেছে। অগ্রগতি হিসেবে ইতিমধ্যে কম-বেশি ৪ হাজার মামলার ওয়ারেন্ট ইস্যু করা হয়েছে, ৩৩টি মামলার শুনানি শেষ হয়েছে এবং বাকিগুলোর ব্যাপারে কার্যক্রম চলছে। জানা গেছে, এখানকার সন্ত্রাসী সংগঠনগুলো ভূমি সমস্যা সমাধান কার্যক্রমে সর্বদা বাধা প্রদান করে থাকে, কারণ ভূমি সমস্যা সমাধান হয়ে গেলে তাদের হাতে কোনো ইস্যু থাকবে না যা তাদের রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিলের ট্রাম্প কার্ড। একইভাবে যেসব বিত্তবান ব্যক্তি অবৈধভাবে প্রাপ্যের চেয়ে অনেক বেশি জমি দখল করে আছেন তারাও চান না ভূমি সমস্যা দ্রুত সমাধান হোক। এ ছাড়া আর একটি জটিলতা হলো- ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর ব্যক্তিবর্গের ভূমির মালিকানার যথাযথ কাগজপত্র না থাকা। কারণ, অতীতে তারা কোনো ধরনের কাগজপত্র ছাড়াই জমি ভোগদখল করত। এ ছাড়া শান্তিচুক্তির কিছু ধারা আমাদের সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। সেগুলোর সমাধানের বিষয়ে কার্যক্রম এগিয়ে চলছে। এখানে ভুলে গেলে চলবে না যে, পৃথিবীর অনেক দেশে শান্তিচুক্তি স্বাক্ষর হওয়ার পরও তা নানান কারণে কার্যকর করা যায়নি বা সম্ভব হয়নি। উদাহরণস্বরূপ সুদান (১৯৭২), সোমালিয়া (১৯৯০), অ্যাঙ্গোলা (১৯৯১ ও ১৯৯৪), রুয়ান্ডা (১৯৯৩), নর্দান আয়ারল্যান্ড ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। কাজেই শান্তিচুক্তির অনিষ্পন্ন বিষয়াবলির সমাধানের জন্য ধৈর্যচ্যুতি কারও জন্য কল্যাণ বয়ে আনবে বলে মনে হয় না।

পার্বত্য চট্টগ্রামের টেকসই আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ও মানবতার কল্যাণে নিরাপত্তা বাহিনীর ভূমিকা : অনেকেই অশান্ত পার্বত্য চট্টগ্রামের নিরাপত্তা বাহিনীর কার্যক্রম সম্বন্ধে তেমনটা ওয়াকিবহাল নন। সন্ত্রাস দমন ও দেশের সার্বভৌমত্ব এবং আঞ্চলিক অখণ্ডতা নিশ্চিত করার সঙ্গে সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনী এই অশান্ত এলাকায় যোগাযোগব্যবস্থার উন্নয়ন, জনগণের জন্য আবাসন স্থাপনে সহযোগিতা, স্থানীয় জনগণকে বিনামূল্যে চিকিৎসা প্রদান এবং প্রায় সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান স্থাপনে সরাসরি ভূমিকা রাখা; শিল্পব্যবস্থার উন্নয়ন ও কুটিরশিল্প স্থাপন; নিরাপদ হাইজিন ও সুপেয় পানির ব্যবস্থা করা; কৃষি, পশুপালন, মাছ চাষ, হাঁস-মুরগি পালন, বৃক্ষরোপণ; ধর্মীয় ও বিভিন্ন আচার অনুষ্ঠান পালন, চিত্তবিনোদন, খেলাধুলা, প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলা এবং বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কার্যক্রমে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে অংশগ্রহণ করে থাকে। পার্বত্য চট্টগ্রামের সার্বিক উন্নয়নে নিরাপত্তা বাহিনীর সাফল্যের কথা কোনো এক অজানা কারণে এ দেশের মানুষ জানতে পারে না বা জানানো হয় না। আমাদের মিডিয়াগুলো এ ব্যাপারে তেমন কার্যকর ভূমিকা নেয় না বলেই অভিযোগ রয়েছে। একটি বিষয় এখানে দ্ব্যর্থহীনভাবে বলা যায়, পক্ষপাতহীন কার্যক্রমের জন্যই পার্বত্য চট্টগ্রামে শুধু মুষ্টিমেয় সন্ত্রাসী ব্যক্তি ছাড়া বাকি সবার কাছে এখনো নিরাপত্তা বাহিনীই সবচেয়ে বেশি গ্রহণযোগ্য।

সন্ত্রাসী ও অস্ত্রধারীদের স্বপ্ন : পার্বত্য চট্টগ্রামের অঞ্চলিক দল ও তাদের সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের চাওয়া এবং স্বপ্নগুলো নিয়ে পর্যালোচনা করা জরুরি। অবস্থাদৃষ্টে তাদের চাহিদাগুলো নিম্নরূপ বলে প্রতীয়মাণ হয় :

শিক্ষা ক্ষেত্রে উন্নয়নে বাধা প্রদান : তাদের প্রথম স্বপ্ন সম্ভবত এ এলাকার পশ্চাৎপদ মানুষদের মূর্খ করে রাখা। রাঙামটিতে মেডিকেল কলেজ এবং বিশ্বিবিদ্যালয় স্থাপনে বাধা প্রদান তার প্রমাণ। না হলে এখানকার নিরীহ জনগণ, যারা তাদের ভয়ে নিয়মিত চাঁদা দেয়, তাদের ছেলেমেয়রা স্কুল-কলেজে যেতে পারে না; অথচ তাদের দেয় টাকায় সেসব নেতানেত্রীর ছেলেমেয়েরা লেখাপড়া করে শহরের নামিদামি স্কুল-কলেজে এবং বিদেশে। সেসব নেতানেত্রীর সন্তানরা ইংরেজি মাধ্যমে লেখাপড়া করলেও তারা চান সাধারণ মানুষের সন্তানরা শুধু ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীদের নিজস্ব ভাষা শিখে এবং বাংলা ও ইংরেজি না শিখে জঙ্গলের আরও গভীরে চলে যাক। এখানে মায়ের ভাষা ভুলে যাওয়ার কথা বলা হচ্ছে না, প্রগতি ও অগ্রগতির কথা বলা হচ্ছে। ভারতে সবাইকে কমপক্ষে তিনটি ভাষা শিখতে হয়। পাহাড়ি সন্ত্রাসীদের ইচ্ছা এখানকার জনগণ মূর্খ থাকলে তাদের পক্ষে শোষণ করা সহজ; যেমনটি তারা এতকাল ধরে করে এসেছে। বাংলাদেশ সরকার এ এলাকার শিক্ষা ক্ষেত্রে উন্নয়নের জন্য অনেক কাজ করেছে। ১৯৭০ সালে পার্বত্য চট্টগ্রামে মাত্র ছয়টি উচ্চবিদ্যালয়/কলেজ ছিল যার বর্তমান সংখ্যা ৪৭৯টি। প্রাথমিক বিদ্যালয় এখন প্রতিটি পাড়ায়। এ ছাড়া ইতিমধ্যে এখানে একটি বিশ্ববিদ্যালয় (ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়েছে), একটি মেডিকেল কলেজ, পাঁচটি স্টেডিয়াম, ২৫টি হাসপাতাল এবং বর্তমানে ১ হাজার ৩৮২টি বিভিন্ন কটেজ ইন্ডাস্ট্রি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। শিক্ষার হার ১৯৭০ সালে মাত্র ২% ছিল যা বেড়ে এখন ৪৪.৬% হয়েছে। অবশ্য এ তথ্যে সন্তুষ্ট হওয়ার কিছু নেই। এখানে বসবাসরতদের জন্য আরও অনেক কিছু করার দরকার ছিল এবং আরও অনেক কিছু করা সম্ভব ছিল। অনেক কিছুই করা সম্ভব হয়নি এখানকার তথাকথিত সেসব কল্যাণকামী (?) নেতানেত্রী এবং তাদের সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের বাধার কারণে।

জনগণের থেকে জোর করে আদায় করা চাঁদার টাকায় আরাম-আয়েশে দিন যাপন করা : এটি তাদের দ্বিতীয় স্বপ্ন এবং বর্তমানে নিষ্ঠুর বাস্তবতা। জানা গেছে যে, শুধু মাটিরাঙা থেকে বছরে ৩২ কোটি টাকার মতো এবং সমগ্র পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে বছরে কম-বেশি ৪০০ কোটি টাকা চাঁদা আদায় হয়। কোথায় ব্যয় হয় সেই টাকা? কয়টা স্কুল, কয়টা কলেজ, কয়টা হাসপাতাল তৈরি করে দিয়েছে জেএসএস, ইউপিডিএফ এবং সংস্কারবাদীরা? কত ফুট রাস্তা তারা এ পর্যন্ত নির্মাণ করে দিয়েছে? কী করেছে সাধারণ মানুষের কষ্টার্জিত টাকা জবরদস্তি করে লুট করে নিয়ে? এখন সময় এসেছে এখানকার সন্ত্রাসী নেতাদের সম্পত্তির হিসাব নেওয়ার। কারণ জানা গেছে যে, নেতাদের অনেকেই সম্পদের পাহাড় গড়েছেন, করেছেন বাড়ি-গাড়ি, ব্যাংক ব্যালান্স ইত্যাদি। পাহাড়ে বসবাসরত ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীরা সরকারকে কর প্রদান করে না। পক্ষান্তরে করের থেকে কয়েক গুণ বেশি চাঁদা দিতে বাধ্য হয় সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের। এত কিছুর পরেও বাংলাদেশ সরকার সমতল ভূমির জনগণের কর থেকে অর্জিত অর্থ পার্বত্য চট্টগ্রামের উন্নয়নে ব্যয় করছে। পার্বত্য অঞ্চলে ১৯৭০ সালে মাত্র ৪৮ কিলোমিটার রাস্তা ছিল। বাংলাদেশ সরকার নির্মাণ করেছে প্রায় ১ হাজার ৫০০ কিলোমিটার রাস্তা, অসংখ্য ব্রিজ ও কালভার্টসহ সম্পন্ন করেছে অনেক উন্নয়ন কার্যক্রম। কিন্তু রাস্তাঘাট ও ব্রিজ-কালভার্ট নির্মাণে এবং সব ধরনের উন্নয়ন কার্যক্রমে তারা সব সময় বাধা দিয়েছে এবং এখনো দিচ্ছে। সন্ত্রাসীরা চাঁদাবাজি এবং শ্রমিক অপহরণ ও বাধার সৃষ্টি না করলে উন্নয়নকাজ আরও সহজে সম্পন্ন করা যেত। জানা গেছে, পার্বত্য চট্টগ্রামে সব নির্মাণকাজে জেএসএস, ইউপিডিএফ এবং সংস্কারবাদী সন্ত্রাসীদের যথাক্রমে ১০%, ৫% ও ৩% অথবা আরও বেশি হারে চাঁদা দিতে হয়। এখানে কোনো বিত্তশালী কিংবা দেশি-বিদেশি কোম্পানি পুঁজি বিনিয়োগ করতে চান না কেন? লক্ষ্মীছড়ি থেকে বার্মাছড়ি পর্যন্ত রাস্তার কাজ বন্ধ করে ঠিকাদার কেন পালিয়ে গেলেন? এ অত্যাচার থেকে এখানে বসবাসরত নিরীহ মানুষদের কবে মুক্তি মিলবে?

স্বায়ত্তশাসন তথা পৃথক জুম্মল্যান্ড গঠন : পার্বত্য সন্ত্রাসীদের তৃতীয় দিবা কিংবা অলীক স্বপ্ন হচ্ছে পার্বত্য চট্টগ্রামে স্বায়ত্তশাসিত প্রকারান্তরে স্বাধীন একটি দেশ প্রতিষ্ঠা করা, যার নাম হবে 'জুম্মল্যান্ড'। বর্তমান বিশ্বে দুই জার্মানি এক হলো, দুই কোরিয়া এক হতে চেষ্টা করছে, ইন্ডিয়া সিকিমকে যুক্ত করে আরও বড় হয়েছে, সমগ্র ইউরোপ অভিন্ন মুদ্রা ব্যবহার করছে এবং পাসপোর্টবিহীন ইউরোপের সব দেশে চলাচল করছে, হংকং চীনের সঙ্গে অঙ্গীভূত হয়েছে, স্কটল্যান্ডের জনগণ পৃথক দেশ গঠনের বিরুদ্ধে গণভোট প্রয়োগ করেছে; অর্থাৎ সবাই যখন যুক্তভাবে শক্তিশালী হতে চেষ্টা করছে তখন পার্বত্য সন্ত্রাসীরা চেষ্টা করছে এ দেশ ভেঙে ছোট করতে; প্রাণপ্রিয় মাতৃভূমিকে টুকরা টুকরা করতে। তাদের স্বায়ত্তশাসন বা স্বাধীন ভূখণ্ডের এই অলীক ও অবাস্তব স্বপ্ন কখনই পূরণ হবে না, হতে পারে না। ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসন থেকে প্রায় সব দেশ স্বাধীন হয়েছে। পাকিস্তান ভেঙে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার প্রেক্ষাপট ভিন্ন ছিল। কিন্তু লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত এ ভূখণ্ডে নতুন করে আরেকটি দেশ তৈরি করা কখনই সম্ভব হবে না। এখানে আরও দুটি বিষয়ে আলোকপাত করা দরকার, বর্তমান চাহিদামতো নতুন ভূখণ্ড তথা 'জুম্মল্যান্ড' প্রতিষ্ঠিত হলেও তাদের আরও এক বা একাধিকবার যুদ্ধ করতে হবে স্বতন্ত্র চাকমা, ত্রিপুরা ও মারমা ল্যান্ড প্রতিষ্ঠা করার জন্য। কারণ সবাই জানে যে চাকমা, ত্রিপুরা ও মারমাদের মধ্যে শিক্ষা, সুযোগ-সুবিধা, জীবনযাত্রার মানের বিভিন্ন সূচকে রয়েছে বিশাল বৈষম্য। অন্য বিষয়টি হলো, ৩০ লাখ প্রাণের বিনিময়ে, একসাগর রক্তের দামে কেনা এ দেশের স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধবিরোধী তথা রাজাকারদের কোনো প্রচেষ্টা, এ দেশের ১৬ কোটি মানুষ এবং এ দেশের চৌকস নিরাপত্তা বাহিনী সফল হতে দেবে কি না তা বিবেচনার ভার পাঠকদের ওপর থাকল।

পার্বত্য চট্টগ্রামের অর্ধেক জনগোষ্ঠীকে বিতাড়িত করা : এখানকার সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের আরেকটি স্বপ্ন এখানে বসবাসরত অর্ধেক জনগোষ্ঠীকে অর্থাৎ বাঙালি সম্প্রদায়কে এখান থেকে বিতাড়িত করা। বিশ্বের সবচেয়ে উন্নত দেশ আমেরিকাকে বলা হয় ইমিগ্রান্ট বা অভিবাসীদের দেশ। আমেরিকায় নেটিভদের বাদ দিলে শতকরা ৯৯% জনেরও বেশি মানুষ পৃথিবীর অন্যান্য দেশ থেকে গিয়ে সেখানকার নাগরিকত্ব গ্রহণ করেছে। সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, কানাডা ও ইউরোপে বিভিন্ন জাতি ও গোষ্ঠী একত্রে বসবাস করছে। এখানকার অনেক নেতানেত্রীর সন্তান ও আত্দীয়স্বজন আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া ও ব্রিটেনের স্থায়ী বাসিন্দা হয়েছেন কিংবা নাগরিকত্ব গ্রহণ করেছেন। তারা বাংলাদেশের যে কোনো স্থানে বসতি স্থাপন করতে পারে এবং করছে। কিন্তু সমতলের বাংলাদেশিরা পার্বত্য চট্টগ্রামে বসতি স্থাপন করাতেই তাদের যত আপত্তি। তাদের এক অদ্ভুত দাবি। এখানে যার জন্ম হয়েছে, এই মাটির ধুলা মাখিয়ে যে বড় হয়েছে, এখানের বাতাসে যে নিঃশ্বাস-প্রশ্বাস গ্রহণ করে বেঁচে আছে, তাকে এখান থেকে চলে যেতে হবে। কী অদ্ভুত এবং অবাস্তব আবদার। শান্তিচুক্তিতেও কিন্তু এ কথা লেখা নেই যে, এখানে বসবাসরত বাঙালিদের এখান থেকে চলে যেতে হবে। বর্তমান প্রেক্ষাপটে এ দাবি মোটেই বাস্তবসম্মত নয়।

বর্তমান প্রেক্ষাপটে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত জনসাধারণের করণীয় কী : একটু আগেই বলা হয়েছে যে, এখানকার ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর সদস্যরাও মুষ্টিমেয় সন্ত্রাসীদের ভয়ঙ্কর জিঘাংসার শিকার। কিন্তু পার্বত্য অঞ্চলে স্থায়ীভাবে বসবাসরত সাধারণ মানুষদের ইচ্ছা-অনিচ্ছায় কিছু যায় আসে না। তাদের পালন করতে হয় এখানকার নেতৃত্ব ও সন্ত্রাসীদের নির্দেশ। এ প্রসঙ্গে নিম্নের বিষয়গুলোয় গুরুত্ব আরোপ করা যেতে পারে :

নিজেদের নিরাপত্তা নিজেদের নিশ্চিত করতে হবে : পৃথিবীর এমন কোনো শক্তিশালী নিরাপত্তা বাহিনী নেই যারা বাড়ি বাড়ি গিয়ে সবাইকে নিরাপত্তা দিতে পারে। তাই এখানকার জনসাধারণের নিরাপত্তা নিজেদের সম্মিলিতভাবে নিশ্চিত করতে হবে। এ জন্য নিজ নিজ এলাকায়, প্রতিটি বাজারে এবং পাড়ায় পাড়ায় বিশেষ নিরাপত্তাব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। যথার্থ তথ্য দিলে যেসব অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী ও দুষ্কৃতিকারী এলাকায় শান্তি বিনষ্ট করছে তাদের আইনের হাতে সোপর্দ করার জন্য কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে নিরাপত্তা বাহিনী সদা প্রস্তুত রয়েছে।

চাঁদা প্রদান বন্ধ করতে হবে : যে কোনোভাবে সবাইকে নিয়মিত ও অনিয়মিত চাঁদা প্রদান বন্ধ করতে হবে। বিশেষ করে এখানকার উন্নয়ন কার্যক্রমে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার, মোবাইল অপারেটর কোম্পানি, আন্তজেলা বাস মালিক ও ব্যবসায়ীদের সন্ত্রাসীদের চাঁদা প্রদান বন্ধ করতে হবে। তাহলেই তারা অস্ত্র কেনা এবং অন্যান্য দলীয় কার্যক্রম সম্পাদনে অর্থ জোগানের জটিলতায় ধীরে ধীরে স্তিমিত হয়ে পড়বে। তাই নিজ নিজ পাড়া ও বাজার এলাকাকে চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসমুক্ত এলাকা হিসেবে ঘোষণা করতে হবে এবং নিশ্চিত করতে হবে। চাঁদাবাজদের পাকড়াও করে আইনের হাতে সোপর্দ করতে হবে। কারও একার পক্ষে এ কাজ সম্ভব না হলেও সম্মিলিতভাবে সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজদের প্রতিরোধ করা সম্ভব।

টেকসই আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে সচেষ্ট হতে হবে : টেকসই আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের জন্য সবাইকে নিজ নিজ অবস্থানে থেকে সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা বজায় রাখতে এবং আত্দনিয়োগ করতে হবে। এ ক্ষেত্রে শিক্ষার উন্নয়নের কোনো বিকল্প নেই। শিক্ষা শুধু পাসের হার এবং জিপিএ'র হলে চলবে না। সত্যিকার অর্থে আত্দকর্মসংস্থান সম্ভব হবে এমন শিক্ষা গ্রহণ করতে শিক্ষার্থীদের সহযোগিতা ও উৎসাহিত করতে হবে। আর এ জন্য যা দরকার তা হচ্ছে নিবেদিতপ্রাণ শিক্ষক। কৃষি, বৃক্ষরোপণ, পশুপালন, মাছ চাষ, একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প, ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প এবং ব্যবসা-বাণিজ্যের মাধ্যমে সবাইকে স্বাবলম্বী হতে চেষ্টা করতে হবে এবং জীবনযাত্রার মান এগিয়ে নিয়ে যেতে সচেষ্ট থাকতে হবে। বর্তমান প্রজন্ম যে অবস্থায় আছে তার চেয়ে পরবর্তী প্রজন্ম যেন আরও ভালো থাকতে পারে এ চেষ্টা বজায় রাখতে হবে। মনে রাখতে হবে, সৃষ্টিকর্তা তাকেই সহযোগিতা করেন যিনি নিজেকে সাহায্য করতে সচেষ্ট থাকেন। শান্তি ও সামাজিক সম্প্রীতি নিশ্চিত করতে হবে এবং পরস্পরের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে হবে। বাংলাদেশের প্রধান শক্তিই হচ্ছে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি। বাঙালি, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খ্রিস্টানসহ সব ধর্মালম্বী ও সব জাতি-গোষ্ঠীকে পরস্পরের প্রতি সহনশীল ও শ্রদ্ধাশীল আচরণ করতে হবে। কেউ যেন কখনই অন্য কারও কৃষ্টি, সভ্যতা, সামাজিকতা, ধর্মীয় অনুভূতি ইত্যাদিতে আঘাত না করে তা নিশ্চিত করতে হবে।

উপসংহার : স্বাধীনতার পর ৪৪ বছরে বাংলাদেশের অর্জন প্রতিবেশী দেশগুলোর তুলনায় অনেক ভালো। পার্বত্য চট্টগ্রামের বিরাজমান পরিস্থিতির শান্তিপূর্ণ ও সবার কাছে গ্রহণযোগ্য সমাধানে সময় নষ্ট করা কারও কাম্য হতে পারে না। অতীতের হানাহানি ও বিবাদ ভুলে সবাইকে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে অগ্রসর হতে হবে। এখানকার ক্ষুদ্র ও নৃগোষ্ঠীর অধিকার, তাদের উত্তরাধিকারীদের অধিকার, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও উন্নতির অধিকার সুসমভাবে নিশ্চিত করার কোনো বিকল্প নেই। একই সঙ্গে এখানে বসবাসরত অর্ধেক জনগোষ্ঠী বাঙালিও নিষ্ঠুর বাস্তবতার শিকার। এ সমস্যার সমাধান তাদের অন্যত্র পাঠিয়ে দেওয়ার মধ্যে নয় বরং উভয় পক্ষের স্বার্থ ও সম্প্রীতি রক্ষা করার মাধ্যমেই সম্ভব। এ দেশের জনগণ কষ্ট করে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে উপার্জিত অর্থ নিজের পরিবারের জন্য ব্যয় করতে চায়। দু'বেলা দু'মুঠো খেয়ে-পরে শান্তিতে জীবনযাপন করতে চায়। পরবর্তী প্রজন্মের জন্য সুশিক্ষা এবং উন্নত জীবন চায়। অসুস্থ হলে সুচিকিৎসা চায়। এই অপার সম্ভাবনাময় পার্বত্য অঞ্চলে মুষ্টিমেয় কিছু সন্ত্রাসী কর্তৃক সৃষ্ট অশান্তি ও অস্ত্রের ঝনঝনানি সমূলে উৎপাটন করে সবাই মিলে একটি শান্তিপূর্ণ ও উন্নত জীবনযাপন করা এবং পরবর্তী বংশধরদের জন্য বসবাসযোগ্য বাংলাদেশ রেখে যাওয়াই সবার স্বপ্ন। এ দেশের অপার সম্ভাবনাময় পার্বত্য এলাকায় সবাই মিলে শান্তি ও সম্প্রীতির সঙ্গে বসবাস করতে পারলে উন্নয়ন এবং উন্নত জীবনযাপন নিশ্চিত হতে বাধ্য।

লেখক : কমান্ডার, ২৪ আর্টিলারি ব্রিগেড ও গুইমারা রিজিয়ন

 

আপনার মন্তব্য

up-arrow