৩১ মার্চ, ২০২৪ ১৭:২৩

মৌসুমের শেষে বাঁধাকপি পিস ৫ টাকা

দিনাজপুর প্রতিনিধি

মৌসুমের শেষে বাঁধাকপি পিস ৫ টাকা

দিনাজপুর অঞ্চলে চাহিদার চেয়ে বেশি বাধাঁকপিসহ বিভিন্ন সবজি আবাদ হয়। এলাকার চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হয়। তবে মৌসুমের শেষে এসে বাধাঁকপি প্রতি পিস বিক্রি হচ্ছে ৫ টাকা। যদিও মৌসুমের প্রথমদিকে বাধাঁকপি ৩৫-৪০ টাকা কেজিতে বিক্রি হয়। বর্তমানে এতে অনেক কৃষকের লোকসান হলেও দাম কম হওয়ায় ক্রেতাদের মধ্যে স্বস্তি ফিরেছে। এ অবস্থা জেলার বিভিন্ন বাজারে। 

রবিবার দিনাজপুরের বিরামপুরের দেশমা হাট এলাকায় রাস্তার পাশে স্তুপ করে ৫ টাকা পিস বাঁধাকপি বিক্রি করতে দেখা গেছে। বিরামপুর পৌরশহরের হাবিবপুর এলাকার আনোয়ার হোসেন এই বাধাঁকপি বিক্রি করছেন। 

ওই বিক্রেতা সাংবাদিকদের বলেন, দাম বেশি পাওয়ার আশায় মৌসুমের শেষ ভাগে প্রায় এক বিঘা জমিতে বাঁধাকপি চাষ করেন তিনি। কিন্তু এখন সেই বাঁধাকপি তার গলার কাঁটা হয়েছে। বাজারে নামমাত্র মূল্যে তাকে এ সবজি বিক্রি করতে হচ্ছে। কখনো প্রতি পিস ৫ টাকায় আবার কখনো ৬-৭ টাকায় বিক্রি করছেন। এতে তার ১০-২০ হাজার টাকা লোকসান হবে বলে জানান আনোয়ার হোসেন।

আব্দুর রহিম নামে এক ক্রেতা বলেন, ৫ টাকা দরে ২০ টাকায় চারটি বাঁধাকপি কিনলাম। বর্তমান বাজারের চেয়ে কম দামে পণ্য পাওয়া কঠিন। সব সবজির দাম যদি এমন হতো তাহলে ভালোই হতো।

আসলাম নামে আরেক কৃষক বলেন, বাজারে সবজির যে দাম, তাতে আমাদের চলা দায় হয়ে পড়েছে। ৫০০ টাকা নিয়ে আসলে ব্যাগ ভরেই না। 

বিরামপুর উপজেলা কৃষি অফিসার জাহিদুল ইসলাম বলেন, আমাদের এ এলাকায় চাহিদার চেয়ে বেশি সবজি আবাদ হয়। এলাকার চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠানো হয়। এবার বিরামপুর উপজেলায় ১২৮০ হেক্টর জমিতে সবজি চাষ করা হয়েছে। এরমধ্যে ৩ দশমিক ২৮ হেক্টর জমিতে ফুলকপি এবং ৪ দশমিক ১৮ হেক্টর জমিতে বাঁধাকপি চাষ করা হয়েছে।

বিডি-প্রতিদিন/বাজিত

সর্বশেষ খবর