শিরোনাম
প্রকাশ : ১৪ মার্চ, ২০১৯ ১৯:০২

শেষের পথে রাবি শিক্ষক শফিউল হত্যা মামলার বিচারিক কাজ

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী

শেষের পথে রাবি শিক্ষক শফিউল হত্যা মামলার বিচারিক কাজ
ড. একেএম শফিউল ইসলাম
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক ড. একেএম শফিউল ইসলাম হত্যা মামলার বিচার কার্যক্রম প্রায় শেষ পর্যায়ে। ইতিমধ্যে বহুল আলোচিত এ মামলাটির সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছে। এখন আসামি পরীক্ষার জন্য আগামী ২১ মার্চ দিন ধার্য করেছেন রাজশাহীর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল। 
 
বুধবার আদালতের বিচারক অনুপ কুমার এই দিন ধার্য্য করেন। এর আগে একই দিন তিনি মামলার তদন্ত কর্মকর্তাসহ দুইজনের সাক্ষ্যগ্রহণ করেন।
 
ট্রাইব্যুনালের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী এন্তাজুল হক বাবু জানান, মামলায় মোট ৩৩ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হলো। আসামি পরীক্ষার পর আদালত মামলার যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের দিন ধার্য্য করবেন। এরপরই মামলাটির রায় ঘোষণার দিন ধার্য্য হবে। খুব তাড়াতাড়ি মামলাটি শেষ হচ্ছে বলেও জানান তিনি।
 
লালন ভক্ত ড. শফিউল ইসলাম মুক্তমনা ও প্রগতিশীল আদর্শের অনুসারী হিসেবে ক্যাম্পাসে পরিচিত ছিলেন। ২০১৪ সালের ১৫ নভেম্বর বিকালে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন চৌদ্দপাই এলাকায় কুপিয়ে হত্যা করা হয় তাকে। এ ঘটনায় পরের দিন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক মুহাম্মদ এন্তাজুল হক অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে মতিহার থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।
 
 ড. শফিউল খুনের ৫ ঘণ্টার মাথায় ফেসবুকে একটি পাতা খুলে দায় স্বীকার করে ‘আনসার আল ইসলাম বাংলাদেশ-২' নামে একটি জঙ্গি সংগঠন। তাই উগ্রবাদী এই সংগঠনটি হত্যাকাণ্ডে জড়িত বলে সন্দেহ করা হচ্ছিল। তবে তদন্তে বেরিয়ে আসে ব্যক্তিগত কোন্দলের জেরেই খুন হন বিশ্ববিদ্যালয়ের এই শিক্ষক। আর এই কোন্দল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা নাসরিন আখতার রেশমার সঙ্গে।
 
হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে ২৩ নভেম্বর প্রথমেই রেশমার স্বামী রাবি ছাত্রদলের সাবেক সহ-সভাপতি আবদুস সামাদ পিন্টুসহ ৬ জনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। পরে রেশমাকেও গ্রেফতার করে গোয়েন্দা পুলিশ। এরপর হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে রেশমা আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দেন।
 
এর এক বছর পর তদন্ত শেষে ২০১৫ সালের ৩০ নভেম্বর মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা রাজশাহী মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) তৎকালীন পরিদর্শক রেজাউস সাদিক আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এতে ড. শফিউল হত্যায় মোট ১১ জনকে অভিযুক্ত করা হয়।
 
অভিযুক্ত অন্যরা হলেন- জেলা বিএনপির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন উজ্জ্বল, পবা উপজেলার কাটাখালী পৌর যুবদলের নেতা আরিফুল ইসলাম মানিক, সিরাজুল ইসলাম, সবুজ শেখ, আল-মামুন, আরিফ হোসেন, সাগর হোসেন, জিন্নাত আলী ও ইব্রাহিম খলিল ওরফে টোকাই বাবু। তারা সবাই এখন জামিনে।
 
বিডি প্রতিদিন/এনায়েত করিম

আপনার মন্তব্য