শিরোনাম
প্রকাশ : ৩ মার্চ, ২০২১ ১৮:৫৬
প্রিন্ট করুন printer

বরিশালে ইলিশের অভয়াশ্রমে অভিযান বন্ধ মৎস্য বিভাগের!

রাহাত খান, বরিশাল

বরিশালে ইলিশের অভয়াশ্রমে অভিযান বন্ধ মৎস্য বিভাগের!

দুই দিনের সফরে বরিশাল আসছেন মৎস্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কাজী সামস আফরোজ। তার সফরের প্রস্তুতি নিতে গিয়ে ইলিশের অভয়াশ্রমে অভিযান বন্ধ রেখেছে স্থানীয় মৎস্য বিভাগ। এ কারণে বরিশালে ২ দিন ধরে দৃশ্যমান কোনো অভিযান নেই মৎস্য বিভাগের।

এই সুযোগে অভয়াশ্রমে দেদারছে মাছ শিকার করছেন জেলেরা। যদিও মহাপরিচালকের আগমনকে কেন্দ্র করে অভয়াশ্রমের অভিযান শিথিল করা হয়নি বলে দাবি করেছেন জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান।

দেশের ছয়টি ইলিশ অভয়াশ্রমের মধ্যে পটুয়াখালীর আন্দারমানিক নদীর ৪০ কিলোমিটার অভয়াশ্রমে নভেম্বর থেকে জানুয়ারি পর্যন্ত ৩ মাস সব ধরনের মাছ শিকারে নিষেধাজ্ঞা ছিল সরকারের। অপর পাঁচটি অভয়াশ্রমের মধ্যে ষষ্ঠ অভয়াশ্রম হলো বরিশাল জেলা সীমানার মধ্যে।

বরিশাল সদরের কীর্তনখোলা, কালাবদর ও আড়িয়াল খাঁ নদীর মোহনা হবিনগর থেকে মাসকাটা, গজারিয়া, নয়াভাঙ্গনী এবং মেঘনা নদীর হিজলার গৌরবদী পর্যন্ত ৮২ কিলোমিটারে ষষ্ঠ অভয়াশ্রমে মার্চ থেকে এপ্রিল পর্যন্ত জাটকাসহ সব ধরনের মাছ শিকার নিষিদ্ধ করে সরকার। পহেলা মার্চ ঢাক ঢোল পিটিয়ে অভয়াশ্রমে মাছ শিকার রোধে প্রশাসন অভিযান শুরু করলেও গত ২ দিন ধরে দৃশ্যমান কোনো অভিযান নেই মৎস্য বিভাগের।

প্রথম দিনে মাত্র সাতজন জেলেকে আটক করে পাঁচজনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড এবং একজনকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছে স্থানীয় প্রশাসন। এই সময়ে ২২ হাজার মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল, ৪ হাজার মিটার অবৈধ মশারি জাল এবং ৩টি বেহুন্দি জাল উদ্ধার করে ধ্বংস করেছে তারা।

কিন্তু গত ২দিনে তেমন কোনো অভিযান নেই মৎস্য বিভাগের। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সজাগ দৃষ্টি রাখলেও মৎস্য বিভাগের অভিযান না থাকায় অভয়াশ্রমে নজরদারি নেই। এ কারণে অভয়াশ্রমে মাছ শিকার চলছেই।

মৎস্য বিভাগ সূত্র জানায়, দুই দিনের সফরে আগামী শুক্রবার বিকেলে আকাশ পথে বরিশাল আসছেন মৎস্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কাজী সামস আফরোজ। ওইদিন রাতে নগরীর কাশীপুর হ্যাচারী কার্যালয়ের সভাকক্ষে মৎস্য বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে মতবিনিময় করবেন তিনি। পরদিন শনিবার বার্ষিককর্ম সম্পাদক চুক্তির অগ্রগতি পর্যালোচনা সংক্রান্ত এক কর্মশালায় যোগ দেবেন মহাপরিচালক।

এরপর জেলার বাকেরগঞ্জের দুধল মৌ এলাকায় মৎস্য গ্রামে বিভিন্ন মাছের খামার পরিদর্শনে যাবেন তিনি। তার এই সফরের সার্বিক প্রস্তুতি নিয়ে ব্যস্ত মৎস্য বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এ কারণে তারা অভয়াশ্রমের অভিযানে মনোনিবেশ করতে পারছেন না বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

তবে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান বলেন, প্রতিদিনই অভয়াশ্রমে অভিযান হচ্ছে। প্রথম দুই দিনে সাতজন জেলেকে আটক করা হয়েছে। মঙ্গলবার তৃতীয় দিনেও অভিযান পরিচালিত হয়েছে। তবে অভিযানের সাফল্য জানাতে পারেননি তিনি।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আরও বলেন, মহাপরিচালকের দুই দিনের সফরের প্রস্তুতি চলছে। অভয়াশ্রমে অভিযানও চলছে। একটির জন্য আরেকটি কোনোভাবে ব্যাহত হচ্ছে না বলে দাবি করেন তিনি।

বিডি প্রতিদিন/এমআই


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর