শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ২৩:১৯

নোংরা পানি, ওজনে কম চার হাজার জার ধ্বংস

বিএসটিআই-এর অভিযান

নিজস্ব প্রতিবেদক

Google News

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে নিম্নমানের জারে ড্রিংকিং ওয়াটার বাজারজাত করায় প্রায় ৪ হাজার জার ধ্বংস করা হয়। বিএসটিআইর অনুমোদন গ্রহণ না করে বাজারজাত করায় বিএসটিআইর সার্ভিল্যান্স টিম গতকাল এসব জার ধ্বংস করে। এ ছাড়া পরিমাপের ক্ষেত্রে গজকাঠি ব্যবহার এবং পণ্যের প্যাকেটে ওজন ও মূল্য উল্লেখ না করায় রাজধানীর কয়েকটি দোকানের মালিকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। বিএসটিআই জানিয়েছে, গতকাল রাজধানীর রমনা, ফকিরাপুল, বঙ্গবাজার, মতিঝিল, কাপ্তানবাজার, নবাবপুর, ইংলিশ রোড ও বাবুবাজার ব্রিজসংলগ্ন এবং কেরানীগঞ্জের কদমতলী ও শহীদনগরে ভোররাত থেকে আকস্মিক অভিযান পরিচালনা করে এসব জার ধ্বংস করা হয়। পাশাপাশি বাজারজাতকরণে ব্যবহৃত যন্ত্রপাতিও ধ্বংস করা হয়। বিএসটিআইর লাইসেন্স গ্রহণ না করে অবৈধভাবে মানচিহ্ন ব্যবহার করে ঢেউটিন উৎপাদন ও বিক্রির অপরাধে কেরানীগঞ্জের ‘বিকাশ কাটিং অ্যান্ড করোগেটেড ইন্ডাস্ট্রিজ’-এর বিরুদ্ধে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং  ইনস্টিটিউশন আইন, ২০১৮ অনুযায়ী নিয়মিত মামলা গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে। ওই অভিযানকালে বিভিন্ন হোটেল, দোকানপাট ও উপস্থিত ক্রেতা/ভোক্তাদের সচেতনতার লক্ষ্যে অবৈধভাবে বাজারজাতকৃত জারের ড্রিংকিং ওয়াটার সংরক্ষণ ও বিক্রয় হতে বিরত থাকার পরামর্শ প্রদান করা হয়। ওজন ও পরিমাপে কারচুপির অপরাধে ‘ওজন ও পরিমাপ মানদ- আইন, ২০১৮’ অনুযায়ী গতকাল সাতটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করেছে বিএসটিআই।

রাজধানীর মিরপুরে বিএসটিআইর সার্ভিল্যান্স টিমের মাধ্যমে এ মামলা করা হয়। অভিযুক্ত সাতটি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে পরিমাপের ক্ষেত্রে গজকাঠি ব্যবহার করায় রাজধানীর কাজীপাড়ায় মেসার্স কাসারিকা ফার্নিশিং পর্দার দোকান, মেসার্স ডি গ্যালারি পর্দার কাপড়ের দোকানের বিরুদ্ধে মামলা হয়।

একই এলাকার মেসার্স মোহাম্মদ ডি. ফল ভাণ্ডার, মেসার্স বনফুল অ্যান্ড কোং ও মিরপুর-২-এর বড়বাগ বাজার এলাকার মেসার্স হক বেকারি অ্যান্ড সুইটস পণ্যের প্যাকেটে ওজন, মূল্য ইত্যাদি উল্লেখ না করায় তাদের বিরুদ্ধেও মামলা করা হয়। তা ছাড়া মিরপুর-১০ নম্বর এলাকার মেসার্স জনতা ফুডস স্টোর ও মেসার্স সাহাদাৎ হোে নের ফলের দোকানে ব্যবহৃত ডিজিটাল স্কেলের বিএসটিআইর ভেরিফিকেশন সার্টিফিকেট গ্রহণ না করায় তাদের বিরুদ্ধে একই আইনে মামলা করা হয়।

এই বিভাগের আরও খবর