Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০২:৩৭

সংসদীয় তদন্ত কমিটি দাবি

সংসদে আলোচনা

নিজস্ব প্রতিবেদক

সংসদীয় তদন্ত কমিটি দাবি

ঢাকা-চট্টগ্রাম-দুবাইগামী বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইট ছিনতাই চেষ্টার ঘটনায় সংসদে ৩০০ বিধিতে বিবৃতি দিয়েছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী। এ সময় তিনি জানান, বেসরকারি বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ, পর্যটন মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে একজন অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের তদন্ত টিম গঠন করা হয়েছে। এরপরই সর্বদলীয় সংসদীয় তদন্ত কমিটি গঠনের দাবি জানান বিরোধী দল জাতীয় পার্টির এমপি রুস্তম আলী ফরাজী। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদে গতকালের বৈঠকে ৩০০ বিধিতে বিবৃতি দিয়ে বিমান প্রতিমন্ত্রী মন্ত্রণালয়ের অবস্থান সংসদকে অবহিত করেন। প্রতিমন্ত্রী বলেন, ২৪ ফেব্রুয়ারি বিকাল ৫টা ১৩ মিনিটে ঢাকা-চট্টগ্রাম-দুবাইগামী বাংলাদেশ বিমানের বিজি-১৪৭ বিমানটি ঢাকা বিমানবন্দর ত্যাগ করে চট্টগ্রাম যায় এবং সেখান থেকে যাত্রী নিয়ে দুবাই যাত্রা করে। পূর্ব শিডিউল অনুযায়ী বিমানটি ৫টা ৪২ মিনিটে চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে অবতরণ করে। অবতরণের পূর্বে বিমানে যাত্রীবেশে একজন আকস্মিক ব্যক্তি যাত্রীদের ভয়ভীতি প্রদর্শন এবং বিমান উড়িয়ে দেওয়ার হুমকি ও চিৎকার করতে থাকে। তবে বিমানের কর্তব্যরত ক্যাপ্টেন অত্যন্ত বুদ্ধিমত্তা, পেশাদারিত্ব ও সাহসিকতার সঙ্গে দুষ্কৃতকারীকে কথোপকথনে ব্যস্ত রেখে কালক্ষেপণ করেন। এরই মধ্যে বিমানের ক্রুদের সহায়তায় সব যাত্রীদের নিরাপদে বের করে নিয়ে আসা হয়। তিনি আরও বলেন, ঘটনা চলাকালে বিমান বাহিনীর বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, ফায়ার সার্ভিসসহ সব সংস্থার ত্বরিত ব্যবস্থার ফলে যাত্রী ও ক্রুদের নিরাপদ স্থানে নিতে সক্ষম হয়। সেনাবাহিনীর কমান্ডো ও র‌্যাবের একটি চৌকস দল বিমানবন্দরে অবস্থান করে। কমান্ডো দল বিমানের ভিতরে প্রবেশ করে এবং ঝটিকা আক্রমণ করে দুষ্কৃতকারীকে নিষ্ক্রিয় করে। একপর্যায়ে কমান্ডো বাহিনীর দুর্বার অভিযানে ছিনতাইকারী আহত হয়, পরে মৃত্যুবরণ করে। বিমানটিতে ১৪৮ জন যাত্রী ৭ জন ক্রু সবাই নিরাপদে আছেন এবং বিমানটি অক্ষত রয়েছে।

এরপর পয়েন্ট অব অর্ডারে দাঁড়িয়ে বিরোধী দল জাতীয় পার্টির রুস্তম আলী ফরাজী বলেন, বাংলাদেশ বিমান জাতীয় সম্পদ। কিন্তু এই নিয়ে প্রায়ই দুর্ঘটনাগুলো ঘটছে। কখনো দেখি একটা পাখি ঢুকছে, কখনো দেখি চাকা একটা বন্ধ হয়ে গেছে। গতকাল এই যে ব্যক্তিটি গেলেন, যেখানে চারটি ধাপে চেক করে তারপর ভিতরে ঢুকতে হয়। সারা পৃথিবীতে এই নিয়ম। আমাদের দেশে তারপরেও একটা লোক সেখানে অস্ত্র নিয়ে কী করে গেল?

বাংলাদেশ জাসদের নির্বাহী সভাপতি ও সংসদ সদস্য মইনুদ্দিন খান বাদল বলেন, পত্র-পত্রিকায় দেখলাম ছিনতাইয়ের চেষ্টার সময় আমি প্লেনে ছিলাম বলা হয়েছে। তবে আমি বিমানে নয়, বিমান বন্দরে ছিলাম। চট্টগ্রামে প্রধানমন্ত্রীর অনুষ্ঠান শেষে আমি ঢাকায় আসার জন্য বিমানবন্দরে ছিলাম।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর