শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ১২ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১১ জানুয়ারি, ২০২০ ২৩:২০

চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল শেষ

অপরিকল্পিত অবকাঠামো বিপাকে রোগীরা

রেজা মুজাম্মেল, চট্টগ্রাম

অপরিকল্পিত অবকাঠামো বিপাকে রোগীরা

চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগ সড়কের পাশেই, নিচ তলায়। কিন্তু শিশু, মেডিসিন, গাইনির মতো অত্যন্ত জরুরি বিভাগগুলো পাহাড়ের ওপর। এসব ওয়ার্ডে যানবাহন যাতায়াতের কোনো সুযোগ নেই। ট্রলি কিংবা হুইল চেয়ারে রোগী বহনেরও ব্যবস্থা নেই। মুমূর্ষু কোনো রোগীকে জরুরি বিভাগ থেকে অন্তঃবিভাগে নিতে হলে চরমভাবে বিপাকে পড়তে হয় রোগীর স্বজনদের, পড়তে হয় দুর্ভোগে। এভাবে সেবা গ্রহণের বিভিন্ন ভবন, ওয়ার্ড এবং রোগ নির্ণয় বিভাগগুলো অপরিকল্পিতভাবে বিচ্ছিন্ন-বিক্ষিপ্তভাবে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকায় চট্টগ্রামের সরকারি গুরুত্বপূর্ণ এ হাসপাতালে রোগী সংকট থাকছেই। ২৫০ শয্যার হাসপাতালে ১৫০ থেকে ১৭০ এর চেয়ে বেশি রোগী থাকে না। এ হাসপাতালে সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, হাসপাতালের নিচে প্রবেশ পথেই আছে জরুরি বিভাগ। কিন্তু মেডিসিন, শিশু, গাইনি ওয়ার্ড এবং অপারেশন থিয়েটারের মতো গুরুত্বপূর্ণ বিভাগগুলো পাহাড়ের ওপরে অবস্থিত। সাধারণত একজন রোগী এমন উচ্চতায় পায়ে হেঁটে ওঠার কোনো সুযোগ নেই। জরুরি বিভাগ থেকে রোগীকে হাসপাতালের অন্তঃবিভাগে ভর্তি করাতে হলে তাকে হেঁটেই ওয়ার্ডে যেতে হবে। দেখা মেলে না ট্রলি বা হুইল চেয়ারের। ফলে রোগীদের দুর্ভোগের মুখে পড়তে হয়। অন্যদিকে, এ হাসপাতালের এক্স-রে, ইসিজি ও আল্ট্রাসনোগ্রাফি বিভাগও পাহাড়ের ওপরে, তিনটি রোগ নির্ণয় কেন্দ্র তিন জায়গায়। ফলে রোগীরা সহজে তা খুঁজেও পায় না। তাছাড়া রক্ত পরীক্ষা বিভাগও পৃথক আরেক ভবনে-প্রশাসনিক ব্লকে। ভুক্তভোগী রোগীদের অভিযোগ, একজন মুমূর্ষু রোগীকে জরুরি বিভাগ থেকে ওয়ার্ডে নিয়ে যাওয়ার মতো কোনো ব্যবস্থাই নেই। রোগীকেই পায়ে হেঁটে ওয়ার্ডে যেতে হয়। জরুরি বিভাগ থেকে হুইল চেয়ার দিয়ে রোগীকে নেওয়াটা প্রয়োজন হলেও তা সম্ভব হয় না। বিশেষ করে গাইনি, অপারেশন থিয়েটার ও শিশু রোগীর ক্ষেত্রে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়। হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. অসীম কুমার নাথ বলেন, ‘এ হাসপাতালের বিভিন্ন ভবনের অবকাঠামোগত অবস্থান রোগীবান্ধব নয়। ফলে রোগীদের অনেক কষ্টের সম্মুখীন হতে হয়। বিশেষ করে জরুরি বিভাগ থেকে রোগীদের ওয়ার্ডে নিয়ে যেতে কষ্ট হয়। এ ব্যাপারে আমরা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি। সরকারও বিষয়টি নিয়ে নতুন একটি পরিকল্পনা করেছে বলে আমরা জানি। এটি বাস্তবায়ন হলে এ সমস্যা আর থাকবে না।’

জানা যায়, ১৯০১ সালে ১০ একর জায়গায় ৮০ শয্যার জনবল ও অবকাঠামো নিয়ে প্রতিষ্ঠা হয় চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল। ২০০৩ সালে পূর্বের জনবল ঠিক রেখেই হাসপাতালকে ১৫০ শয্যায় উন্নীত করা হয়। পরে হাসপাতালে ১৫০ শয্যার জনবল দেওয়া হয়। ২০১২ সালের ২৯ জানুয়ারি ১৫০ শয্যার জনবল ঠিক রেখে ২৫০ শয্যায় উন্নীত করা হয়। বর্তমানে হাসপাতালে ৪০ শয্যার মেডিসিন ওয়ার্ড, ১০ শয্যার কার্ডিওলজি, ৫০ শয্যার সার্জারি, ১২ শয্যার অর্থোপেডিক, ৫০ শয্যার শিশু, ২৪ শয্যার নাক কান গলা, ২ শয্যার চক্ষু, ১০ শয্যার কেবিন এবং ১৫ শয্যার পেয়িং বেড আছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর