শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:১১

১৮০ রোগীর রান্না চলছে লাকড়ি চুলায়

জেনারেল হাসপাতালের গ্যাস বিচ্ছিন্ন করল কেজিডিসিএল

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম

চট্টগ্রামের দ্বিতীয় বৃহত্তম সরকারি সেবা প্রতিষ্ঠান জেনারেল হাসপাতাল। প্রতিদিন গড়ে ১৭০ থেকে ১৮০ জন রোগী ভর্তি থাকে এ হাসপাতালে। ভর্তি থাকা রোগীদের অধিকাংশই গরিব, অসহায় ও তৃণমূলের। অথচ মাত্র ছয় লাখ টাকা গ্যাস বিল বকেয়া থাকার কারণে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছে কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড (কেজিডিসিএল)। গত সোমবার   বিকালে তারা গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে  দেয়। ফলে অন্তর্বিভাগে ভর্তি থাকা ১৮০ জন রোগীর জন্য খাবারের ব্যবস্থা করতে হচ্ছে লাকড়ির চুলায়। আকস্মিকভাবে গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করায় রোগীর দুই বেলার খাবার সরবরাহ নিয়ে বিপাকে পড়েছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। 

জানা যায়, ৪৯ মাসের প্রায় ছয় লাখ টাকা গ্যাস বিল বকেয়া আছে। এ বিলের জন্য সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। ২৫০ শয্যার হাসপাতালটিতে রোগীদের  দুই বেলা রান্না করা খাবার সরবরাহ করা হয়। গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার পর থেকে গত সোমবার রাত থেকে লাকড়ির চুলা বানিয়ে রান্না করে রোগীদের খাবার সরবরাহ করা হচ্ছে। হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. অসীম কুমার নাথ বলেন, ‘হাসপাতালে বরাদ্দ আসে বছরে একবার। ফলে মাসের বিলগুলো জমে যায়। প্রায় ছয় লাখ টাকার মতো বকেয়া আছে।

 কেজিডিসিএলকে কিস্তিতে বিল নেওয়ার অনুরোধ করেছিলাম। গত বৃহস্পতিবার তারা ২ লাখ ৭৩ হাজার টাকার একটি অংশবিশেষ বিল দেয়। চলতি সপ্তাহের মধ্যে বিল পরিশোধ করার কথা ছিল। অর্থও বরাদ্দ পেয়েছি। কিন্তু হিসাব বিভাগ থেকে তা ছাড় করতে সময় লাগছিল। এমন অবস্থায় কেজিডিসিএল কোনো কথা না শুনে লাইন কেটে দিল।’ 

কেজিডিসিএলের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক (প্রশাসন) সারওয়ার হোসেন বলেন, নিয়ম মতে দুই মাসের বেশি বকেয়া রাখা যায় না। এখন সেখানে ৪৯ মাসের বিল বকেয়া আছে। নোটিস দিয়ে অনুরোধও করা হয়েছে। বিল না পেয়ে ফিল্ড অফিসাররা কানেকশন অফ করেছেন। তবে হাসপাতাল যেহেতু ইমার্জেন্সি সার্ভিস দিয়ে থাকে, তাই দ্রুত সংযোগ দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে।’


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর