শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ১৫ মার্চ, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৪ মার্চ, ২০২০ ২১:৪৪

তিলোত্তমা রূপে সাজবে খুলনা

সামছুজ্জামান শাহীন, খুলনা

তিলোত্তমা রূপে সাজবে খুলনা

খুলনাকে পরিচ্ছন্ন তিলোত্তমা নগর হিসেবে গড়ে তুলতে নেওয়া হচ্ছে একের পর এক প্রকল্প। সড়ক সংস্কার ও জলাবদ্ধতা নিরসনের পাশাপাশি সর্বশেষ নদীকেন্দ্রিক সৌন্দর্যবর্ধনের দিকে নজর দিয়েছে সিটি করপোরেশন। এরই মধ্যে অবৈধ দখলমুক্ত করে ময়ূর নদীসহ ২২টি খালকে পানি নিষ্কাশনের জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছে। নদীর পাড়ের জমিতে থাকবে শিশুদের জন্য বিনোদন পার্ক। পাশাপাশি রূপসা নদী খনন ও রূপসা ব্রিজ থেকে দৌলতপুর ঘাট পর্যন্ত ১০ কিলোমিটার নদীর পাড় বাঁধাই করে নগরবাসীর নির্মল বিনোদনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ কাজে শেখ সালাহউদ্দিন জুয়েল এমপি, সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক এবং জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন মিলিতভাবে কাজ করছেন। সরকারের বিভিন্ন দফতরও সহযোগিতা করছে । বর্তমানে সড়ক সংস্কার ও জলাবদ্ধতা নিরসনে প্রায় ১৪০০ কোটি টাকার দুটি প্রকল্প চলমান রয়েছে। আড়াই হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে নগরবাসীর সুপেয় পানির ব্যবস্থা করেছে খুলনা ওয়াসা। আধুনিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় রাজবাঁধ ও সলুয়ায় ১০০ কোটি টাকার দুটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে। ৩৩৮ কোটি টাকার আরেকটি প্রকল্প অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে। পরিচ্ছন্ন নগরী গড়ে তুলতে আধুনিক কসাইখানা ও মাটির তলদেশ থেকে স্যুয়ারেজ লাইন করা হচ্ছে। গুরুত্বপূর্ণ মোড়গুলোকে প্রশস্ত ও দৃষ্টিনন্দন করে সাজানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক বলেন, খুলনায় নদী কেন্দ্রিক বিনোদন ব্যবস্থা গড়ে তুলতে নেদারল্যান্ড সরকারকে প্রস্তাবনা দেওয়া হয়েছে। তারা ৩০০ কোটি টাকার প্রকল্পের আওতায় এরই মধ্যে ময়ূর নদী খননসহ জরীপ কাজ শুরু করেছে।

তাদেরকে আলাদাভাবে রূপসা নদী খনন ও রূপসা ব্রিজ থেকে দৌলতপুর পর্যন্ত নদীর পাড় বাঁধাইয়ের প্রস্তাবনা দেওয়া হয়েছে। এটি বাস্তবায়িত হলে বিকাল বেলায় শহরের মানুষ নদীর পাড়ে বেড়াতে যেতে পারবে।  সড়ক সংস্কার কাজে কনসালটেন্ট নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। বিদ্যুতের তার মাটির নিচে দিয়ে নিতে আন্ডারগ্রাউন্ড ক্যাবল স্থাপন করা হচ্ছে।

তবে এ উন্নয়ন কাজে প্রশাসনিক গতিশীলতার অভাব রয়েছে বলে মনে করেন বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির মহাসচিব শেখ আশরাফুজ্জামান। তিনি বলেন, আগামী বর্ষা মৌসুমের আগে সড়ক সংস্কার ও সৌন্দর্যবর্ধনের কাজ শেষ করতে উন্নয়ন কাজে আরও গতিশীল হতে হবে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর