শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ২৫ জুন, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৪ জুন, ২০২১ ২৩:২৫

বসুন্ধরার খাদ্য সহায়তায় দুস্থদের মুখে হাসি

লালমনিরহাট ও কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি

বসুন্ধরার খাদ্য সহায়তায় দুস্থদের মুখে হাসি
কালের কণ্ঠ শুভসংঘের আয়োজনে খাদ্য সহায়তা কর্মসূচির দ্বিতীয় দিনে গতকাল লালমনিরহাটে দুস্থ ও অসহায়দের দেওয়া হয় খাদ্যসামগ্রী -বাংলাদেশ প্রতিদিন
Google News

‘হামরা গরিব মানুষ, কাম কাজও নাই, সব জিনিসের দাম বেশি, এতগুলা জিনিস একবারে কিনবের পাবার নই। অল্প অল্প করি আন্দি খাইম। আল্লাহ বসুন্ধরার মালিকের ভালো করবে। মুই মন থাকি দোয়া করং, আল্লাহ তাক সুখত আকুক। যখনই হামার দুঃখ দুর্দশা তখনই বসুন্ধরা হামার পাশে দাঁড়ায়ে সহায়তা করে, এর আগেও বসুন্ধরা হামাক ত্রাণ দিয়েছে’- এভাবেই কথাগুলো বলছিলেন লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার সাপ্টিবাড়ি ইউনিয়নের সরলখাঁ গ্রামের জহিরন বানু (৫৭)। কালের কণ্ঠ শুভসংঘের আয়োজনে খাদ্য সহায়তা কর্মসূচির দ্বিতীয় দিনে বৃহস্পতিবার লালমনিরহাটে কয়েক শ দুস্থ ও অসহায় মানুষের হাতে তুলে দেওয়া হয় খাদ্যসামগ্রী। এর মধ্যে ছিল ১০ কেজি চাল, দুই কেজি আটা, দুই কেজি ডাল ও এক লিটার সয়াবিন তেল। বৃহস্পতিবার বিকালে জেলার আদিতমারী উপজেলার সাপ্টিবাড়ি ডিগ্রি কলেজে বিতরণ করা হয় এ ত্রাণ।

সেখানে ত্রাণ বিতরণ কর্মসূচির সূচনা করেন আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মনসুর উদ্দিন। উপস্থিত ছিলেন আদিতমারী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম, সাপ্টিবাড়ি ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ সুধান চন্দ্র রায়, আদিতমারী প্রেস ক্লাবের সভাপতি ফরহাদ সুমন প্রমুখ। এ সময় ইউএনও মনসুর উদ্দিন বলেন, ভয়াবহ এই করোনার দুঃসময়ে মানুষ যেখানে কর্মহীন, অভাব অনটনে দিন কাটাচ্ছে সেখানে বসুন্ধরা গ্রুপের এই মানবিক উদ্যোগ প্রশংসনীয়। ‘বসুন্ধরার ত্রাণ পায়া খুব খুশি হইচং বাবা’ : ‘মেলাদিন থাকি করোনার মধ্যত কোন কামও নাই ঘরত কোন খাবারও নাই। খায়া না খায়া দিন হামার যাইচ্ছে। আইজ বসুন্ধরার ত্রাণ পায়া মুই খুব খুশি হইচং বাবা।’ কথাগুলো বলেন কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারী উপজেলার জয়মনিরহাট এলাকার হতদরিদ্র ফাতেমা বেওয়া। ঝিয়ের কাজ করে দিন চলে তার। এখন বাড়িতে গিয়ে কাজ করা বন্ধ রয়েছে। চলছিল খাদ্য সংকট। ঠিক এই মুহূর্তে পাশে দাঁড়িয়েছে বসুন্ধরা গ্রুপের প্রতিষ্ঠান কালের কন্ঠের শুভ সংঘ।

গত বুধবার ও গতকাল এ দুইদিনে জেলার ৯ উপজেলায় তিন হাজার কর্মহীন ও অসহায় পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেওয়া হয়। ত্রাণ বিতরণকালে গত দুইদিনে কুড়িগ্রাম জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. জাফর আলী, কুড়িগ্রাম-৩ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক এমএ মতিন, কালের কন্ঠের শুভসংঘের পরিচালক জাকারিয়া জামান, সংশ্লিষ্ট উপজেলার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন। গতকাল জেলার ভুরুঙ্গামারী উপজেলার বড়ভিটা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান খয়বর আলী বলেন, কঠিন এক মুহূর্তে এই সহায়তা হতদরিদ্র পরিবারের মুখে হাসি ফুটিয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর