শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২৬ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৫ আগস্ট, ২০২১ ২৩:৩৯

রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় বিএনপির তিন নেতার জামিন মঞ্জুর

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী

Google News

রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় রাজশাহীর তিন বিএনপি নেতাকে হাই কোর্ট জামিন দিয়েছে। বুধবার দুপুরে বিচারপতি মো. হাবিবুল গণি ও বিচারপতি রিয়াজ উদ্দিন খানের দ্বৈত বেঞ্চ আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তাদের জামিন মঞ্জুর করে। ভার্চুয়ালি জামিন শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। যাঁদের জামিন তারা হলেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও রাজশাহী সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিনু, রাজশাহী মহানগর বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সিটি মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল ও নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলন। এ মামলায় বিএনপির রাজশাহী বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুও আসামি। তবে তিনি জামিন নিতে হাই কোর্টে যাননি। জামিন পাওয়া তিন নেতার পক্ষের আইনজীবী ছিলেন মাহমুদুল হাসান স্বপন।

তার সঙ্গে জ্যেষ্ঠ আইনজীবী হিসেবে ছিলেন সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক সভাপতি ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা এ জে মোহাম্মদ আলী। বিএনপি নেতা মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

রাষ্ট্রদ্রোহের এই মামলাটি করেছিল রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ। গত ২ মার্চ রাজশাহীতে অনুষ্ঠিত বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশে দেওয়া বক্তব্যকে কেন্দ্র করে মামলাটি হয়। সমাবেশে বিএনপি নেতারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার হুমকি ও সরকার উৎখাতের ঘোষণা দিয়েছেন বলে অভিযোগ করে নগর আওয়ামী লীগ।

বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে মিজানুর রহমান মিনু বলেন, ‘আজ রাত কাল সকাল না-ও হতে পারে। পঁচাত্তর মনে নাই?’ এই বক্তব্য নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়। মহানগর আওয়ামী লীগ ক্ষমা চাইতে তাকে ৭২ ঘণ্টা সময় বেঁধে দেয়। তা না হলে মামলার ঘোষণা দেওয়া হয়। ৭২ ঘণ্টা পর মিনু একটি বিবৃতি দিয়ে নিজের ওই বক্তব্যের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন। তবে মহানগর আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার জন্য আবেদন করে। জেলা প্রশাসক আবেদনটি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠান।

মন্ত্রণালয় অনুমতি দেওয়ার পর নগর আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক মুসাব্বিরুল ইসলাম ১৬ মার্চ রাজশাহী মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-৪-এ (আমলি আদালত বোয়ালিয়া) মামলাটি দায়ের করেন। এরপর আদালত এ চার নেতার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে। তবে প্রায় পাঁচ মাসেও পুলিশ তাদের গ্রেফতার করতে পারেনি। এ সময়ের মধ্যে বিএনপি নেতারা জামিনও নেননি। অবশেষে তিনজন হাই কোর্টে গিয়ে জামিন নিলেন।

এই বিভাগের আরও খবর