৩ জানুয়ারি, ২০২২ ১০:২৫

করোনার ভয়ঙ্কর থাবা ইউরোপে, আক্রান্ত ছাড়াল ১০ কোটি

অনলাইন ডেস্ক

করোনার ভয়ঙ্কর থাবা ইউরোপে, আক্রান্ত ছাড়াল ১০ কোটি

ফাইল ছবি

বিশ্বজুড়ে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের দাপট চলছেই। সারাবিশ্বে এই ভাইরাসের আক্রান্তের সংখ্যা ২৯ কোটি ছাড়িয়ে গেছে। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় (রবিবার) শনাক্ত হয়েছে ৮ লাখ ২৩ হাজার ৬১২ জন। এছাড়া এদিন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে নতুন মৃত্যু রেকর্ড হয়েছে দুই হাজার ৯৫২ জনের।

স্বাস্থ্যবিদদের আশঙ্কা, প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের কারণেই জ্যামিতিক হারে বাড়ছে সংক্রমণ। আর ওমিক্রনের আঘাতে সংক্রমণের কেন্দ্র হয়ে উঠেছে ইউরোপ। যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স ও ইতালির মতো দেশের গত কয়েক দিনের শনাক্তের হার সে ইঙ্গিতই দিচ্ছে।

২০১৯ সালের শেষ দিকে চীনের উহানে প্রথম করোনা শনাক্ত হয়। মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত বিশ্বের মোট সংক্রমণের এক-তৃতীয়াংশই এই অঞ্চলে শনাক্ত হয়েছে। গতকাল রবিবার পর্যন্ত ইউরোপ মহাদেশজুড়ে করোনা সংক্রমণ ১০ কোটি ছাড়িয়েছে। এর মধ্যে ফ্রান্সেই শনাক্ত হয়েছে এক কোটির বেশি। বিশ্বব্যাপী করোনার পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটারসের তথ্য মতে, ইউরোপে শুধু গত এক সপ্তাহে প্রায় ৫০ লাখেরও বেশি করোনা শনাক্ত হয়েছে। 

এএফপি জানায়, আটলান্টিক উপকূল থেকে আজারবাইজান ও রাশিয়া পর্যন্ত ইউরোপের ৫২টি দেশে গত দুই বছরে ১০ কোটি ৭৪ হাজার ৭৫৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। আরও বলা হয়েছে, ইউরোপের ৫২টি দেশের মধ্যে ১৭টিতে গত এক সপ্তাহে করোনা শনাক্তের এই সংখ্যা আগের যেকোনো সময়ে এক সপ্তাহে আক্রান্তের রেকর্ড ছাড়িয়েছে। বিশ্বে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছে ফ্রান্সে। রোববার পর্যন্ত সংক্রমণ এক কোটি পার হয়েছে। এর মধ্যে গত সপ্তাহে ১০ লাখের বেশি নতুন রোগী শনাক্তের রেকর্ড করেছে।

বিশ্বে প্রতি এক লাখ বাসিন্দার মধ্যে সংক্রমণের অনুপাত সবচেয়ে ছিল ইউরোপে। এর মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অবস্থানে ডেনমার্ক। দেশটিতে প্রতি এক লাখে দুই হাজার ৪৫ জন মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। অপর দিকে সাইপ্রাসে এই সংখ্যা ১৯৬৯ এবং আয়ারল্যান্ডে ১৯৬৪। তবে সংক্রমণ বাড়লেও কমছে করোনাজনিত মৃত্যু। গত সপ্তাহে ইউরোপে প্রতিদিন গড়ে তিন হাজার ৪১৩ জন মারা গেছে। এই সংখ্যা আগের সপ্তাহের তুলনায় ৭ শতাংশ কমেছে। সংক্রমণের সবচেয়ে খারাপ সময়ে গত বছরের জানুয়ারিতে গড়ে প্রতিদিন পাঁচ হাজার ৭৩৫ জন মারা গিয়েছিল।


বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ

এই রকম আরও টপিক

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর