শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ৬ জুলাই, ২০১৫ ০০:০০ টা
আপলোড : ৬ জুলাই, ২০১৫ ০০:০০

লাশ নিয়ে বিক্ষোভ অবরোধ ভাঙচুর

চিকিৎসকের অবহেলায় দুই রোগীর মৃত্যু

চিকিৎসকের অবহেলায় দুই রোগীর মৃত্যু
হাতীবান্ধায় লাশ নিয়ে উত্তেজিত মানুষের মিছিল -বাংলাদেশ প্রতিদিন

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসকের অবহেলায় গতকাল আলমগীর হোসেন (৩১) ও জাহিদ (৯) নামে দুজনের মুত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রতিবাদে ওই হাসপাতালে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করেন রোগীর স্বজনরা। আহত হন এক সহকারী চিকিৎসকসহ চারজন। উত্তেজিত জনতা লাশ নিয়ে বিক্ষোভ ও লালমনিরহাট-বুড়িমারি মহাসড়ক প্রায় তিন ঘণ্টা অবরোধ করে রাখেন। জেলা প্রশাসক ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা অভিযুক্ত ডাক্তারের শাস্তির আশ্বাস দিলে অবরোধ তুলে নেওয়া হয়।

জানা যায়, উপজেলার পশ্চিম বেজগ্রামের মুদি ব্যবসায়ী আলমগীর রবিবার বেলা ১১টার দিকে বুকে ব্যথা নিয়ে হাতীবান্ধা হাসপতালের জরুরি বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসেন। এ সময় সেখানে চিকিৎসক না থাকায় কর্তব্যরত ওয়ার্ডবয় তাকে পাশের তিস্তা ক্লিনিকে ইসিজি করতে বলেন। হাসপাতালের পরিবর্তে বেসরকারি ক্লিনিকে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়ায় রোগীর স্বজনের সঙ্গে তার বাগবিতণ্ড হয়। রোগীর অবস্থা বেগতিক দেখে জরুরি বিভাগের নার্স ডাক্তার ডাকার ব্যবস্থা করেন। আবাসিক কোয়াটার থেকে ডাক্তার আসার আগেই ১টার দিকে মারা যান আলমগীর।

এ ঘটনার কিছুক্ষণ পর সিন্দুনা গ্রামের আরমান আলীর স্কুলপড়ুয়া ছেলে জাহিদকে (৯) অসুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসেন স্বজনরা। বিলম্বে ভর্তি করানোর কারণে সেও মারা যায়। চিকিৎসকের অবহেলায় হাসপাতালে দুই রোগীর মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে উত্তেজিত হয়ে উঠেন জনতা। মুহূর্তে শত শত লোক জড়ো হয়ে হাসপাতালের জানালাসহ বেশকিছু আসবাবপত্র ভাঙচুর করেন। পরে তারা মেডিকেল মোড় এলাকায় তিস্তা প্যাথলিজি ও একতা ক্লিনিকে ভাঙচুর চালান। এসব ঘটনায় আহত হন হাসপাতালের কমিউনিটি প্রোগ্রামের সহকারী চিকিৎসক ধীমান রায়, ফার্মাসিস্ট আতাউর রহমান, ল্যাব এসিস্টান্ট জাহাঙ্গীর ও যাদব। একপর্যায়ে তারা লাশ নিয়ে বিক্ষোভ ও মহাসড়ক অবরোধ করে রাখেন। হাতিবান্ধা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. রমজান আলী জানান, আলমগীরকে রংপুরে রেফার্ড করা হয়েছিল। স্বজনদের বিলম্বের কারণে তিনি মারা গেছেন। উত্তেজিত জনতা কিছু না বুঝেই হাসপাতালে ভাঙচুর করেন। লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান জানান, অভিযুক্ত ডাক্তারকে স্টান্ডরিলিজ ও তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির রিপোর্ট পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর
Bangladesh Pratidin

Bangladesh Pratidin Works on any devices

সম্পাদক : নঈম নিজাম,

নির্বাহী সম্পাদক : পীর হাবিবুর রহমান । ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের পক্ষে ময়নাল হোসেন চৌধুরী কর্তৃক প্লট নং-৩৭১/এ, ব্লক-ডি, বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা, বারিধারা, ঢাকা থেকে প্রকাশিত এবং প্লট নং-সি/৫২, ব্লক-কে, বসুন্ধরা, খিলক্ষেত, বাড্ডা, ঢাকা-১২২৯ থেকে মুদ্রিত। ফোন : পিএবিএক্স-০৯৬১২১২০০০০, ৮৪৩২৩৬১-৩, ফ্যাক্স : বার্তা-৮৪৩২৩৬৪, ফ্যাক্স : বিজ্ঞাপন-৮৪৩২৩৬৫। ই-মেইল : [email protected] , [email protected]

Copyright © 2015-2020 bd-pratidin.com