শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২৭ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৬ জানুয়ারি, ২০২০ ২৩:৩৫

সোনামসজিদ বন্দরে ট্রাকে চাঁদাবাজি

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি

সোনামসজিদ বন্দরে ট্রাকে চাঁদাবাজি

চাঁপাইনবাবগঞ্জের সোনামসজিদ স্থলবন্দরে ভারতীয় প্রতি ট্রাক থেকে দুই হাজার টাকা চাঁদা আদায়ের অভিযোগ করেছেন চালকরা। এ নিয়ে গত বছরের ১৬ সেপ্টেম্বর ভারতের মহদিপুর সীমান্ত ট্রাক ওনারস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন লিখিত অভিযোগ করলেও এর সুরাহা হয়নি। জানা যায়, ভারতের মহদিপুর স্থলবন্দর থেকে পণ্যভর্তি ট্রাক সোনামসজিদ বন্দরের ১ নম্বর গেটের কাছে পৌঁছামাত্র কিছু লোক সিরিয়াল দেওয়ার নামে প্রথমেই ট্রাকপ্রতি ১০-১২ টাকা নেন। পানামা ১ নম্বর গেটে প্রবেশের পর দ্বিতীয় দফায় গোল ঘরে ৩৮০ টাকা নিয়ে থাকে। এরপর পানামা প্রবেশ ফি ১৩০ টাকা। এছাড়া পানামার ভেতরে পণ্য আনলোডের জন্য শ্রমিকদের ১৩০ টাকা বখশিশসহ ৫৫০ টাকা দিতে হয়। আর আমদানিকারক প্রতিনিধি ও সিঅ্যান্ডএফ প্রতিনিধিকে দিতে হয় ৭৫০ টাকা করে। এই টাকা না দিলে তারা পণ্যের গুণগত মান খারাপ, ওজনে কম লিখে দেয়। এছাড়া পানামা ও বাইরের ব্যক্তিগত ইয়ার্ডে পণ্য খালাসের পর ভারতীয় খালি ট্রাক থেকে বিভিন্ন গেটে বখশিশের নামে নেওয়া হয় চাঁদা। সোনামসজিদ স্থলবন্দর আমদানি-রফতানিকারক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক তৌফিকুর রহমান বাবু ও সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ জানান, বখশিশের নামে চাঁদাবাজি পানামা ইয়ার্ডের ভেতরে হয়ে থাকে। পানামা কর্তৃপক্ষকে চাঁদাবাজি বন্ধের জন্য সুপারিশ করা হয়েছে। পানামা সোনামসজিদ পোর্ট লিংক লিমিটেডের জেনারেল ম্যানেজার বেলাল হোসেন ও ডেপুটি ম্যানেজার মাইনুল ইসলাম জানান, পানামার ভেতরে বখশিশের নামে কিছু কিছু চাঁদাবাজি হয়। কিন্তু পানামার কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী এতে জড়িত নন।

বেনাপোলে আমদানি-রফতানি বন্ধ : বেনাপোল প্রতিনিধি জানান, ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবস উপলক্ষে বেনাপোলের সঙ্গে ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে আমদানি-রফতানি বাণিজ্য গতকাল বন্ধ ছিল। বেনাপোল চেকপোস্ট কাস্টমস কার্গো শাখার রাজস্ব কর্মকর্তা নাছিদুল হক জানান, ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবস উপলক্ষে সরকারি ছুটি থাকায় আমদানি-রফতানি বাণিজ্য বন্ধ রয়েছে। সোমবার (আজ) থেকে দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু হবে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর