শিরোনাম
বুধবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ টা

হারিয়ে যাচ্ছে হাজার বছরের ঐতিহ্য গরুর গাড়ি

নীলফামারী প্রতিনিধি

হারিয়ে যাচ্ছে হাজার বছরের ঐতিহ্য গরুর গাড়ি

কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে বাঙালির হাজার বছরের সংস্কৃতির ঐতিহ্যবাহী গরুর গাড়ি। এখন আর দেখা যায় না গরুর গাড়ি তৈরির কারিগর। একসময় গ্রামবাংলার ঐতিহ্যবাহী বাহন ছিল গরুর গাড়ি। বর্তমানে মাঝে মধ্যে প্রত্যন্ত অঞ্চলে দু-একটি গরুর গাড়ি চোখে পড়লেও শহরাঞ্চলে একেবারেই দেখা মেলে না। কিশোরগঞ্জ উপজেলার উত্তর দুরাকুটি পাগলাটারী গ্রামে গরুর গাড়ি দেখা গেছে। ওই গ্রামের তছলি মামুদ বলেন, প্রাচীন ঐতিহ্য ধরে রাখার চেষ্টা করছি। গ্রামবাংলার হাজার বছরের ইতিহাসের সঙ্গে জড়িয়ে আছে গরুর গাড়ি। চিরায়ত বাংলার রূপের সন্ধান করতে গেলে প্রথমেই মনে পড়ে গরুর গাড়ির কথা। উত্তর দুরাকুটি পশ্চিমপাড়ার প্রবীণ গাড়িয়াল জরিয়াল উদ্দীন বলেন, মানুষ তার নিজস্ব ঐতিহ্য হারিয়ে ফেলছে। আগে আমাদের এলাকায় গরুর গাড়ির ভূমিকা ছিল অপরিসীম। আজ থেকে ২৫-৩০ বছর আগে প্রায় প্রতিটি পরিবারেই গরুর গাড়ি ছিল, যা জীবিকার প্রধান উৎস ছিল। দুই চাকাবিশিষ্ট গাড়ি গরু বা বলদ টানে। এ যানে সাধারণত একটি অক্ষের সঙ্গে চাকা দুটি যুক্ত থাকে। গাড়ির সামনের দিকে একটি জোয়ালের সঙ্গে দুটি গরু মিলে গাড়ি টেনে নিয়ে চলে। চালক বসেন সামনের দিকে। পেছনে যাত্রী বসার স্থান। বিভিন্ন মালপত্র বহন করা হয় গাড়ির পেছনের দিকে। নীলফামারী জেলা শিল্পকলা একাডেমির কালচারাল অফিসার কে এম আরিফুজ্জামান বলেন, নবান্ন বা নতুন বছর ঘিরে আয়োজন করা হতো গরুর গাড়ির দৌড় প্রতিযোগিতা। হাজার হাজার মানুষ দেখত সে প্রতিযোগিতা।

 এর কিছুই নেই এখন। গ্রামবাংলার দু-একজন বড় গৃহস্থ প্রাচীন ঐতিহ্যটি ধরে রাখার চেষ্টা করছে শখের বসে।

সর্বশেষ খবর