শিরোনাম
প্রকাশ : ২৬ অক্টোবর, ২০২০ ১৬:৪৩

কুষ্টিয়ায় শেখ রাসেল সেতু রক্ষা বাঁধের ধস বাড়ছে, মেরামতের উদ্যোগ নেই

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

কুষ্টিয়ায় শেখ রাসেল সেতু রক্ষা বাঁধের ধস বাড়ছে, মেরামতের উদ্যোগ নেই
এত অল্প সময়ের মধ্যে বাঁধে ধস দেখা দেওয়ায় কাজের গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন স্থানীয়রা

কুষ্টিয়ায় গড়াই নদীর ওপর নির্মিত শেখ রাসেল তথা কুষ্টিয়া-হরিপুর সংযোগ সেতু রক্ষা বাঁধের ধস ঠেকাতে ১৬ দিনেও উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। গত ১০ অক্টোবর দুপুরে সেতুর পূর্বপাশের হরিপুর প্রান্তে এ বাধেঁর প্রায় ৫০ মিটার অংশ হঠাৎ নদীগর্ভে চলে যায়। নদীর পানি কমার সঙ্গে সঙ্গে এ ধস বেড়েই চলেছে। এতে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে স্থানীয় বাসিন্দাদের মাঝে।

মাত্র তিন বছর আগে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতর (এলজিইডি) বিপুল অর্থ ব্যয়ে এই সেতু ও নদী শাসন বাঁধ নির্মাণ করে। এত অল্প সময়ের মধ্যে বাঁধে ধস দেখা দেওয়ায় কাজের গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন স্থানীয়রা। 

ভাঙা বাঁধের পাশেই রয়েছে একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও বেশকিছু ঘর-বাড়ি। বাঁধের পাশে মুসলিমা খাতুনের বাড়ি। কথা হলে এ নারী বলেন, বাঁধে ধস নামায় তারা চরম আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন। বাঁধ রক্ষায় দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে তাদের বাড়ি-ঘর নদীতে বিলীন হয়ে যেতে পারে। 

স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুস সাত্তার বলেন, গত বছরও এই বাঁধের কিছু অংশ ধসে যায়। কাজের মান ভালো না হওয়ায় এমন ঘটছে বলে তিনি অভিযোগ করেন।
 
কুষ্টিয়া এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী জাহিদুর রগমান মন্ডল সাংবাদিকদের জানান, ইতোমধ্যে একটি প্রদিবেদন কেন্দ্রীয় দফতরে পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া এ ঘটনায় ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। তবে এখনও পর্যন্ত তদন্ত কমিটির রিপোর্ট হাতে পাওয়া যায়নি। এ ব্যাপারে ঢাকা থেকে একটি টিম আসারও কথা রয়েছে। অচিরেই এ বাঁধের মেরামতের কাজ শুরু হবে বলে তিনি জানান।

প্রায় ১০০ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০১৭ সালে উদ্বোধন করা হয় কুষ্টিয়া শহর সংলগ্ন হরিপুরবাসীর স্বপ্নের এই সেতু। এ সেতুর দুই প্রান্তে নদী শাসনে ব্যয় হয় প্রায় সাড়ে ৮ কোটি টাকা। এর মধ্যে হরিপুর অংশে প্রায় সাড়ে ৩০০ মিটার ও কুষ্টিয়া শহর অংশে ৫০ মিটার। 

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ

 

 


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর