শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ১৬ জুন, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৫ জুন, ২০১৯ ২৩:২৪

জাতীয় বাজেট ২০১৯-২০, কৃষি খাতে বরাদ্দ ও প্রাপ্তি

শাইখ সিরাজ

জাতীয় বাজেট ২০১৯-২০, কৃষি খাতে বরাদ্দ ও প্রাপ্তি

বৃহস্পতিবার ঘোষিত হয়েছে ২০১৯-২০ অর্থবছরের জাতীয় বাজেট। বর্তমান সরকারের টানা তৃতীয় মেয়াদের প্রথম ঘোষিত বাজেটের আকার স্মরণকালের সবচেয়ে বড় অর্থাৎ ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার। অর্থমন্ত্রীর পাশাপাশি বাজেট বক্তৃতার গুরুত্বপূর্ণ ও বড় অংশটি পাঠ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ ক্ষেত্রে জাতীয় বাজেটে বরাদ্দ ও সরকারের নীতি-পরিকল্পনার গুরুত্বপূর্ণ দিকগুলো প্রধানমন্ত্রীর মুখেই শুনতে পেয়েছেন দেশবাসী। এবার জাতীয় বাজেটে কৃষি খাতে বরাদ্দ কিছুটা বাড়লেও বাজেটের আকার হিসাবে হার কিছুটা কমেছে। কৃষি খাতে এবারের বরাদ্দ ১৪ হাজার ৫৩ কোটি টাকা, যা মোট বাজেটের ২ দশমিক ৬৯ ভাগ।

চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বাজেটের আকার ছিল ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার। এর মধ্যে কৃষি খাতে বরাদ্দ ছিল ১২ হাজার ৭৯২ কোটি টাকা। বরাদ্দের হার ছিল ২ দশমিক ৮৯ ভাগ। অর্থাৎ চলতি অর্থবছরের তুলনায় বরাদ্দ কমেছে দশমিক ২ ভাগ। খাতভিত্তিক বাজেট বরাদ্দের হিসাবে গত পাঁচ বছরের মধ্যে এবারই কৃষি খাতে বরাদ্দের হার সবচেয়ে কম। তবে কৃষি ও পল্লী উন্নয়ন খাত মিলিয়ে নতুন অর্থবছরের জন্য বরাদ্দ ধরা হয়েছে ৬৬ হাজার ২৩৪ কোটি টাকা; যা গত অর্থবছরের তুলনায় বেশি। চলতি অর্থবছরে এ খাতে বরাদ্দ ছিল ৫৯ হাজার ৬৭৭ কোটি টাকা। সে হিসাবে এবার বেড়েছে ৬ হাজার ৫৫৭ কোটি টাকা। এবার জাতীয় বাজেট সামনে রেখে সারা দেশের কৃষকের দাবি ও প্রত্যাশার সমীকরণ হিসেবে আমাদের ‘কৃষি বাজেট কৃষকের বাজেট’ কার্যক্রম থেকে সামনে আনার চেষ্টা করেছিলাম নদী ভাঙনকবলিত এলাকার কৃষকের ভাগ্যোন্নয়নের জন্য বিশেষ বরাদ্দের প্রসঙ্গ। শরীয়তপুরের নড়িয়ায় অনুষ্ঠিত কৃষি বাজেট কৃষকের বাজেট অনুষ্ঠানে সাড়ে ৩ হাজার কৃষকের শতকরা ৯০ ভাগের দাবি ছিল নদী ভাঙন রোধের। অর্থমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তরকৃত সুপারিশমালায় কৃষকের এ দাবি ছিল অগ্রভাগে। প্রধানমন্ত্রী বাজেট বিবরণী পাঠকালে এ খাতে বিশেষ বরাদ্দের কথা তুলে ধরেন। নদী ভাঙন এলাকায় ১০০ কোটি টাকা বিশেষ বরাদ্দ কৃষকের সে দাবিরই প্রতিফলন। এবারের বাজেট বক্তৃতায় উল্লেখ করা হয়েছে পাইলট প্রকল্পের মাধ্যমে শস্যবীমা কার্যকরের বিষয়টি। এর আগেও কয়েকটি এলাকায় শস্যবীমা নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলেছে। শস্যবীমা নিয়ে আমি কয়েক বছর ধরেই বলে আসছি। বিশেষ করে জলবায়ু পরিবর্তনের এই সময়ে কৃষিতে ঝুঁকির পরিমাণ বাড়ছে। আমাদের কৃষকও উচ্চমূল্যের ফল-ফসল আবাদে আগ্রহী হয়ে উঠছে। এরই ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে শস্যবীমা প্রয়োজন। এতে কৃষিতে বিনিয়োগ যেমন বাড়বে, বাড়বে উদ্যোক্তার সংখ্যাও। ‘হৃদয়ে মাটি ও মানুষ’-এর উদ্যোগে এবার ১৪ বারের মতো তৃণমূল পর্যায়ে বাজেট সংলাপ কৃষি বাজেট কৃষকের বাজেটের মাধ্যমে প্রাপ্ত তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে অর্থমন্ত্রীর কাছে কৃষকের দাবি ও চাহিদার আলোকে ৫০ দফা সুপারিশমালা প্রদান করা হয়। প্রতিবারের মতোই এবারও এই সুপারিশমালার কিছু প্রতিফলন রয়েছে। এবারের জাতীয় বাজেটে মৎস্য, পোলট্রি ও দুগ্ধ শিল্পের জন্য খাদ্যসহ নানাবিধ সামগ্রী আমদানিতে বিগত সময়ের প্রদত্ত রেয়াতি সুবিধা অব্যাহত রেখে নতুন উপকরণ ও যন্ত্রপাতি আমদানিতে রেয়াতি সুবিধা প্রদানের সুপারিশ রয়েছে। উপকরণগুলো আমদানিতে ৫ থেকে ১০ শতাংশ শুল্কারোপ করা ছিল। নতুন রেয়াতি সুবিধার ফলে গোখাদ্য, মাছের খাবার ও হাঁস-মুরগির খাদ্যের দাম কমবে।

কৃষিশ্রমিকের অভাব বর্তমান কৃষির বড় একটি সংকট। দীর্ঘদিন ধরে শ্রমিক সংকটের কারণে কৃষক সঠিক সময়ে ধান কাটতে পারে না। এবার সংকটটি প্রকট হয়ে ওঠায় ধানের উৎপাদন ব্যয় অনেক বেড়ে যায়। এ সমস্যা থেকে পরিত্রাণের জন্য যান্ত্রিক কৃষির কোনো বিকল্প নেই। এবারের বাজেটে কৃষিকাজে ব্যবহৃত হার্ভেস্টিং মেশিনারি আমদানির ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট এইচএস কোড সৃষ্টি করে শুল্ক হ্রাসের প্রস্তাব করা হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে ধান কাটা যন্ত্রের দাম কমবে। উল্লেখ্য, সব কৃষিযন্ত্র কেনার ওপর হাওরাঞ্চলের কৃষকের জন্য ৭০ শতাংশ ভর্তুকি আগে থেকেই ছিল। অন্য এলাকার জন্য ছিল ৫০ শতাংশ। কিন্তু অভিযোগ রয়েছে, কৃষিযন্ত্রের ভর্তুকি সুবিধা সাধারণ কৃষক পান না। ঘোষিত বাজেটে কৃষি ও এর উপখাতে আরও কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশনা পাওয়া যায়। যেমন- গুঁড়া দুধ আমদানির ক্ষেত্রে শুল্ককর বাড়ানো হয়েছে, এতে সাধারণ খামারি পর্যায়ে তরল দুধের দাম বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। পরিশোধিত ও অপরিশোধিত চিনির শুল্ককর বাড়ানো হয়েছে, এতে দেশীয় চিনির দাম বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এতে আখ চাষিরা উপকৃত হবেন। প্রাকৃতিক মধুর আমদানি শুল্ক ১০ থেকে বাড়িয়ে ১৫ শতাংশ করা হয়েছে। এতে দেশে উৎপাদিত মধুর দাম বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সানফ্লাওয়ার ও সরিষার তেল আমদানিতে মূসক বাড়ানো হয়েছে, এতে সরিষা চাষিরা লাভবান হবেন।

জাতীয় বাজেটে এবার অনেক বিষয় গুরুত্ব পেলেও কৃষকের উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্যমূল্য প্রাপ্তির প্রশ্নে নতুন কোনো উদ্ভাবনী উদ্যোগ ও দরিদ্র কৃষক তথা গ্রামীণ জনগোষ্ঠীকে নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্যে আনার জন্য কোনো সুদূরপ্রসারী উদ্যোগ আসেনি। কৃষককে একটি সুপরিকল্পিত বাজার-ব্যবস্থায় আনা না গেলে তারা বার বার ন্যায্যমূল্য পাওয়া থেকে বঞ্চিত হবে। এ বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনায় আনতে হবে।

এবার আসা যাক বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি এডিপির হিসাবে। ২০১৯-২০ অর্থবছরের জন্য ২ লাখ ২ হাজার ৭২১ কোটি টাকার বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) খসড়া চূড়ান্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনে কৃষি খাতে ৭ হাজার ৬১৫ কোটি ৯৩ লাখ টাকা বা ৩ দশমিক ৭৬ শতাংশ বরাদ্দ ধরা হয়েছে। গ্রামীণ অর্থনীতিতে গতিশীলতা আনা ও কর্মসংস্থান বাড়াতে পল্লী উন্নয়ন ও পল্লী প্রতিষ্ঠান খাতে ১৫ হাজার ১৫৭ কোটি ৪০ লাখ টাকা বা ৭ দশমিক ৪৮ শতাংশ বরাদ্দ ধরা হয়েছে। নদী ভাঙন রোধ ও নদীর ব্যবস্থাপনার জন্য পানিসম্পদ খাতে ৫ হাজার ৬৫২ কোটি ৯০ লাখ টাকা বা ২ দশমিক ৭৯ শতাংশ বরাদ্দ ধরা হচ্ছে এবং মানবসম্পদ উন্নয়নসহ দক্ষতা বৃদ্ধিতে গতিশীলতা আনয়নের জন্য জনপ্রশাসন খাতে ৫ হাজার ২৩ কোটি ৮৮ লাখ টাকা বা ২ দশমিক ৪৮ শতাংশ বরাদ্দ প্রস্তাব করা হচ্ছে। জাতীয় বাজেটের সঙ্গে দেশের সাধারণ মানুষের জীবন-জীবিকা তথা অর্থনৈতিক স্বপ্ন ও আকাক্সক্ষার সম্পর্ক জড়িত। রাষ্ট্রীয় নীতি নির্ধারণের সঙ্গেই আবর্তিত হয় সাধারণ মানুষের সুখ-দুঃখ। এই হিসাবে দিন যত যাচ্ছে, সাধারণ মানুষের কাছে জাতীয় বাজেটের গুরুত্ব বাড়ছে। তারা বাজেটের গভীর তত্ত্ব ও বাস্তবায়ন কৌশলের গভীর জায়গাগুলো সম্পর্কে তেমন ধারণা রাখেন না। তবে তারা আশা করেন, কৃষির মতো গুরুত্বপূর্ণ খাত সবচেয়ে অগ্রাধিকার পাক। এমনিতেই অধিকাংশ মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সঙ্গে কৃষির সম্পর্কটি দিনের পর দিন জোরদার হচ্ছে। তথ্যপ্রযুক্তি থেকে শুরু করে বিজ্ঞানমুখী উন্নয়ন, সড়ক অবকাঠামো, বাণিজ্যনীতি সবকিছুর সঙ্গেই কৃষি ও কৃষকের ভাগ্য জড়িত। সে কারণে বাজেট বাস্তবায়নের কৌশলের ওপর নির্ভর করছে কৃষি ও গ্রামীণ অর্থনৈতিক উন্নয়নের দিকগুলো। এ বিষয়গুলোয় সরকারের সুগভীর বিবেচনা থাকবে বলে আশা রাখি।

মিডিয়া ব্যক্তিত্ব।

[email protected]


আপনার মন্তব্য