শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২৩:১৫

সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্য

হুমকির কারণগুলো দূর করুন

সুন্দরবনকে প্রায় দুই যুগ আগে বিশ্ব-ঐতিহ্যের অংশ হিসেবে ঘোষণা করেছে জাতিসংঘ। বিশ্বের বৃহত্তম বাদাবনের এ স্বীকৃতি বাংলাদেশের জন্য অবশ্যই গর্বের। কিন্তু এ গর্বকে লালন করার ক্ষেত্রে আমরা কতটা যত্নবান সে বিষয়টিই প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে উঠেছে। সুন্দরবন শুধু বিশ্বের সেরা বাদাবন নয়, এ বনের রাজা রয়েল বেঙ্গল টাইগার তামাম বাঘ প্রজাতির মধ্যে সুন্দর ও সেরা। মায়াবী চিত্রল হরিণের চলে না কোনো তুলনা। কিন্তু ম্যানগ্রোভ বা বাদাবনের সুরক্ষায় ঘাটতি থাকায় বিশ্বের সুন্দরতম প্রাণী রয়েল বেঙ্গল টাইগার নামের বাঘ অস্তিত্ব হারাতে চলেছে। বন কেটে লোকালয় গড়ার অবিমৃশ্যকারিতায় ১২ যুগের ব্যবধানে কমতে কমতে সুন্দরবনের বাংলাদেশ অংশের আয়তন এখন দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ১৭ বর্গকিলোমিটার। সংরক্ষিত এ বনের তিনটি এলাকাকে ১৯৯৭ সালের ৬ ডিসেম্বর ইউনেস্কো ৭৯৮তম ওয়ার্ল্ড হ্যারিটেজ সাইড ঘোষণা করে। যেখানে রয়েছে সুন্দরি, গেওয়া, গরান, পশুরসহ ৩৩৪ প্রজাতির উদ্ভিদরাজি। এ ছাড়া এ বাদাবনের ৩৭৫ প্রজাতির বন্যপ্রাণীর মধ্যে রয়েল বেঙ্গল টাইগার, হরিণসহ ৪২ প্রজাতির স্তন্যপায়ী, লোনা পানির কুমির, গুইসাপ, কচ্ছপ, ডলফিন, অজগর, কিংকোবরাসহ ৩৫ প্রজাতির সরীসৃপ ও ৩১৫ প্রজাতির পাখি রয়েছে। সুন্দরবন বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ জলাভূমিও। এ বনের জলভাগের পরিমাণ ১ হাজার ৮৭৪ দশমিক ১ বর্গকিলোমিটার; যা আয়তনের ৩১ দশমিক ১৫ ভাগ। ১৯৯২ সালে সমগ্র সুন্দরবনের এ জলভাগকে রামসার এলাকা হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে জাতিসংঘ। সুন্দরবনসংলগ্ন নদী-নালা ও সমুদ্রাঞ্চলও বিশাল; যার আয়তন ১ হাজার ৬০৩ দশমিক ২ বর্গকিলোমিটার। এ জলভাগের ছোটবড় ৪৫০টি নদ-নদী ও খালে রয়েছে সুবিখ্যাত ইয়াবতীসহ ছয় জাতের ডলফিন। রয়েছে ২ শতাধিক জাতের সাদা মাছ, ২৪ জাতের চিংড়ি, ১৪ প্রজাতির কাঁকড়াসহ নানা জলজপ্রাণী। আমাদের সচেতনতার অভাবে সুন্দরবন থেকে হারিয়ে গেছে বনমহিষ, দুই প্রজাতির গন্ডার, দুই ধরনের হরিণসহ অনেক প্রাণী। হারিয়ে গেছে, মিঠা পানির কুমির। আরও সর্বনাশ না চাইলে জীববৈচিত্র্য রক্ষায় যত্নবান হতে হবে। অবৈধভাবে প্রাণী শিকার বন্ধসহ এ বাদাবনের সুরক্ষায় যত্নবান হতে হবে।


আপনার মন্তব্য