শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ৮ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৭ মার্চ, ২০২১ ২৩:৩৬

মার্চ ৭১ থেকে ২০২১

মেজর জেনারেল এ কে মোহাম্মাদ আলী শিকদার পিএসসি (অব.)

মার্চ ৭১ থেকে ২০২১

মার্চ আমাদের স্বাধীনতার মাস। একাত্তরে এই মাসের প্রতিটি দিন স্বর্ণাক্ষরে লিখিত হয়, যার মহিমা অক্ষয় ও অনির্বাণ। বাংলাদেশের শেকড় চিনতে চাইলে উত্তাল সেই মার্চের প্রতিটি দিনের ঘটনাপঞ্জিকে বুকে ধারণ করে বিচার-বিশ্লেষণ করতে হবে। সঙ্গে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ২৩ বছরের সংগ্রাম ও তার গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাসের সংযোগ ঘটাতে হবে। হঠাৎ করে মার্চ আসেনি, আর হঠাৎ করে স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু হয়ে যায়নি। সাড়ে সাত কোটি মানুষ অজ্ঞাত-অপরিচিত একজনের এককথায় জীবন-মরণ যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েনি। ২৩ বছর ধরে ধাপে ধাপে একেকটি স্তর তৈরি হয়েছে, একেকটি ইটের গাঁথুনিতে তৈরি স্বাধীন বাংলাদেশের স্বরূপ পরিপূর্ণভাবে উন্মোচিত হয় একাত্তরের মার্চ মাসে। সে জন্যই মার্চ হয়ে আছে আমাদের স্বাধীনতার মাস। স্বাধীনতার প্রতিটি স্তর তৈরির প্রধান কারিগর ও স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। প্রতিটি জায়গায় তাঁর হাত ও মনের স্পর্শ ওতপ্রোতভাবে জড়িত। তাই বাংলাদেশকে উন্নত ও মর্যাদাশীল রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চাইলে বঙ্গবন্ধুর চিন্তা, চেতনা, আদর্শ ও জীবনাচারের দিকে তাকাতে হবে। ১৯৪৮ সাল থেকে তিনি নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতির পথে আন্দোলন-সংগ্রাম করলেও শুরু থেকেই তাঁর প্রতিটি পদক্ষেপ ও কর্মসূচির মাধ্যমে স্বাধীনতার সোপান তিনি রচনা করেছেন। ধাপে ধাপে অগ্রসর হয়ে তিনি একাত্তরের মার্চে চূড়ান্ত পর্বে এসে পৌঁছান। জয় সম্পর্কে নিশ্চিত থাকলেও বুঝতে পারেন এর জন্য নিজের জীবন বিসর্জনসহ সমগ্র বাঙালি জাতিকে চরম মূল্য দিতে হতে পারে। তাই অনেক আগে থেকেই আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী ও বাংলাদেশের মানুষকে তিনি হুঁশিয়ার করেছেন, প্রস্তুত হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। কয়েকটি উদাহরণ দিই। ১৯৭০ সালের ৯ এপ্রিল বাগেরহাটের এক নির্বাচনী জনসভায় বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘শুধু প্রধানমন্ত্রী কেন, যারা দুনিয়ার ঐশ্বর্য আর ক্ষমতা আমার পায়ের কাছে ঢেলে দিলেও আমি বাংলার বঞ্চিত মানুষের সঙ্গে বেইমানি করতে পারব না (দৈনিক ইত্তেফাক ১০ এপ্রিল ১৯৭০)। ভয়ংকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে সে কথা বঙ্গবন্ধু অনেক আগেই বলে দেন। ১৯৭০ সালের ৪ জুন মতিঝিল ইডেন হোটেল প্রাঙ্গণে পূর্ব-পাকিস্তান আওয়ামী লীগের দ্বিবার্ষিক কাউন্সিল অধিবেশনে বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘ছয় দফার প্রয়োজনে সবকিছু ত্যাগ করতে আমি প্রস্তুত। আপনারাও যে কোনো পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত থাকবেন। যে কোনো রকম ভয়ংকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে, কিন্তু কোনো অবস্থাতেই আমি আপস করব না। চারদিকে ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে, সাবধান।’ (প্রাগুক্ত, ৫ জুন ১৯৭০)।

১৯৭০ সালের ২৮ অক্টোবর বেতার ও টেলিভিশনে বঙ্গবন্ধু নির্বাচনী ভাষণ দেন। এই ভাষণের শেষের দিকে উল্লেখ করেন, ‘জীবনে আমি যদি একলাও হয়ে যাই, মিথ্যা আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার মতো আবার যদি মৃত্যুর পরোয়ানা আমার সামনে এসে দাঁড়ায় তাহলেও আমি শহীদের পবিত্র রক্তের সঙ্গে বেইমানি করব না। আপনারা যে ভালোবাসা আমার প্রতি আজও অক্ষুণœ রেখেছেন, জীবনে যদি কোনো দিন প্রয়োজন হয় তবে আমার রক্ত দিয়ে হলেও আপনাদের এ ভালোবাসার ঋণ পরিশোধ করব। (প্রাগুক্ত, ২৮ অক্টোবর ১৯৭০)। পৃথিবীর ইতিহাসে এমন নেতা দ্বিতীয়টি জন্মাননি। তিনি যদি সাম্রাজ্যবাদী পরাশক্তি ও একাত্তরের পরাজিত গোষ্ঠীর সঙ্গে সামান্য আপস করতেন তাহলে তাকে সপরিবারে এভাবে জীবন দিতে হতো না। নিজের রক্ত দিয়ে শুধু নয়, পুরো পরিবারের রক্ত ঢেলে দিয়ে প্রমাণ করেছেন বাংলাদেশের মানুষের সঙ্গে তিনি বেইমানি করেননি। আজকে যখন দেখি পদ-পদবি, চেয়ারম্যান, মেম্বার, এমপি-মন্ত্রী হওয়ার প্রক্রিয়ায় কাঁড়ি কাঁড়ি টাকাই মূল অনুঘটক হয়ে ওঠে এবং জামায়াত-রাজাকারদের সঙ্গে আপস করা হয় তখন মনে হয় এরা মুখেই বঙ্গবন্ধু, কার্যত বঙ্গবন্ধুর আদর্শের প্রধান শত্রু এরা। এদের জন্যই একাত্তরে পরিত্যক্ত ধর্মান্ধত্বপূর্ণ অপরাজনীতির কবল থেকে বাংলাদেশ মুক্ত হতে পারছে না। একজন এমপি মানব পাচারের অভিযোগে অন্য দেশের জেলে আছে। তর্কের খাতিরে ধরেই নিলাম তিনি নির্বাচনে জয়ী হয়ে এমপি হয়েছেন, এখানে অন্য নেতা-নেত্রীদের কিছু করার নেই। কিন্তু ওই এমপির স্ত্রী সংরক্ষিত নারী আসনে এমপি হওয়ার পিছনে কারা, কি কারণে কলকাঠি নেড়েছে তা কি বুঝতে কারও বাকি আছে। এহেন দুর্বৃত্ত পরিবার থেকে সংরক্ষিত আসনে এমপি করার সঙ্গে যারা জড়িত তাদের মুখে বঙ্গবন্ধুর নাম উচ্চারণ মহাপাপ, অন্যায়। এদের কারণেই রাষ্ট্রের অস্তিত্বের জন্য হুমকি মুক্তিযুদ্ধের আদর্শবিরোধী এবং ধর্মাশ্রয়ী রাজনীতি বাংলাদেশে এখনো টিকে থাকতে পারছে, তা না হলে অনেক আগেই বাংলাদেশের রাজনীতি থেকে এসব অপশক্তি বিদায় হয়ে যেত। একাত্তরের কথায় ফিরে আসি। ১৯৭০ সালে অনুষ্ঠিত পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে মোট ৩০০ নির্বাচনী আসনের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ একাই ১৬২ আসন পেয়ে সমগ্র পাকিস্তানে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠ দল হয়। তারপর ১৯৭১ সালের ৩ জানুয়ারি রেসকোর্স (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) মাঠে আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচিত জাতীয় ও প্রাদেশিক পরিষদের সদস্যদের সবাইকে বঙ্গবন্ধু শপথ বাক্য পাঠ করান। তাতে বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘ছয় দফা এখন থেকে বাংলাদেশের সাড়ে সাত কোটি মানুষের সম্পদ, এর সঙ্গে কেউ বেইমানি করলে বাংলার মাটিতে তার কবর রচিত হবে, এমনকি আমি করলে আমারও।’ সবাইকে সতর্ক করেন এবং বলেন রক্ত দানের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। সুতরাং দেখা যায়, মার্চ মাস আসার আগেই বঙ্গবন্ধু সব ঠিক করে ফেলেন। নিজেই ওই অনুষ্ঠানে স্লোগান দিলেন, আমার দেশ-তোমার দেশ বাংলাদেশ-বাংলাদেশ। তারপর ৭ মার্চের ভাষণে আসন্ন সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের সব কলাকৌশল বাতলিয়ে দিলেন। বৃহত্তর রাজনৈতিক কৌশলের অংশ হিসেবে তারপর পাকিস্তানি সামরিক জান্তার সঙ্গে আলোচনায় বসেছেন। তিনি চেয়েছেন যুদ্ধের শুরুটা পাকিস্তানিদের পক্ষ থেকে হলেই স্বাধীনতা অর্জনের পথে সব স্তর অতিক্রম করা হয়ে যাবে। তার জন্য পুরো মার্চজুড়ে বাংলাদেশের মানুষকে অসহযোগ আন্দোলন চালানোর নির্দেশ দিয়েছেন। পাকিস্তানি সরকার ও সেনাবাহিনী তখনো বাংলাদেশের আনুষ্ঠানিক কর্তৃপক্ষ থাকলেও ৭ মার্চের পর থেকে সবকিছু বঙ্গবন্ধুর হুকুমেই চলেছে, ধানমন্ডির ৩২ নম্বরের বাড়িতে সব কর্তৃত্ব চলে আসে। একাত্তরের ১৫ মার্চ সাধারণ মানুষ এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ সব সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর জন্য বঙ্গবন্ধুর পক্ষ থেকে ৩৫ দফা নির্দেশনামা ঘোষিত হয়। (বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ দলিলপত্র, পৃ.-৭৩৯-৭৪৬) পর্যায়ক্রমে এলো ২৫ মার্চ। পাকিস্তান সেনাবাহিনী ২৫ মার্চ দিবাগত রাতে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে এবং সমগ্র দেশে সেনাবাহিনী গণহত্যা চালাতে থাকে। বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণার মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়ে যায়। একেবারে শুরু থেকেই ভারতের অভূতপূর্ব সর্বাত্মক সমর্থন ও সহযোগিতায় আমাদের পক্ষে যুদ্ধের গতি ত্বরান্বিত হয় এবং মাত্র ৯ মাসেরও কম সময়ের মাথায় ১৬ ডিসেম্বর আমরা পরিপূর্ণ বিজয় অর্জন করি। ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারিতে বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানের বন্দীদশা থেকে দেশে ফিরে এলেন। বাংলাদেশের যে চিত্র ও স্বরূপ সারা জীবনের সংগ্রামের মধ্য দিয়ে বঙ্গবন্ধু নিজ হৃদয়ের মধ্যে রচনা করেছেন তারই পরিপূর্ণ প্রতিফলন তিনি ঘটান বাহাত্তরের সংবিধানে। সে কারণেই বাহাত্তরের সংবিধানের দিকে তাকালেই আকাক্সিক্ষত বাংলাদেশের প্রকৃত স্বরূপ দেখা যায়। এর বিপরীতে যা কিছু তার সবই বাংলাদেশবিরোধী। বঙ্গবন্ধু সবকিছু গুছিয়ে আনলেন, আর তখনই তাঁকে হত্যা করা হলো। তারপর পর্যায়ক্রমে ক্ষমতায় আসা দুই সামরিক শাসক সামরিক আদেশ দ্বারা বাহাত্তরের সংবিধানের মৌলিকত্বের সবকিছু বাতিল করে বাংলাদেশের মহাসর্বনাশ ঘটিয়েছেন। বলা যায়, মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত রাষ্ট্রটিকে ধ্বংস করার চেষ্টা করেছেন। সেই ধারাবাহিকতায় ২০০১-২০০৬ মেয়াদে এসে বাংলাদেশ পরিণত হয় উগ্র ধর্মান্ধ জঙ্গি রাষ্ট্রে। বিশ্বের বড় বড় মিডিয়া হাউস এবং বিশ্লেষকগণ বলতে থাকেন পরবর্তী আফগানিস্তান হবে বাংলাদেশ। মুক্তিযুদ্ধের সব আদর্শ, আশা, আকাক্সক্ষা ধূলিসাৎ হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়। কিন্তু ৩০ লাখ শহীদের রক্তের একটা অমোঘ সহজাত শক্তি আছে। তার কারণেই বাংলাদেশ আবার ঘুরে দাঁড়ায়। গত ১২ বছর বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা মুক্তিযুদ্ধের আদর্শের ওপর দেশ পরিচালনা করেছেন বলেই বাংলাদেশ আজ স্বল্পোন্নত থেকে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বিশ্ব স্বীকৃতি পেয়েছে। দেশের অর্থনীতির আকার, প্রবৃদ্ধির হার, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ, রপ্তানিসহ মানুষের জীবনমানের সব সূচক গত ১২ বছরে তিন থেকে পাঁচ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। বিপরীতে রাজনীতিতে আদর্শ ও নৈতিকতার পশ্চাদপসারণের ফলে রাজনীতিকদের ওপর ভর করে বড় এক লুটেরা শ্রেণিও তৈরি হয়েছে। এই লুটেরা শ্রেণির কুপ্রভাব রাজনীতির সব স্তরে সংক্রমিত হচ্ছে। যা আখেরে বঙ্গবন্ধুর ত্যাগের মহিমায় পুষ্পিত রাজনীতি মানুষের কাছ থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। সেই সুযোগে মুক্তিযুদ্ধের আদর্শবিরোধী রাজনৈতিক পক্ষ টিকে থাকার জায়গা পাচ্ছে। অন্যদিকে বিদ্যাপীঠের সব স্তরে এবং সমাজের সব পর্যায়ে ধর্মের নামে অপধর্মীয় অন্ধত্ববাদের বিশ্বাস যেভাবে প্রসারিত হচ্ছে তার লাগাম টেনে ধরতে না পারলে আবারও মহাবিপদ নেমে আসতে পারে। তাই স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিববর্ষের প্রধান কাজ হওয়া উচিত নতুন প্রজন্মের মধ্যে জাগরণ সৃষ্টি করা, যাতে তারা বুঝতে পারে ধর্মের ভুল ব্যাখ্যা সংবলিত অন্ধত্ববাদের বিশ্বাস নয়, আধুনিক বিজ্ঞানসম্মত দৃষ্টিভঙ্গিই তাদের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করতে পারে। একাত্তরের পরাজিত গোষ্ঠী ও তাদের সঙ্গী রাজনৈতিক পক্ষ মুক্তিযুদ্ধের আদর্শবিরোধী রাজনীতি নিয়ে এখনো ভালোভাবেই বহাল আছে। সুতরাং একাত্তরের মার্চ থেকে ২০২১ সালের মার্চ পর্যন্ত পর্যালোচনায় দেখা যায় পথিমধ্যে অনেক উত্থান-পতন পেরিয়ে গত ১২ বছর একনাগাড়ে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির পথে বাংলাদেশ জোরকদমে হাঁটছে, কিন্তু অপরদিকে মুক্তিযুদ্ধের আদর্শবিরোধী রাজনীতি শক্তভাবে বহাল আছে, যা পারস্পরিকভাবে চরম বিপরীতমুখী।

লেখক : রাজনৈতিক ও নিরাপত্তা বিশ্লেষক।

[email protected]

 


আপনার মন্তব্য