শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১০ জুন, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ জুন, ২০২১ ২২:৫৯

ফিরে দেখা

তসলিমা নাসরিন

ফিরে দেখা
Google News

১. কানাডার অন্টারিওতে এক মুসলিম পরিবারের চার সদস্যকে এক লোক গাড়িচাপা দিয়ে মেরেছে। আমরা অনুমান করতে পারি লোকটির মুসলিমবিদ্বেষ ছিল প্রচন্ড। প্রায়ই শুনি মুসলিমদের ওপর হামলা হচ্ছে। মনে আছে টুইন টাওয়ারে জঙ্গি হামলার পর পাগড়ি-পরা শিখদের মুসলমান ভেবে গুলি করে হত্যা করত আমেরিকানরা? মসজিদের ইমামকেও তো নিউইয়র্কের খোলা রাস্তায় হত্যা করেছে এক লোক। কিছুদিন মসজিদে গিয়ে চেচনিয়ার দুই ভাই বোস্টন ম্যারাথনে প্রেসার কুকার বোমা রেখে এসেছিল মনে আছে? মসজিদগুলোয় কী হয় জানার জন্য সরকার পক্ষ থেকে এখন গোয়েন্দা নিযুক্ত করা হয়েছে। মুসলিমবিদ্বেষ আগুনের মতো পশ্চিমা বিশ্বে ছড়িয়ে গেছে। নিউজিল্যান্ডে মসজিদের ভিতর ঢুকে এক লোক কত মুসলমানকে ব্রাশফায়ার করে মেরে ফেললো। সভ্য এবং উন্নত দেশে সরকার থেকে অভিবাসী মুসলমানদের ওপর আঘাত আসে না, কিন্তু সাধারণ মানুষ থেকে আসে। ওরা কেন এত ঘৃণা করে মুসলমানদের? এই প্রশ্নটির উত্তর বের করার দায়িত্ব মুসলমানদের। ইউরোপ, আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়ায় তো হিন্দুদের মন্দির, বৌদ্ধদের প্যাগোডা, এমনকি ইহুদিদের সিনেগগও আছে। কই, সেগুলোয় তো হামলা চালানো হয় না। বর্ণবাদী আক্রমণ হলে বাদামি রঙের সব অভিবাসীর ওপর আক্রমণ হতো, কিন্তু তা তো হয় না। বেছে বেছে শুধু মুসলমানদের ওপর হচ্ছে আক্রমণ। হিন্দুদের মন্দিরে তো আড়ি পাতা হয় না, বৌদ্ধদের প্যাগোডায় হয় না। শুধু মসজিদকেই কেন অন্য চোখে দেখে পশ্চিমা জগতের মানুষ, কেন মুসলমানদেরই বেছে বেছে ঘৃণা করে? কেন বোমা ফেলতে যায় ইরাক, সিরিয়া, লিবিয়া, আফগানিস্তানের ওপর? ভাবতে হবে বৈকি। ভাবতে হবে এই ঘৃণা মুসলমানরা কবে থেকে অর্জন করছে। ইউরোপের অনেক দেশে, এমনকি শ্রীলঙ্কাতেও বোরকা নিষিদ্ধ হয়েছে। অন্যান্য ধর্মাবলম্বীদের কোনও ধর্মীয় পোশাক তো নিষিদ্ধ করা হয়নি! মিয়ানমার থেকে বিশাল এক মুসলমান জনগোষ্ঠীকে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। যেসব দেশ রাজনৈতিক শরণার্থীদের সাদরে গ্রহণ করে, সেসব উদার দেশও রোহিঙ্গাদের নিজের দেশে আশ্রয় দেয়নি, তার চেয়ে বরং বাংলাদেশকেই টাকা-পয়সা দিয়ে সাহায্য করেছে যেন শরণার্থীদের দেখভাল করে। বিমানে ওঠার সময় কড়া নজর থাকে ইসলামী পোশাক পরা মুসলমান যুবকদের ওপর। হরে কৃষ্ণ নামাবালি গায়ে দিয়ে কট্টর হিন্দুরাও ওঠে বিমানে, কালো হ্যাট পরে কট্টর ইহুদিরাও ওঠে, কই ওদের দেখে তো আত্মারাম খাঁচা ছাড়া হয় না। কেন নির্দিষ্ট এক ধর্মের লোকদের দেখলে হয় মানুষ ভয়ে লুকোয় নয় হিংস্র হয়ে ওঠে। এসব প্রশ্নের সঠিক উত্তর যেদিন মুসলমানরা খুঁজে পাবে, সেদিন তারা আশা করছি, মানুষের ঘৃণা থেকে নিজেদের মুক্ত করার চেষ্টা করবে।

মানুষ অন্যকে প্রশ্ন করতে অভ্যস্ত। মাঝে মাঝে নিজেকেও প্রশ্ন করতে হয়। আত্মশুদ্ধির জন্য নিজেকে প্রশ্ন করা অত্যন্ত জরুরি।

২. জানি না আশিকুল আলম এখন কেমন আছে। দুই বছর আগে ২২ বছর বয়সী বাংলাদেশি ছেলেটি নিউইয়র্কের টুইন টাওয়ার আর এম্পায়ার স্টেট বিল্ডিংয়ের চূড়ায় ইসলামের পতাকা ওড়াতে চেয়েছিল। এই স্বপ্ন নিয়ে সে প্ল্যান করেছিল টাইম স্কোয়ারে সে বোমা ফোটাবে, ইহুদি নাসারাদের মারবে, দুনিয়াজুড়ে ইসলাম প্রতিষ্ঠা করবে, বেহেশতে যাবে। আশিকুল আলম ইহুদি নাসারাদের দেশে এসেছে, এখানকার সুযোগ-সুবিধে আর অবাধ স্বাধীনতা পাওয়ার জন্য, ভালো ভালো কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার জন্য, বিত্তশালী হওয়ার জন্য, নিরাপদ জীবন উপভোগের জন্য, দেশের আত্মীয়-স্বজনকে এক এক করে আনার জন্য, বংশ বিস্তার করার জন্য। বিনিময়ে ইহুদি নাসারাদের কী দেবে সে? সন্ত্রাস আর মৃত্যু।

ইসলামের স্বপ্নে বিভোর আশিকুল আলমকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। আশিকুল আলম একা নয়, খুঁজলে আমেরিকায় অনেক বাংলাদেশি পাওয়া যাবে, যারা টুইন টাওয়ার আর এম্পায়ার স্টেট বিল্ডিংয়ের চূড়ায় ইসলামের পতাকা ওড়াবার স্বপ্ন দেখে। পুলিশ আর এফবিআইএর পক্ষেও এই স্বপ্নটির নাগাল পাওয়া সহজ নয়।

৩. তাকিউর রহমান এখন কেমন আছে, কোথায় আছে? তার বাবা ছিল বগুড়ার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী। ১৯৯৬ সালে তাকিউর ভারতের দার্জিলিংয়ে একটি ইংরেজিমাধ্যম স্কুলে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়তে শুরু করে। ২০০৪ সালে সেখান থেকে ‘ও লেভেল’ এবং ২০০৬ সালে ঢাকার লন্ডন কলেজ অব লিগ্যাল স্টাডিজ থেকে ‘এ লেভেল’ পাস করে। এরপর লন্ডনের ক্যান্টারবেরি ক্যান্ট ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হয়। সেখানে অনার্স ও মাস্টার্স শেষ করে ২০০৯ সালে। পরের বছর লন্ডন থেকেই বার-এট-ল (ব্যারিস্টার) শেষ করে। ইন্টার্নি শেষে ২০১১ সালের প্রথম দিকে দেশে ফেরে। এরপর থেকে হাই কোর্টে প্র্যাকটিসের পাশাপাশি লন্ডন কলেজ অব লিগ্যাল স্টাডিজ ও ভুঁইয়া একাডেমিসহ ৪-৫টি প্রতিষ্ঠানে আইন বিষয়ে শিক্ষকতা করে। ২০১১ সালে প্রেম করে এক কর্নেলের মেয়েকে বিয়ে করে। এরপর স্ত্রীকে নিয়ে ঢাকার লাক্সারি ফ্ল্যাটে থাকতে শুরু করে। হাই কোর্টে প্র্যাকটিস, টিউশনি ও শিক্ষকতা করে মাসে এক লাখ ৪০ হাজার টাকা আয় করতো। এই তাকিউরই হঠাৎ করেই দাড়ি রাখতে আর নামাজ রোজা করতে শুরু করে। এরপর ২০১৫ সালের এপ্রিল মাসের শুরুতে তাকিউর তার স্ত্রী কন্যাকে নিয়ে ওমরাহ হজ পালন করতে যায়। ১৩ এপ্রিল ফোনে আত্মীয়-স্বজনকে জানায়, তারা সৌদি আরবে আছে। ওমরাহ শেষ হলে ২২ এপ্রিল দেশে ফিরবে। কিন্তু ২২ এপ্রিলে তাকিউর দেশে ফেরে না। কয়েক মাস পর অজ্ঞাত একটি নম্বর থেকে বাবাকে ফোন করে তাকিউর বলে, তারা ভালো আছে। কোথায় ছিল তাকিউর? তাকিউর সিরিয়ায় ছিল। জঙ্গি সংগঠন আইসিসে যোগ দিয়েছিল।

যে ছেলেদের ছোটবেলা থেকে জঙ্গি হিসেবে তৈরি করা হয়, তারা জঙ্গি হলে বিস্ময় জাগে না। কিন্তু তাকিউরের মতো উচ্চশিক্ষিত ব্যারিস্টার কী করে জঙ্গি হওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়, সেটিই ভাবনার বিষয়। মাদরাসা বন্ধ করে বা সিলেবাস পাল্টে দিয়ে মাদরাসাকে জঙ্গি তৈরির কারখানা বানানো হয়তো রোধ করা যাবে। কিন্তু তাকিউরদের বাঁচানোর উপায় কী? বড় হওয়ার পর, বুদ্ধি হওয়ার পর, নানা পড়াশোনা করার পর, দুনিয়া দেখার পর ধর্মের নামে কেন মানুষ খুন করার সিদ্ধান্ত নিতে পারে? ব্যারিস্টার ছেলেটি কি শুধুই মানুষের গলা কাটতে পারবে এই আনন্দে ঢুকেছে আইসিসে? নাকি হঠাৎ করে সে তার বড়বেলায় বিশ্বাস করতে শুরু করেছিল অবিশ্বাসীদের হত্যা করলে বেহেশত মিলবে। অথবা দুনিয়ার যত অমুসলিম আছে সবাইকে হত্যা করে পৃথিবীটাকে শুধু মুসলমানদের পৃথিবী বানানোটা মুসলমানদের প্রধান কাজ। এই ব্রেন নিয়ে কী করে ছেলেটা ও লেভেল, এ লেভেল, আর ব্যারিস্টারি পাস করেছিল বুঝি না।

৪. বাংলাদেশের হোলি আর্টিজান ক্যাফের জঙ্গিদের বেশ উচ্চশিক্ষিত, ব্রিলিয়ান্ট, প্রতিভাবান, ট্যালেন্টেড- এসব বলেছে অনেকে। তারা যদি এত সব হতো, তাহলে আনওয়ার আওলাকি, জাকির নায়েক, আনজেম চৌধুরী, এবং নানা মোল্লা মৌলভীর বক্তৃতা শুনে বা আইসিসের নৃশংসতা দেখে জঙ্গি হতো না, বিশ্বাস করতো না কাফেরদের খুন করলেই তারা বিনা বিচারে জান্নাতে যাবে। তারা নিতান্তই বোকা, নিতান্তই মূর্খ, অশিক্ষিত, মাথায় যাদের ঘিলু বলতে কিছু নেই। বাপের টাকায় নামি প্রাইভেট ইউনিভর্সিটিতে ভর্তি হয়েছে, হয়তো ডিগ্রি নিয়েছে দু’একটা- তার মানে কিন্তু এই নয় যে তারা শিক্ষিত বা উচ্চশিক্ষিত। তারা কিছু বই মুখস্থ করে পরীক্ষায় পাস করেছে, ব্যস। এটি করলে শিক্ষিত হয় না কেউ। শিক্ষিত হওয়া অন্য জিনিস। বিশ্ব ব্রহ্মান্ডের ইতিহাস, বিজ্ঞান, বিবর্তন, ধর্মের ভালো মন্দ, মানবতা, উদারতা, সমতা, স্বাধীনতা ইত্যাদি সম্পর্কে যাদের কোনও ধারণা নেই, কোনও বিবেক নেই, বিচারবুদ্ধি নেই, সচেতনতা নেই- তাদের শিক্ষিত বলাটা ঠিক নয়।

গুলশানের সেই ক্যাফেটি যখন ঘিরে রেখেছিল পুলিশ, পুলিশকে চিৎকার করে ছেলেগুলো বলছিল- ‘তোমাদের বুলেটপ্রæফ জ্যাকেটের প্রয়োজন হতে পারে কিন্তু আমাদের তা দরকার নেই, কেননা আমরা আল্লাহর সৈনিক। যদি সাহস থাকে তবে বুলেটপ্রæফ জ্যাকেট খুলে সামনে আসো। আমরা শহীদ হব এবং বেহেশতে যাব, আমরা কোন কিছুর পরোয়া করি না।’

জঙ্গিরা বিশ্বাস করে তারা বেহেশতে যাবে। তাই তারা যেমন মারতেও দ্বিধা করে না, মরতেও দ্বিধা করে না। এসব শিশুতোষ রূপকথা প্রাপ্ত বয়স্ক মানুষের যুক্তি-বুদ্ধি কী করে যে লোপ পাইয়ে দেয় বুঝি না!

৫. আমি কেন সন্ত্রাসবাদের নিন্দে করি? আমি কি মুসলমানদের ঘৃণা করি? না, আমি মুসলমানদের ভালো চাই বলে মুসলমানরা সন্ত্রাসে জড়াক চাই না, চাই না মুসলমানদের মানুষ ঘৃণা করুক। সমাজকে সুস্থ সুন্দর সভ্য করতে হলে মানুষের তৈরি নিয়ম নীতি, ঐতিহ্য সংস্কৃতি, মানুষের স্বভাব চরিত্র যা কিছুই খারাপ তা যে করেই হোক ত্যাগ করতে হবে, এবং যা কিছু ভালো, তা গ্রহণ করতে হবে, এবং তার চর্চা করতে হবে। জীবনের আরাম আয়েশ, সুখ শান্তি বিসর্জন দিয়ে, স্বৈরাচারী সরকারের অত্যাচার সহ্য করে, দেশ সমাজ হারিয়ে আমি নিরবধি মন্দকে ত্যাগ করে ভালোকে গ্রহণ করার জন্য মানুষকে উদ্বুদ্ধ করছি। নারীর সমানাধিকারের জন্য ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্রের যেমন প্রয়োজন, সুস্থ শিক্ষিত সমাজেরও তেমন প্রয়োজন। অর্থনৈতিক উন্নতি হলে আপনাতেই মানুষ স্বশিক্ষিত হয়ে ওঠে না। অর্থনৈতিক উন্নতি মানুষকে সম্পদশালী করে। কিন্তু বিবেককে কী করে? অর্থনৈতিক উন্নতির সঙ্গে সঙ্গে ধর্ষণ কেন বাড়ছে, লোক ঠকানো বাড়ছে কেন বাংলাদেশে, কেন মিথ্যে বাড়ছে, কেন জালিয়াতি বাড়ছে? ধর্মীয় পরিচিতির বদলে বাঙালিরা শিক্ষিত সংস্কৃতিমান জাতি হিসেবে পরিচিতি পাক। সম্পদশালী কিছু দেশ সম্পর্কে তো আমরা জানিই, দুর্ভাগ্যক্রমে সে দেশগুলো মুসলিম দেশ, যে দেশগুলোয় মানুষের হাতে অঢেল বিত্ত, কিন্তু তাদের বিবেক বলতে কিছু নেই, তারা নারীকে যৌনবস্তু হিসেবে দেখে, নারীর কোনও স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না, দরিদ্রকে মানুষ বলে জ্ঞান করে না, ডুবে আছে ধর্মান্ধতা আর বর্বরতায়। বাংলাদেশকে তেমন সম্পদশালী দেশ হিসেবে দেখতে চাই না। বাইরের চেয়ে অন্তরে সম্পদশালী হওয়া মূল্যবান।

অশান্তি আর নয়, জগৎজুড়ে ইসলামের পতাকা ওড়ানোর স্বপ্ন দেখা বন্ধ করে শান্তির জন্য সংগ্রাম করতে হবে। শুধু মুসলমানদের মধ্যে শান্তি স্থাপন নয়। সব ধর্মের বর্ণের ভাষার আর জাতীয়তার মানুষকে নিয়ে পৃথিবীর সর্বত্র শান্তিতে বসবাস করার চেষ্টা যে করেই হোক মুসলমানদের করতে হবে। তা না হলে জঙ্গিবাদের যে কালি লেগে আছে মুসলমানদের ওপর, সেটি দূর হবে না।

লেখক : নির্বাসিত লেখিকা।