শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৮ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৭ জুলাই, ২০২১ ২৩:১০

বঙ্গবীরের ভারতে নির্বাসনের দিনগুলি

লেখক : ফরিদ আহমেদ, প্রকাশক, অনন্যা প্রকাশনী

Google News

পঁচাত্তরের মধ্য আগস্টে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে বর্বর কাপালিকরা সপরিবারে হত্যা করে। সেই নৃশংস হত্যাকান্ডের রক্তাক্ত দাগ শুকানোর আগেই তাঁর মানসপুত্র বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী অগণিত মুজিবসন্তানকে সংগঠিত করে প্রতিশোধের প্রত্যয়ে অসম যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের চার বছরের মাথায় আরেকটি যুদ্ধ শুরু হয়ে গিয়েছিল বঙ্গবন্ধুর নির্মম হত্যাকান্ডের পর। সে এক বিভীষিকাময় ইতিহাস। একটি জাতির জন্মলগ্নের পরপরই প্রতিরোধ যোদ্ধাদের অবর্ণনীয় ইতিহাস অনেকেরই অজানা। বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম সেই দুর্বার প্রতিরোধযুদ্ধের অনুচ্চারিত ইতিহাস আজও জাতির সামনে উপস্থাপন করেননি। সে সময়ের তরুণ ছাত্রলীগ কর্মী ফরিদ আহমেদ ১৯৮২ সালে পশ্চিমবঙ্গে ছুটে যান বঙ্গবীরের সান্নিধ্যে। বঙ্গবীরের বীরোচিত স্বদেশ প্রত্যাবর্তনে তিনি সহযাত্রী হয়েছিলেন।

প্রতিরোধযুদ্ধের একপর্যায়ে ভারতে ক্ষমতার পালাবদল হয়। যার ফলে জাতীয় মুক্তিবাহিনী বিপদগ্রস্ত হয়ে পড়ে। শুরু হয় নির্বাসিত একাকিত্বের জীবন। সাতাত্তরের ঘোরতর সংকটকালে জাতীয় মুক্তিবাহিনীর রৌদ্রোজ্জ্বল আকাশ অন্ধকারে ছেয়ে যায়। ইন্দিরাবিরোধী ডানপন্থি বলয় দিল্লির মসনদে বসে। প্রতিরোধ যোদ্ধাদের বিপর্যয় শুরু হয়ে যায়। ভারতীয় কর্তৃপক্ষ হাজার হাজার প্রতিরোধ যোদ্ধাকে সামরিক জান্তার হাতে তুলে দেয়। তাদের পুনর্বাসনের মিথ্যা প্রতিশ্রুতির আড়ালে অমানুষিক নিপীড়নের হোলিখেলা বিরামহীন চলতে থাকে। সেই গভীর সংকটে প্রতিরোধ যোদ্ধাদের পাশে বুক পেতে দাঁড়ান তখনকার ভারতের জীবিত গান্ধী খ্যাত লোকনায়ক সর্বোদয় নেতা জয়প্রকাশ নারায়ণ, সোশ্যালিস্ট নেতা জর্জ ফার্নান্দেজ, সমর গুহ, সুরেন্দ্র মোহন, ভুপেশ দাশগুপ্ত, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসু, জনতা মোর্চার সভাপতি চন্দ্র শেখর এমনকি পররাষ্ট্রমন্ত্রী অটল বিহারি বাজপেয়ি। ভারতের সর্বজনশ্রদ্ধেয় সর্বোদয় নেতা জয়প্রকাশ নারায়ণের সাহসী ভূমিকায় জনতা সরকার একসময় নমনীয় হতে বাধ্য হয়। জাতীয় মুক্তিবাহিনীর সর্বাধিনায়ক বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তমসহ অসংখ্য প্রতিরোধ যোদ্ধাকে ভারতে রাজনৈতিক আশ্রয় দেওয়া হয়। তত দিনে সর্বনাশের ষোলকলা পূর্ণ হয়ে গেছে। হাজার হাজার প্রতিরোধ যোদ্ধাকে পুনর্বাসনের ছলনার ফাঁদে ফেলে সামরিক জান্তার নিষ্পেষণে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে কাটাতে হয়েছে জীবনের সিংহভাগ সময়। সাতাত্তরে কংগ্রেসের শোচনীয় পরাজয়, তখনকার টালমাটাল রাজনৈতিক পরিস্থিতি এমনকি সেই ঘোরতর সংকট কাটিয়ে কংগ্রেসের পুনরায় ক্ষমতায় আরোহণ এ বইটিতে এমন নিখুঁতভাবে তুলে এনেছেন যা একজন প্রতিষ্ঠিত সংবাদ বিশ্লেষককেও হতবাক করে দেবে। সাতাত্তরে কংগ্রেসের শোচনীয় পরাজয়ের পর তিন বছরের মাথায় ইন্দিরা কংগ্রেসের বিপুল বিজয়ের রথযাত্রায়ও বঙ্গবীর ভূমিকা রেখেছিলেন এটা যেমন বিস্ময়ের, তেমনি গৌরবের। বিপরীত মেরুর দুই রাজনীতিক জয়প্রকাশ নারায়ণ-ইন্দিরা গান্ধীর সমঝোতার মেলবন্ধন সৃষ্টি করেছিলেন নির্বাসিত গেরিলা নেতা বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম। কারণ তাঁরা উভয়েই তাঁকে সন্তানসম স্নেহ করতেন। অন্যদিকে ইন্দিরা গান্ধীর মৃত্যুর পর রাজীব গান্ধীর সঙ্গে প্রণব মুখার্জির দূরত্ব বেড়ে দলত্যাগের পর্যায়ে উপনীত হয়েছিল। সেখানেও বাংলার এই বীর দূতিয়ালি করে দূরত্ব কমিয়ে এনেছিলেন। এসব ঐতিহাসিক তথ্য বিভিন্ন সময়ে বঙ্গবীর তাঁর লেখায় উল্লেখ করেছেন। দীর্ঘ সময় সহাবস্থানের কারণে এবং সম্পর্ক পারিবারিক বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে তিনি চাণক্যের রাজনীতির উঠোনে অনেকটা হাঁটাহাঁটি করেছিলেন। ফরিদ আহমেদ সেই অনুচ্চারিত ইতিহাসের অনেকখানি উন্মোচন করেছেন এ বইয়ে। নির্বাসনের সেই হাসি-কান্না-আনন্দ-বেদনার আবেগমাখা দিনগুলোর স্মৃতিচারণা করে ফরিদ আহমেদ লিখেছেন- ‘বঙ্গবীরের ভারতে নির্বাসনের দিনগুলি’। বিষয়গুলো একান্তই অজানা ছিল জাতির কাছে। বঙ্গবীরের নির্বাসনের দৈনন্দিন জীবন, আশপাশের পরিবেশ, নানা ঘটনার অনুপুঙ্খ বর্ণনা সুনিপুণভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের সাধারণ মানুষের জনজীবনের নৈমিত্তিক চালচিত্র এমন প্রাঞ্জল ভাষায় তুলে ধরেছেন যে পড়ে বিমোহিত হতে হয়। বিশেষ করে ট্রেনযাত্রার হৃদয়গ্রাহী উপাখ্যান উঠে এসেছে। পশ্চিমবঙ্গের সংগ্রামী সাধারণ মানুষের দৈনন্দিন চালচিত্র উঠে এসেছে বইয়ের অনেকখানি জুড়ে। রাজনৈতিক পরিমন্ডলের বাইরে অসাধারণ মানুষের মননশীলতা অনুসরণ করার মতো।

বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম এ উপমহাদেশে এক প্রতিবাদী বীর যোদ্ধার নাম। সাধারণ মানুষের কাছে তিনি অনুকরণীয় এক অধ্যায়। তাঁকে ঘিরে কৌত‚হলের শেষ নেই। এতকাল তাঁর নির্বাসিত জীবন সম্পর্কে সবার অজানা ছিল। তাঁর দীর্ঘ চার দশকের ছায়াসঙ্গী ফরিদ আহমেদ বইটি লিখে আমাদের উপকৃত করলেন, ঘটনাবহুল অনেক অজানা ইতিহাস আমাদের জানতে দিলেন। রাজনৈতিক টানাপোড়েন, আশা-নিরাশার দোলাচল আবার প্রবাসের অখ্যাত-বিখ্যাত বহু মানুষের অতি মানবিক আচরণ এমনভাবে তুলে আনা হয়েছে পড়ে বিমোহিত হতে হয়। মুক্তিযুদ্ধের অমর গ্রন্থ ‘স্বাধীনতা ৭১’ রচনার প্রেক্ষাপট, তখনকার ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর আন্তরিক প্রচেষ্টায় সামরিক রোষানলে নিপতিত রাজবন্দী বিশ্বজিৎ নন্দীর ফাঁসির আদেশ রদ, বহুল আলোচিত কিন্তু অত্যন্ত সাদামাটা বঙ্গবীরের বিয়ের উপাখ্যান, লন্ডন সফর অত্যন্ত প্রাঞ্জল ভাষায় উপস্থাপন করা হয়েছে। সবচেয়ে অবাক ব্যাপার হলো, বইটি পড়তে বসে মনে হয় নিজেই ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলাম। এখানেই লেখকের অভিনবত্ব। ভারতীয় রাজনীতির শীর্ষ নেতাদের সংস্পর্শের পাশাপাশি ওখানকার অতি সাধারণ মানুষের দৈনন্দিন জীবনের অবিস্মরণীয় উপাখ্যান উঠে এসেছে লেখায়। একজন বীরের পরিবার, মা-বাবার অজানা ঘটনা এমনভাবে উপস্থাপিত হয়েছে পড়ে মুগ্ধ হয়ে যেতে হয়। বঙ্গবীরের জনক-জননীর বিয়োগান্ত অধ্যায় হৃদয় ছুঁয়ে যায়। সবচেয়ে হৃদয়গ্রাহী অধ্যায় দীর্ঘ ১৬ বছর নির্বাসন শেষে স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের কয়েক দিনের আবেগঘন টানটান উত্তেজনাকর ঘটনাবলি। ঢাকা বিমানবন্দরে লাখ লাখ মানুষ যা দেখেছে তার অন্তরালের ঘটনা অনেকেই জানতেন না। এই বীর ১৬ বছর পর দেশমাতৃকার মাটিতে পা রাখেননি, বিমানের সিঁড়ি বেয়ে মাটির কাছাকাছি এসে গড়িয়ে পড়ে বাংলার মাটিকে স্পর্শ করেন এবং জন্মভূমির মাটিকে বারবার চুমু খেয়ে তবে পা রেখেছিলেন। এটাই একজন বীরের জন্মভূমির প্রতি শ্রদ্ধা, দেশপ্রেম। এখানেই বঙ্গবীরের দেশপ্রেমে দীক্ষার অগ্নিমন্ত্র। গোটা জাতি সেদিন হতবাক হয়ে গিয়েছিল। ফরিদ আহমেদ সেই অনুচ্চারিত ঘটনা উন্মোচিত করেছেন এ বইয়ে।

আবুল কালাম আজাদ