শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১ আগস্ট, ২০২১ ২৩:৪০

তৃতীয় অধ্যায় : ব্যাপন, অভিস্রবণ ও প্রস্বেদন

অষ্টম শ্রেণির পড়াশোনা : বিজ্ঞান

আবদুর রহিম : সহকারী শিক্ষক

অষ্টম শ্রেণির পড়াশোনা : বিজ্ঞান
Google News

(পূর্ব প্রকাশের পর)

 

ক. জাইগোট কী?             ১

খ. কিশমিশ পানিতে ডুবালে ফুলে ওঠে কেন?      ২

গ. ১ নম্বর প্রক্রিয়া উদ্ভিদে কীভাবে ঘটে ব্যাখ্যা কর।          ৩

ঘ. পরিবেশের জন্য উদ্দীপকের কোন প্রক্রিয়াটি বেশি উপযোগী বিশ্লেষণ কর।                    ৪

উত্তর : ক. যৌনজননে স্ত্রী ও পুং জননকোষের মিলনে সৃষ্ট কোষকে জাইগোট বলে।

খ. কিশমিশের ভিতরে শর্করার একটি গাঢ় দ্রবণ একটি পর্দা দ্বারা পৃথক হয়ে থাকে। ফলে শুধু পানির অণু কিশমিশের ভিতর ব্যাপন প্রক্রিয়ায় প্রবেশ করে, কিন্তু শর্করার অণু পর্দা ভেদ করে বাইরে আসতে পারে না। এ ক্ষেত্রে কিশমিশের পর্দাটি অর্ধভেদ্য পর্দা হিসেবে কাজ করে। অভিস্রবণ প্রক্রিয়ার কারণে অর্ধভেদ্য পর্দা ভেদ করে কিশমিশের ভিতরের গাঢ় দ্রবণ বের হতে পারে না বলে কিশমিশ পানিতে ডুবালে ফুলে ওঠে।

গ. উদ্দীপকে ১ নম্বর প্রক্রিয়াটি হলো অভিস্রবণ। উদ্ভিদে অভিস্রবণ প্রক্রিয়াটি নিচে দেওয়া হলো।

স্থলজ উদ্ভিদগুলোর মূলরোম মাটির সুরক্ষা কণার ফাঁকে লেগে থাকা কৈশিক পানি অভিস্রবণ প্রক্রিয়ায় নিজ দেহে টেনে নেয়।

মূলরোমের প্রাচীরটি ভেদ্য, তাই প্রথমে ইমবাইবিশন প্রক্রিয়ায় পানি শোষণ করে এবং কোষপ্রাচীরের নিচে অবস্থিত অর্ধভেদ্য প্লাজমা পর্দার সংস্পর্শে আসে। মূলরোমের কোষীয় দ্রবণের ঘনত্বের তুলনায় তার পরিবেশের দ্রবণের ঘনত্ব কম থাকায় পানি কোষের মধ্যে অন্ত অভিস্রবণ প্রক্রিয়ায় প্রবেশ করে। মূলের বাইরের আবরণ থেকে কেন্দ্র পর্যন্ত সব কোষের কোষরসের ঘনত্ব সমান নয়। ফলে কোষান্তর অভিস্রবণের কারণে মূলের এক কোষ থেকে অন্য কোষে পানির গতি অব্যাহত থাকে এবং পরিশেষে পানি কান্ডের জাইলেম বাহিকার মাধ্যমে পাতায় পৌঁছায়।

ঘ. উদ্দীপকের প্রক্রিয়া দুটি হলো অভিস্রবণ ও প্রস্বেদন।

জীবকোষের প্লাজমা পর্দা অর্ধভেদ্য পর্দা হিসেবে কাজ করে। প্লাজমা পর্দা দিয়ে অভিস্রবণ প্রক্রিয়ায় পানিতে দ্রবীভূত বিভিন্ন খনিজ লবণ কোষের মধ্যে প্রবেশ করে বা বাইরে আসে। কোষের রসস্ফীতি ঘটে। কান্ড ও পাতাকে সতেজ এবং খাড়া রাখতে সাহায্য করে। প্রাণীর অন্ত্রে খাদ্য শোষিত হতে পারে। প্রস্বেদনের ফলে উদ্ভিদ তার দেহ থেকে পানি বের করে অতিরিক্ত পানির চাপ থেকে মুক্ত করে। প্রস্বেদনের ফলে কোষরসের ঘনত্ব বৃদ্ধি পায়। কোষরসের ঘনত্ব বৃদ্ধি অন্ত অভিস্রবণের সহায়ক হয়ে উদ্ভিদকে পানি ও খনিজ লবণ শোষণে সাহায্য করে। পাতায় প্রস্বেদনের ফলে জাইলেম বাহিকায় পানির যে টান সৃষ্টি হয় তা মূলরোম কর্তৃক পানি শোষণ ও উদ্ভিদের শীর্ষে পরিবহনে সাহায্য করে। সুতরাং উপরোক্ত আলোচনা থেকে বলা যায়, অভিস্রবণ ও প্রস্বেদন প্রক্রিয়ার মধ্যে পরিবেশের জন্য প্রস্বেদন প্রক্রিয়াটি অধিক উপযোগী।

জ্ঞানমূলক প্রশ্ন

১.            ব্যাপন কাকে বলে?

                উত্তর : একই তাপমাত্রা ও বায়ু মন্ডলীয় চাপে কোন পদার্থের অধিকতর ঘন স্থান থেকে কম ঘন স্থানে বিস্তার লাভ করার প্রক্রিয়াকে ব্যাপন বলে।

২.           ব্যাপন চাপ কী?

                উত্তর : ব্যাপনকারী পদার্থের অণু-পরমাণুগুলোর গতিশক্তির প্রভাবে এক প্রকার চাপ সৃষ্টি হয়, যার প্রভাবে অধিক ঘনত্বযুক্ত স্থান থেকে কম ঘনত্বযুক্ত স্থানে অণুগুলো ছড়িয়ে পড়ে। এ প্রকার চাপকে ব্যাপন চাপ বলে।

৩.           অভেদ্য পর্দা কাকে বলে?

                উত্তর : যে পর্দা দিয়ে দ্রাবক ও দ্রাব উভয় প্রকার পদার্থের অণুগুলো চলাচল করতে পারে না তাকে অভেদ্য পর্দা বলে।

৪.           ভেদ্য পর্দা কাকে বলে?

                উত্তর : যে পর্দা দিয়ে দ্রাবক ও দ্রাব উভয়েরই অণুু সহজে চলাচল করতে পারে তাকে ভেদ্য পর্দা বলে।

৫.           অর্ধভেদ্য পর্দা কাকে বলে?

                উত্তর : যে পর্দা দিয়ে শুধু দ্রবণের দ্রাবক অণু চলাচল করতে পারে কিন্তু দ্রাব অণু চলাচল করতে পারে না, তাকে অর্ধভেদ্য পর্দা বলে।

৬.           অভিস্রবণ কী?

                উত্তর : একই দ্রব্য ও দ্রাবকবিশিষ্ট দুটি ভিন্ন ঘনত্বের দ্রবণ একটি অর্ধভেদ্য পর্দা দ্বারা পৃথক থাকলে যে ভৌত প্রক্রিয়ায় দ্রাবক কম ঘনত্বের দ্রবণ থেকে অধিক ঘনত্বের দ্রবণের দিকে ব্যাপিত হয় তাকে অভিস্রবণ বলে।

৭.           দ্রবণ কাকে বলে?

                উত্তর : দ্রাব ও দ্রাবকের মিশ্রণের ফলে যা উৎপন্ন হয় তাকে দ্রবণ বলে।

৮.           দ্রাবক কাকে বলে?

                উত্তর : যে পদার্থ (সাধারণত তরল) অন্যান্য পদার্থকে (দ্রাব) দ্রবীভূত করতে পারে তাকে দ্রাবক বলে।

৯.           কোষরস কী?

                উত্তর : কোষস্থিত পানি ও দ্রবীভূত খনিজ লবণকে একত্রে কোষরস বলে।

১০.         প্রস্বেদন কী?

                উত্তর : উদ্ভিদের দেহাভ্যন্তর থেকে পাতার মাধ্যমে বাষ্পাকারে পানির নির্গমনের প্রক্রিয়াকে প্রস্বেদন বলে।

১১.         উদ্ভিদের পরিবহন কী?

                উত্তর : উদ্ভিদের মূলরোম দ্বারা শোষিত পানি ও খনিজ লবণ মূল থেকে পাতায় পৌঁছানো এবং পাতায় তৈরি খাদ্যবস্তু সারা দেহে ছড়িয়ে পড়াকে উদ্ভিদের পরিবহন বলে।

অনুধাবনমূলক প্রশ্ন

১.            পলিথিন কোন ধরনের পর্দা ব্যাখ্যা কর।

                উত্তর : যে পর্দা দিয়ে দ্রাবক ও দ্রাব উভয় প্রকার পদার্থের অণুগুলো চলাচল করতে পারে না তাকে অভেদ্য পর্দা বলে। যেহেতু পলিথিনের মধ্য দিয়ে দ্রাবক ও দ্রাব অণুর কোনোটিই প্রবেশ করতে পারে না, তাই পলিথিন একটি অভেদ্য পর্দা।

২.           কী কী শর্ত সাপেক্ষে অভিস্রবণ প্রক্রিয়া ঘটে?

                উত্তর : নিচে অভিস্রবণ প্রক্রিয়ার শর্ত দেওয়া হলো।

                ১. অভিস্রবণের জন্য দুটি দ্রবণ থাকতে হবে, একটির ঘনত্ব কম এবং অন্যটির ঘনত্ব বেশি হবে।

                ২. ভিন্ন ঘনত্বের দ্রবণ দুটি একটি অর্ধভেদ্য ঝিল্লি দ্বারা  পরস্পর পৃথক থাকবে।

                ৩. দুটি দ্রবণ একই দ্রাবক (পানি) বিশিষ্ট হবে।

                ৪. একই তাপমাত্রা ও বায়ুমন্ডলীয় চাপ হতে হবে।

৩.           ইমবাইবিশন বলতে কী বোঝায়?

                উত্তর : কলয়েডধর্মী বিভিন্ন পদার্থ (উদ্ভিদের ক্ষেত্রে কোষপ্রাচীর) যে প্রক্রিয়ায় নানা ধরনের তরল পদার্থ (উদ্ভিদের ক্ষেত্রে পানি) শোষণ করে তাকে ইমবাইবিশন বলে। অধিকাংশ কলয়েডধর্মী পদার্থই পানিগ্রাহী। উদ্ভিদদেহে বিভিন্ন ধরনের কলয়েডধর্মী পদার্থ বিদ্যমান। যেমন স্টার্চ, সেলুলোজ, জিলেটিন ইত্যাদি।

৪.           শুকনো কাঠ পানিগ্রাহী ব্যাখ্যা কর।

                উত্তর : কাঠ সেলুলোজ জাতীয় পদার্থ দ্বারা গঠিত। আর সেলুলোজ হচ্ছে কলয়েডধর্মী পদার্থ। অধিকাংশ কলয়েডধর্মী পদার্থই পানিগ্রাহী। আর শুকনো কাঠে পানির ঘাটতি থাকায় এবং তাদের কলয়েডধর্মী গুণের কারণে ইমবাইবিশন প্রক্রিয়ায় পানি শোষণ করে। তাই শুকনো কাঠ পানিগ্রাহী।

৫.           প্রস্বেদনকে ঘবপবংংধৎু বারষ বলা হয় কেন?

                উত্তর : উদ্ভিদ জীবনে প্রস্বেদন একটি অনিবার্য প্রক্রিয়া। প্রস্বেদনের ফলে উদ্ভিদ তার দেহ থেকে পানিকে বের করে অতিরিক্ত পানির চাপ থেকে মুক্ত করে। প্রস্বেদনের ফলে কোষরসের ঘনত্ব বৃদ্ধি পায়। কোষরসের ঘনত্ব বৃদ্ধি অন্ত  অভিস্রবণের সহায়ক হয়ে উদ্ভিদকে পানি ও খনিজ লবণ শোষণে সাহায্য করে। প্রস্বেদনের ফলে উদ্ভিদদেহ থেকে প্রচুর পানি বাষ্পাকারে বেরিয়ে যায়। এতে উদ্ভিদের মৃত্যুও হতে পারে। তাই আপাতদৃষ্টিতে উদ্ভিদের জীবনে প্রস্বেদনকে ক্ষতিকর প্রক্রিয়া বলেই মনে হয়। এ জন্য প্রস্বেদনকে উদ্ভিদের জন্য হবপবংংধৎু বারষ বলা হয়।

৬.           জাইলেম ও ফ্লোয়েম উদ্ভিদের পরিবহনের পথ ব্যাখ্যা কর।

                উত্তর : উদ্ভিদের পরিবহন বলতে ঊর্ধ্বমুখী ও নিম্নমুখী পরিবহনকে বোঝায়। আর এই পরিবহনের পথ হচ্ছে জাইলেম ও ফ্লোয়েম। উদ্ভিদ মূলরোম দিয়ে পানি ও খনিজ লবণ শোষণ করে। এই শোষণকৃত পানি মূল থেকে পাতায় পৌঁছাতে জাইলেম পরিবহনের পথ হিসেবে কাজ করে। আর পাতায় তৈরি খাদ্য উদ্ভিদের সারা দেহে পৌঁছাতে ফ্লোয়েম পরিবহনের পথ হিসেবে কাজ করে।

৭.           উদ্ভিদের বৃদ্ধির জন্য পানি ও খনিজ লবণ গুরুত্বপূর্ণ কেন?

                উত্তর : উদ্ভিদের বৃদ্ধির জন্য পানি ও খনিজ লবণ গুরুত্বপূর্ণ। উদ্ভিদের কোষের ৮০-৯০ শতাংশ পানি। পানি ছাড়া কোষ সচল থাকতে পারে না। এ ছাড়া বিভিন্ন জৈব রাসায়নিক প্রক্রিয়া সচল রাখার জন্য পানি ও খনিজ লবণের কারণেই কোষ দৈর্ঘ্য-প্রস্থে বৃদ্ধি পায়। ফলে উদ্ভিদের বৃদ্ধি সম্পন্ন হয়।