শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩০ এপ্রিল, ২০২১ ২২:১২

সংসারেও সফল জুটি তাঁরা...

সংসারেও সফল জুটি তাঁরা...
Google News

বলিউডের জনপ্রিয় জুটি তাঁরা। অভিনয় করতে এসে জড়িয়েছেন প্রেমের বাঁধনে। তারপর একসময় ছাদনাতলায় বসে গাঁটছড়া বাঁধা। হয়ে গেলেন একে অপরের সফল জীবনসঙ্গী। এমন কিছু প্রেমিক জুটি যাঁরা বাস্তবে ঘর বেঁধেছেন তাঁদের নিয়ে আজকের আয়োজন তৈরি করেছেন- আলাউদ্দীন মাজিদ

 

দিলীপ কুমার-সায়রা বানু

দিলীপ কুমার ও সায়রা বানু। তাঁদের দুজনের বয়সের তফাৎ ২২ বছরের। একসঙ্গে অভিনয় করে বলিউডকে দিয়েছেন অনেক সফল ছবি। এর মধ্যে একটি হলো- ‘রাম আওর শ্যাম’। বিয়ের আগে দিলীপ কুমারের বড় ভক্ত ছিলেন সায়রা বানু। শয়নে-স্বপনে শুধু তাঁকে নিয়ে ভাবতেন। পরে সায়রার মা নাসিম বানু নিজে দিলীপ কুমারকে তাঁর মেয়ের জন্য বিয়ের প্রস্তাব দেন। ১৯৬৬ সালে যখন বিয়ে হয় তখন সায়রার বয়স ২২ বছর। বিয়ের কয়েক বছরের মধ্যেই সিনেমাকে বিদায় জানান সায়রা। এ দম্পতির কোনো সন্তান নেই। তবে তাঁরা সুখী ও সফল দম্পতি।

 

ধর্মেন্দ্র-হেমা মালিনী

ধর্মেন্দ্র ও হেমা মালিনী। পর্দার পাশাপাশি বাস্তবেও তাঁরা সফল জুটি। পরম সুখে ৪১ বছর ধরে সংসার করছেন তাঁরা। তাঁদের দুই কন্যা এষা ও অহনা দেওল। ধর্মেন্দ্র বিবাহিত থাকার পরও ‘শোলে’ সিনেমার সেটে তাঁদের প্রেম শুরু হয়। এরপর থেকে  ফোনালাপ, নানা রোমান্স, একসময় পরিণয় ঘটে। ধর্মেন্দ্র হেমার প্রেমে এতটাই অন্ধ ছিলেন যে, প্রথম স্ত্রীকে ডিভোর্স না দিয়েই তিনি হেমাকে বিয়ে করেন। আর ধর্মান্তরিত হন। ১৯৭৯ সালে দুজনই ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে বিয়ে করেন। আজও তাঁরা এক ছাদের নিচে সফল সংসার জীবন কাটাচ্ছেন।

 

অমিতাভ বচ্চন-জয়া বচ্চন

বলিউডের শাহেনশাহ অমিতাভ বচ্চন। আর তাঁর অর্ধাঙ্গিনী জয়া বচ্চন। দুজনকে বলিউডের স্বর্ণালি জুটি বলা হয়। জয়া যখন বলিউডে অপ্রতিদ্বন্দ্বী রাজত্বে মশগুল তখন রুপালি দুনিয়ায় সবেমাত্র অমিতাভের অভিষেক। একসঙ্গে ‘মিলি’, ‘অভিমান’-এর মতো ছবিতে অভিনয় করতে গিয়ে তাঁদের মন দেওয়া-নেওয়া শুরু হয়। অবশেষে ১৯৭৩ সালের ৩ জুন দুজন বিয়ের পিঁড়িতে বসেন। এরপর থেকে পরম সুখে সংসার জীবন পার করছেন অমিতাভ আর জয়া বচ্চন। তাঁদের ঘর আলো করে আসে অভিষেক ও শ্বেতা বচ্চন।

 

ঋষি কাপুর-নিতু সিং

বলিউডের জনপ্রিয় পর্দা জুটি ঋষি কাপুর ও নিতু সিং। তাঁরা একে অপরকে এতটাই ভালোবাসতেন যে, ঋষি কাপুরের মৃত্যুর আগ পর্যন্ত কখনো তাঁদের মধ্যে বড় কোনো খুনসুটি হয়নি। ২১ বছর বয়সী নিতু সিং বিয়ের পর বলিউডকে বিদায় জানানোর সিদ্ধান্ত নেন। দীর্ঘদিন পর কামব্যাক করে স্বামীর সঙ্গে ‘লাভ আজ কাল’, ‘দো দুনি চার’ ও ‘জাব তাক হ্যা জান’-এর মতো সিনেমা করে দর্শক ও সমালোচকদের মন জয় করেছেন এ জুটি। অভিনেতা রণবীর কাপুর তাদের পুত্র। এক কন্যা সন্তানও আছে তাঁদের।

 

অজয়-কাজল

‘পেয়ার তো হোনা হি থা’ ও ‘ইশক’সহ বেশ কটি ছবিতে জুটি বেঁধে যেমন সফল হয়েছিলেন অজয় দেবগন ও কাজল জুটি, তেমনি বাস্তব জীবনেও অজয় দেবগনের সঙ্গে কাজলের যুগলবন্দী সুপারহিট।

১৯৯৯ সালে তাঁরা ছাদনাতলায় বসেন। এরপর ৩১ বছর ধরে সুখের ঘরে আলো জ্বেলে রেখেছেন এ দম্পতি। যদিও বলিউডে বারবার গুঞ্জন বাতাসে ভেসে বেড়ায় যে, কাজলের সঙ্গে শাহরুখ খানের মনের সম্পর্ক আছে, তাঁরা নাকি ভালো জুটি। তবে চলচ্চিত্রের মানুষের কথায় এ সম্পর্ক শুধুই পর্দার। বাস্তবে কাজল শুধুই অজয়ের।

 

অক্ষয় কুমার-টুইঙ্কেল খান্না

অক্ষয় কুমার ও টুইঙ্কেল খান্না। এ জুটির প্রেম কাহিনি অনেক মধুর। কথিত আছে, বিয়ের আগে ‘খিলাড়ি’খ্যাত অক্ষয় কুমার ছিলেন নব্বই দশকের প্লে-বয়। তাঁকে ঘিরে অনেক নায়িকার প্রেমের গুজব ছিল। সবকিছুর ইতি হয় যখন তাঁর জীবনে আসেন ডিম্পল কাপাডিয়া ও রাজেশ খান্নার মেয়ে টুইঙ্কেল খান্না। ২০০১ সালে তাঁদের বিয়ে হয়। এরপর ক্যারিয়ার ও জীবন দুটোই পাল্টে গেছে অক্ষয়ের।

 

রণবীর সিং-দীপিকা

বলিউডের আবেদনময়ী নায়িকা দীপিকা পাড়ুকোন। অন্যদিকে রণবীর সিং সেক্সিয়েস্ট পুরুষ। এরা পর্দার বাইরে এসে এখন সদ্য বিবাহিত। বলা যায়, এ সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় জুটি। দীপিকা পাড়ুকোন ২০১৭ সালে রণবীর সিংয়ের সঙ্গে তাঁর সম্পর্কের কথা জানান।

সঞ্জয় লীলা বনশালীর ‘গোলিয়োঁ কী রাসলীলা রাম-লীলা’ ছবির সেটে তাঁদের পরিচয় ও প্রেমের শুরু হয়েছিল। ২০১৮ সালের নভেম্বরে তাঁরা ইতালির লেক কোমোতে কঙ্কানি ও সিন্ধি রীতিতে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। এখন পর্যন্ত তাঁরা সুখে সংসার করছেন।