শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ৪ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩ অক্টোবর, ২০১৯ ২১:৩৩

খুঁত ঢেকে মেকআপ

পুজো মানে নতুন সাজ। তবে ত্বকের খুঁতগুলোকে ঢেকে দিতে পারলে তো বেশ হতো। মেকআপের মায়াবী আবহে ত্বকের খুঁত ঢেকে দেওয়ার সহজ উপায় দেখানো হলো।

খুঁত ঢেকে মেকআপ
ছবি : ফারহান আহমেদ

পুজো মানেই নতুন সাজ। উৎসবে রঙে ঢঙে নিজেকে সাজিয়ে তোলা। দুর্গা উৎসবের এই মহালয়ে একেক দিনের সাজ একেক রকম। কিন্তু এমন খুশির সময় ত্বকের দাগ-ছোপগুলো নিশ্চই ভাবায়। ভাবাবেই না কেন! উৎসবকে ম্লান করে দেওয়ার জন্য সামান্য ডার্ক সার্কেল আর ব্রণের মতো জেদি দাগই যথেষ্ট। তবে কীভাবে মেকআপ করলে দাগ ঢেকে যাবে। রইল তারই কয়েকটা টিপস।

 

ডার্ক সার্কেল, আমরা যাকে চোখের নিচের কালো দাগ নামে বেশি চিনি। শব্দটি ছোট হলেও বিষয়টা কিন্তু একেবারে ছোট নয়। আপনি যতই মেকআপ করুন না কেন, সাধের সাজগোজ নষ্ট করার জন্য সামান্য ডার্ক সার্কেলই যথেষ্ট। উৎসবের আগে বাড়িতে বসে যতই নামিদামি ক্রিম ব্যবহার করুন না কেন দাগ কিন্তু যেতে চায় না। কিন্তু মেকআপের জাদুকরী ছোঁয়ায় ডার্ক সার্কেল বা চোখের নিচের কালো দাগ সরিয়ে ফেলতে পারবেন সহজেই।

 

ডার্ক সার্কেল ঢাকার মেকআপ টিপস

♦   মেকআপ করার আগে শুরুতেই ভালো ক্লিনজার দিয়ে মুখ পরিষ্কার করবেন। এরপর ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। ঠান্ডা পানি মুখ-ত্বকের রক্ত চলাচল স্বাভাবিক করে এবং ফোলাভাব কমায়।

♦   এরপর মুখে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন। চোখের নিচেও ময়েশ্চারাইজার ক্রিম ব্যবহার করতে পারেন। এর ফলে ত্বকে মেকআপও ভালোভাবে বসবে।

♦   প্রথমে মুখে এবং চোখের নিচে প্রাইমার লাগান। এতে মেকআপ ভালো থাকবে। শুষ্ক ত্বকে ময়েশ্চারাইজিং প্রাইমার ভালো। নি®প্রাণ ত্বকে ইলিউসিনেটিং প্রাইমার লাগাতে পারেন এবং তৈলাক্ত ত্বকে ম্যাট প্রাইমার সর্বাধিক কার্যকরী।

♦   এরপর ফাউন্ডেশন লাগান। তবে মেকআপ করার সময় এমন ফাউন্ডেশন নেবেন যা আপনার ত্বকের সঙ্গে মানায়। তবে ফাউন্ডেশন বেছে নেওয়ার জন্য অবশ্যই ত্বকের চেয়ে এক শেড হালকা ফাউন্ডেশন নিয়ে তবেই ব্যবহার করবেন।

♦   এরপর কনসিলারের পালা। কনসিলার সবসময় ত্বকের চেয়ে হালকা শেডের নেবেন। এটি ত্বকের দাগছোপ ঢেকে দেয় সহজেই। চোখের নিচের কালো অংশে মেকআপ লাগিয়ে মেকআপ ব্রাশ বা স্পঞ্জ দিয়ে ভালো করে ব্লেন্ড করে নেবেন। আর হ্যাঁ, খেয়াল রাখবেন কনসিলার যেন ত্বকের সঙ্গে পুরোপুরি মিশে যায়।

♦   কনসিলার যেন দীর্ঘক্ষণ থাকে, তার জন্য চোখের নিচে কমপ্যাক্ট পাউডার লাগিয়ে নিন। এতে চোখের ফোলাভাব কম দেখাবে এবং কনসিলার দীর্ঘক্ষণ থাকবে। এরপর পুরো মুখে কমপ্যাক্ট পাউডার লাগিয়ে নিতে একদমই ভুলবেন না।

♦   দিনে বাইরে বেরোলে ডার্ক আইশ্যাডো না লাগালেই ভালো। হালকা কোনো কালারের আইশ্যাডো ভালো লাগবে। এরপর চোখের কোনার অংশে সাদা আইশ্যাডো লাগিয়ে নেবেন। এর সঙ্গে সরু করে আইলাইনার পরতে পারেন।

♦   ডার্ক সার্কেলের সমস্যা আড়াল করতে হাইলাইটার খুবই কার্যকরী। চিকবোনে হালকা করে হাইলাইটার লাগিয়ে নেবেন। এতে ডার্ক সার্কেলের সমস্যাও চোখে পরবে না এবং গ্ল্যামারস লাগবে।

 

চাই নিয়মমাফিক পরিচর্যা

মেকআপ ছাড়াও ডার্ক সার্কেল দূর করতে নিয়মিত পরিচর্যা নিতে হবে। দিনের বেলায় বাইরে বেরোলে মুখ তো বটেই, চোখের পাতায়ও সানস্ক্রিন লাগাবেন। কারণ, চোখের পাতার অংশ বেশ সংবেদনশীল। এই অংশ রোদের তাপে সহজেই ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ট্যান পড়ে, ফলে চোখের নিচে সহজেই ডার্ক সার্কেল দেখা দেয়।

 

ব্রণের জেদি দাগ দূর করতে

খুব সেজেগুজে বাইরে বেরোবেন। কিন্তু আয়নায় মুখ দেখছেন ভ্রু কুঁচকে। কপালে চিন্তার ভাঁজ। সারা গাল, এমনকি কপাল এবং চিকবোনেও ব্রণের সমস্যা। ঘরোয়া পরিচর্যায় সমাধান হলেও জেদি দাগ! এত রয়ে গেল। আসলে তৈলাক্ত ত্বকে এমন সমস্যা বেশি দেখা দেয়। এমন সমস্যার সমাধানে দিন কয়েক ভালো করে ঘুমান। আর চেষ্টা করুন অতিরিক্ত মসলাযুক্ত খাবার কম খাওয়ার। আর যেটুকু বাকি সেটুকু মেকআপ দিয়ে ঢেকে ফেলুন।

 

♦   মেকআপ শুরুর আগে বরফ কুচি দিয়ে মুখ ঘষুন। এতে ফ্রেশ লাগবে এবং মেকআপও দীর্ঘস্থায়ী হবে। তারপর হালকা কোনো ময়েশ্চারাইজারের সঙ্গে গোলাপজল মিশিয়ে মুখে লাগান। এটা টোনার হিসেবে কাজ করবে।

♦   প্রথমে প্রাইমার এবং ফাউন্ডেশন লাগিয়ে মুখে একটা বেস মেকআপ তৈরি করুন। বিশেষ করে ব্রণের দাগে কয়েকফোঁটা ফাউন্ডেশন লাগিয়ে আঙ্গুল দিয়ে ভালোভাবে ব্লেন্ড করে নিন।

♦   মুখের যে অংশে ব্রণের জেদি দাগ রয়েছে সে অংশের স্কিনটোন অনুযায়ী কনসিলার ব্যবহার করতে পারেন। কনসিলার যেন ভালোভাবে ত্বকের সঙ্গে মিশে তাই স্পঞ্জ ব্যবহার করতে পারেন। তারপর পুরো বেসের সঙ্গে ব্লেন্ড করে নিন।

♦   ত্বকের ধরন বুঝে কমপ্যাক্ট পাউডার ব্যবহার করুন। খুঁত ঢাকতে মেকআপের একটি বড় ধাপ কনটুরিং। চাইলে একটু হাই শেড দিয়ে গালের দুই পাশ এবং নাককে শার্প করতে কনটুরিং করাতে পারেন।

♦   মুখের দাগ পুরোপুরি ঢেকে দিতে পিঙ্কা কালারের ব্রাশ লাগান।

♦   আর হ্যাঁ, হালকা মেকআপে নিজেকে সাজিয়ে তুলতে কাজলের ভূমিকা অস্বীকার করা যায় না। দিনের বেলার সাজে স্মাজপ্রুফ কাজল ব্যবহার করতে পারেন। আর রাতে চোখের সাজে মাশকারা এবং আইলাইনার ব্যবহার করতে পারেন।

♦   পাশাপাশি ঠোঁটের আবেদন না থাকলে যেন সাজটাই মলিন হয়ে যাবে। প্রতিদিন ঠোঁটে একটু নারিকেল তেল লাগান। এতে ঠোঁট নরম হবে এবং ঠোঁটের কালচে দাগ দূর হবে। এখন ম্যাট লিপস্টিকের ফ্যাশন। কিন্তু ঠোঁটটা যদি ময়েশ্চারাইজ না হয় তবে কোনো কিছুই মানাবে না। সকালের সাজে  হালকা লিপস্টিক পরতে পারেন। বেশ মানাবে। আর রাতের সাজে অবশ্যই ডার্ক কালারের লিপস্টিক লাগাতে হবে।

 

লেখা : নূরজাহান জেবিন


আপনার মন্তব্য