শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২ এপ্রিল, ২০২০ ০০:২৭

করোনাভাইরাস

এ সময় মানসিক শক্তি বাড়াতে...

অধ্যাপক ডা. এ এইচ ওয়ালিউল ইসলাম

এ সময় মানসিক শক্তি বাড়াতে...

বিশিষ্ট মনোবিজ্ঞানীর মতে, মানসিক দুশ্চিন্তা হলো,  যে কোনো অস্বাভাবিক পরিস্থিতি যা কিনা আমাদের দৈনন্দিন কাজের ব্যাঘাত ঘটাতে পারে তার বিরুদ্ধে একটা প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থামাত্র। যেহেতু আমরা জানি করোনাভাইরাস কীভাবে ছড়ায় ও প্রতিরোধ করা যায়, সেজন্য অহেতুক রোগের ভয়াবহতায় যা সাধারণত ২-৩% লোকের ক্ষেত্রে  হতে পারে, তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় হতাশ না হওয়াটাই শ্রেয়। বরং ঘরে আবদ্ধ থাকার কারণে একটা নিরাপদ দূরত্ব ও WHO বা UNESCO বা UNICEF  প্রদত্ত নির্দেশ অনুযায়ী এই সময় সুন্দরভাবে উপভোগ করাই শ্রেয়। শত ব্যস্ততার জন্য এই করোনার প্রভাবে হয়তো কিছুটা হলেও আমরা পারিবারিক বন্ধন আরও মজবুত করতে পারব। ঘরে বসে নিজের তথা পরিবার ও সামাজিক নিরাপত্তার জন্য খবরের কাগজ, নিউজ মিডিয়া তথা অনলাইনে বিভিন্ন মেডিকেল জার্নাল বা খবরে করোনার আপডেট জেনে আমরা কিন্তু আমাদের শারীরিক তথা মানসিক দুর্বলতা ও অযথা ভীতি হতে নিজেকে শক্তিশালী করতে সক্ষম করতে পারি। আমাদের স্কুল কলেজের হোম ওয়ার্ক সেরে নিতে পারি। বর্তমানে সরকারি ও বেসরকারি অনেক স্কুল অনলাইন ক্লাসের ব্যবস্থা করেছে। এতে করে আবদ্ধ অবস্থায় জ্ঞান আহরণের পাশাপাশি করোনা ভয় থেকে নিজেকে দূরে রাখা সম্ভব হবে।

অফিস বা ব্যবসার কাজও আমরা তথ্য প্রযুক্তির সুবাদে ঘরে বসে সেরে নিতে পারব। চিকিৎসকরা প্রয়োজনে অনলাইন চিকিৎসা পরামর্শ দিয়ে হতদরিদ্র কৃষক শ্রমিকসহ সবাইকে এই মহামারী থেকে রক্ষা করতে পারবেন। নিজের প্রতি যত্ন নেওয়া অবশ্যই জরুরি। আর এর জন্য ঘরের মধ্যে হালকা ব্যায়াম, সুষম খাদ্য গ্রহণ ও পর্যাপ্ত ঘুম অতীব জরুরি। হাত ধোয়া (২০ সেকেন্ড সাবান দিয়ে পর্যাপ্ত ফেনার মাধ্যমে), মুখের হাইজিন সুরক্ষা (কুসুম গরম পানি দিয়ে সকাল-সন্ধ্যা গড়গড়া, মাউথওয়াশ করা) যা করোনার বিস্তার তথা জটিলতা হতে রক্ষা করতে পারে। কিছুটা সময় মনের প্রস্বস্তির জন্য গান শোনা, অনলাইনে বন্ধুদের সঙ্গে কিছুটা সময় ব্যয় করা, নবেল পড়া, ঘরে বসে কিছু ধর্মীয় কাজ করা যেতে পারে। এছাড়া অনলাইনে সোসাইলাইজেশনের মাধ্যমে হতদরিদ্র খেটে খাওয়া মানুষের জন্য কিছু একটা করতে পারা বা অন্যদের সম্পৃক্ত করে তাদের আর্থিক সাহায্য করা যেতে পারে। আমাদের সবাইকে মানসিক শক্তি অর্জনের মাধ্যমে অযাচিত দুশ্চিন্তা হতে বিরত থেকে এই গ্লোবাল ক্রাইসিসের সময় সম্মিলিতভাবে করোনার মোকাবিলা করতে হবে।

লেখক : ইন্টারভেনশনাল কার্ডিওলজিস্ট, এভারকেয়ার হাসপাতাল ঢাকা।


আপনার মন্তব্য