শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২২ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২২ জুলাই, ২০১৯ ০০:০৩

পানিবন্দী মানুষের সীমাহীন দুর্ভোগ

৬ শিশুসহ সাতজনের মৃত্যু ছড়াচ্ছে পানিবাহিত রোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক

পানিবন্দী মানুষের সীমাহীন দুর্ভোগ
জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার বাহাদুরাবাদ এলাকায় বন্যাকবলিত ঘরবাড়ি -বাংলাদেশ প্রতিদিন

দেশের বিভিন্ন স্থানে নদ-নদীর পানি কমলেও অপরিবর্তিত রয়েছে সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি। এখনো পানিবন্দী রয়েছেন লাখ লাখ মানুষ। ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা ও যমুনা নদীর পানি কমলেও নতুন করে প্লাবিত হতে শুরু করেছে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা। রেললাইন ডুবে যাওয়ায় টানা ষষ্ঠ দিনের মতো বন্ধ রয়েছে গাইবান্ধার সঙ্গে সারা দেশের সরাসরি রেল যোগাযোগ। এদিকে বন্যার পানিতে ডুবে শেরপুর, জামালপুর ও নেত্রকোনায় ছয় শিশুসহ সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। শুধু শেরপুরেই গত সাত দিনে বন্যার পানিতে ডুবে ১৪ শিশুর মৃত্যু হয়েছে। রেল লাইনে পানি থাকায় গত সাত দিন ধরে জামালপুরের সঙ্গে মেলান্দহ-ইসলামপুর-দেওয়ানগঞ্জ এবং পাঁচ দিন ধরে সরিষাবাড়ী-তারাকান্দি-বঙ্গবন্ধু সেতু পর্যন্ত ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর- জামালপুর : যমুনা ও ব্রহ্মপুত্রের পানি কিছুটা কমলেও জামালপুরের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি এখনো অপরিবর্তিত। যমুনার পানি গতকালও বিপদসীমার ১১৪ সেন্টিমিটার ও ব্রহ্মপুত্রের পানি ১৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। বকশীগঞ্জ উপজেলায় বন্যার পানিতে ডুবে মৃত্যু হয়েছে তিন শিশুসহ চারজনের। বন্ধ রয়েছে জামালপুরের সঙ্গে চার উপজেলার রেল যোগাযোগ। গতকাল বকশীগঞ্জ উপজেলায় বন্যার পানিতে ডুবে তিন শিশুসহ চারজনের মৃত্যু হয়েছে। বকশীগঞ্জের সূর্যনগর পূর্বপাড়া গ্রামের শাহীন মিয়ার শিশু কন্যা সুজুনী আক্তার (১১), একই গ্রামের সোলায়মান হোসেনের কন্যা সাথী আক্তার (৮) ও মাসুদ মিয়ার কন্যা মৌসুমী আক্তার (৮) বাড়ির পাশে বন্যার পানিতে কলাগাছের ভেলায় উঠে খেলা করছিল। খেলার সময় ভেলাটি হঠাৎ উল্টে ওই তিন শিশু পানিতে পড়ে যায়। বিকালে সাধুরপাড়া ইউনিয়নের কুতুবেরচর গ্রামে বন্যার পানিতে ডুবে ইয়াছিন মিয়ার ছেলে স্বাধীন মিয়া (২) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়। এ ছাড়াও মেরুরচর ইউনিয়নের রবিয়ারচর গ্রামের আবদুল্লাহ (৭০) নামে এক বৃদ্ধ তার ঘরের পেছনে বন্যার পানিতে গোসল করতে গিয়ে পানিতে পড়ে যান। কিছুক্ষণ পর তার মৃতদেহ পানিতে ভেসে উঠে। শেরপুর : শেরপুর জেলার সদর উপজেলার ১৪ ইউনিয়নের সবগুলো ইউনিয়নের মানুষ বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। রবিবার থেকে পানি না বাড়লেও বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। গতকাল দুপুরে শেরপুরের ঝগড়ারচর এলাকায় সামসুর রহমানের মেয়ে কবিতা (১১) নামক এক শিশু বন্যার পানিতে ডুবে মারা গেছে। রাঙামাটি : দুর্ভোগ কমেনি রাঙামাটির বরকলের প্রায় ১৮টি গ্রামের মানুষের। এখনো রয়েছেন পানিবন্দী।  নেত্রকোনা : নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলায় পানিতে ডুবে জুবায়ের মিয়া (৫) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল বিকালে বাড়ির পাশে বন্যার পানি থেকে শিশুটির ভাসমান লাশ উদ্ধার করে তার পরিবারের লোকজন। চাঁদপুর : সারা দেশের বন্যার পানি নেমে আসার কারণে চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনা নদীতে খর স্রোতের সৃষ্টি হয়েছে।

বন্যা পরিস্থিতি প্রলম্বিত হওয়ার আশঙ্কা : দেশের বন্যা পরিস্থিতি প্রলম্বিত হলে মানুষের কষ্ট বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করেছে সংসদীয় কমিটি। একইসঙ্গে বন্যার কারণে যেন একজন মানুষও কষ্টে না থাকে, না খেয়ে কেউ কষ্ট না পায়- সে জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করেছে কমিটি। সংসদ ভবনে গতকাল অনুষ্ঠিত দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এসব সুপারিশ করা হয়। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন, কমিটির সভাপতি এ বি তাজুল ইসলাম। দুর্যোগ ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান প্রমুখ।

সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার (ছেলুন), মো. আফতাব উদ্দিন সরকার, মীর মোস্তাক আহমেদ রবি, জুয়েল আরেং, মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী এবং কাজী কানিজ সুলতানা অংশগ্রহণ করেন।


আপনার মন্তব্য