শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২২ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২২ জুলাই, ২০১৯ ০০:০৫

সহপাঠীদের সাক্ষ্য

নুসরাতের পোড়া শরীরে পাঞ্জাবি মুড়িয়ে দেই

ফেনী প্রতিনিধি

নুসরাতের পোড়া শরীরে পাঞ্জাবি মুড়িয়ে দেই

ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত হত্যা মামলার চার সাক্ষী আলেম পরীক্ষার্থী তাহমিনা আক্তার, বিবি হাজেরা, আবু বক্কর সিদ্দিক ও দোকানদার মো. আকবর সাক্ষ্য দিয়েছেন। পরে আসামি পক্ষের আইনজীবীরা তাদের জেরা করেন। গতকাল ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশিদের আদালতে তাদের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়। আদালত আজ পর্যন্ত মূলতবি করা হয়েছে। আজ তিন পুলিশসহ পাঁচ সাক্ষী তাদের সাক্ষ্য প্রদান করবেন। আলেম পরীক্ষার্থী তাহমিনা আক্তার বলেন, ঘটনার দিন আমি ৬ নম্বর কক্ষে পরীক্ষার্থী ছিলাম। পরীক্ষা শুরুর কিছুক্ষণ পর মনি পরীক্ষা হলে প্রবেশ করলে স্যার বলেছিলেন এতোক্ষণ কোথায় ছিলে। সে বলেছিল পেটে ব্যথা ছিল তাই দেরি হয়েছে। এর কিছুক্ষণ পর সাইক্লোন সেল্টারের ওপর থেকে নুসরাতের পোড়া শরীর নামানো হচ্ছিল। আমরা সবাই বের হয়ে দেখলাম। কিন্তু মনি একবারও হল থেকে বের হয়নি। বিবি হাজেরার বক্তব্য তাহমিনার বক্তব্যের সঙ্গে মিলে যাওয়ায় তাহমিনার বক্তব্য বিবি হাজেরার বক্তব্য হিসেবে গ্রহণ করা হয়। আমিরাবাদ আলিম মাদ্রাসার ছাত্র আবু বক্কর জানান, আমি ৫ নম্বর হলের পরীক্ষার্থী ছিলাম। ৩ তলা থেকে একটি মেয়ের পোড়া শরীর নামানো হচ্ছে দেখেছি। আমি আমার পাঞ্জাবিটা খুলে তার গায়ে দিয়েছি। পরে জানতে পেলাম তার নাম নুসরাত। ইলেকট্রনিক দোকানদার মো. আকবর জানান, অধ্যক্ষের পক্ষে যে মানববন্ধন হয়েছিল তাতে আমি ছিলাম। ৬ এপ্রিল নুসরাতের গায়ে আগুন দেওয়ার ১৫ মিনিট পর শাহাদাত হোসেন শামীম আমাকে ফোন দিয়ে জানালেন একটি মেয়ে গায়ে আগুন দিয়েছে আপনি কি জানেন? খবর নেন।


আপনার মন্তব্য