শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ আগস্ট, ২০১৯ ২৩:৪৭

চার দিন ধরে খোলা আকাশের নিচে বাসিন্দারা

রূপনগরে বস্তিতে আগুন

নিজস্ব প্রতিবেদক

চার দিন ধরে খোলা আকাশের নিচে বাসিন্দারা

রাজধানীর রূপনগরের চলন্তিকা ও ঝিলপাড় বস্তির প্রায় ১০ হাজার বাসিন্দা চার দিন ধরে খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছেন। খাবার, পোশাক, ওষুধ ও বাসস্থান সমস্যায় একরকম দুর্বিষহ জীবন যাপন করছেন তারা। তবে সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে তাদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করা হচ্ছে। গতকাল দুপুরে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের আগুনে ক্ষতিগস্তদের শাড়ি, লুঙ্গিসহ বিভিন্ন নিত্যপ্রয়োজনীয় সরঞ্জাম বিতরণ করেন। এ সময় ভুক্তভোগীদের উদ্দেশে মন্ত্রী বলেন, আগুনে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন করা হবে। পুনর্বাসন না করা পর্যন্ত সরকারের তরফ থেকে তাদের সাহায্য-সহযোগিতা করা হবে।

শুক্রবার নারী-শিশু বস্তির আগুনে ক্ষতিগ্রস্তদের আশ্রয় দেওয়া হয়েছে স্থানীয় বঙ্গবন্ধু বিদ্যানিকেতনসহ আশপাশের বেশ কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে। এতে কোরবানি ঈদের পর ২০ আগস্ট থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো খোলার কথা থাকলেও পাঁচ দিন পিছিয়ে আগামী ২৪ আগস্ট খোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সামনে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার কারণে ক্লাস না হওয়ায় লেখাপড়ায় কিছুটা ক্ষতি হচ্ছে জানিয়ে বঙ্গবন্ধু বিদ্যানিকেতনের অধ্যক্ষ শাহে আলম বলেন, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলামের নির্দেশে মানবিক কারণে আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত বস্তিবাসীর জন্য স্কুল খুলে আশ্রয় দেওয়া হয়। তবে বেশি দিন এখানে তাদের রাখা যাবে না। তাহলে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ায় বড় প্রভাব পড়বে। আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত বস্তিবাসীকে জায়গা দিয়ে একই ধরনের সমস্যায় পড়েছেন মিরপুর ৭ নম্বর সেকশনের স্কুল কর্তৃপক্ষ। তারাও মানবিক কারণে বস্তিবাসীকে স্কুলে আশ্রয় দিয়েছে। পুড়ে যাওয়া বস্তির বাসিন্দারা জানান, আগুনের সময় তারা এক কাপড়ে ঘর থেকে বের হয়েছেন। এখন তারা চরম অনিশ্চয়তার মধ্যে রয়েছেন। তারা বস্তিতে ফিরতে চান।

স্কুলে আশ্রয় পাওয়া বস্তিবাসী কত দিন এভাবে খোলা আকাশের নিচে থাকবেন, জানতে চাইলে স্থানীয় কাউন্সিলর রজ্জব আলী বলেন, ‘আজ (গতকাল) দুপুরে সেতুমন্ত্রী এসে বলে গেছেন, খুব তাড়াতাড়ি বস্তিবাসীকে পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা হবে। মেয়রসহ আমরা তেমন চেষ্টাই করছি। আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত বস্তির খালি জায়গায় এখনো ঘর করার অনুমতি দেওয়া হয়নি।

সব ঠিক করে দ্রুতই তাদের অনুমতি দেওয়া হবে।’ এদিকে আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত বস্তিবাসী মজিবর রহমান বলেন, সিটি করপোরেশন ও স্থানীয় সংসদ সদস্যের পক্ষ থেকে তাদের দুপুর ও রাতে দুই বেলা খাবার দেওয়া হচ্ছে। দুপুরে তাদের সাদা ভাত ও গরুর গোশত খাওয়ানো হয়েছে।

স্থানীয় আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে ১৫ আগস্টের জন্য বরাদ্দ থাকা চারটি গরু বস্তিবাসীর খাবারের জন্য দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে তিনটি গরু এরই মধ্যে জবাই করে তাদের খাওয়ানো হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যায় রূপনগরের চলন্তিকা ও ঝিলপাড় বস্তিতে আগুন লাগে। ফায়ার সার্ভিসের ২৪ ইউনিট তিন ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর