Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১০ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ অক্টোবর, ২০১৭ ২৩:২৭

শেখ জামাল-আবাহনী জেতেনি কেউ

ক্রীড়া প্রতিবেদক

শেখ জামাল-আবাহনী জেতেনি কেউ
ঢাকা আবাহনী-শেখ জামাল হাইভোল্টেজ ম্যাচ। শেষ পর্যন্ত দুই দল পয়েন্ট ভাগাভাগি করে মাঠ ছাড়ে —বাংলাদেশ প্রতিদিন

চট্টগ্রাম আবাহনী আগের দিন সাইফ স্পোর্টিংয়ের সঙ্গে ড্র করে। এতে করে পয়েন্টের ব্যবধান কমানোর সুযোগ ছিল শেখ জামাল ও ঢাকা আবাহনীর। না, হাইভোল্টেজ ম্যাচটি ১-১ গোলে ড্র থাকায় চট্টগ্রাম আবাহনীর পেশাদার ফুটবল লিগে প্রথম পর্বে শীর্ষে থাকাটা নিশ্চিত হয়ে গেল। ১০ ম্যাচে তাদের সংগ্রহ ২৬। তাই শেষ ম্যাচে ঢাকা আবাহনীর কাছে যদি হেরে যায় তবু শীর্ষে থাকবে মামুনুলরা। গতকালের ম্যাচে ড্র করায় শেখ জামাল ও ঢাকা আবাহনীর পয়েন্ট দাঁড়াল একুশে। সাইফ স্পোর্টিং সংগ্রহ করেছে ১৯ পয়েন্ট। নিজেদের অবস্থান মজবুত করতে দুই দলেরই জয় জরুরি ছিল। তাহলে শীর্ষে থাকা চট্টগ্রাম আবাহনীর ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলতে পারত। বিশেষ করে আগের ম্যাচে হেরে যাওয়ায় শেখ জামালের জয়টা প্রয়োজন ছিল। কিন্তু কেউ জেতেনি, পয়েন্ট ভাগাভাগি করে মাঠ ছেড়েছে দুই জায়ান্ট। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত এই ম্যাচে তেমন দর্শক সমাগম না হলেও আক্রমণ আর পাল্টা আক্রমণে লড়াইটি উপভোগ্য হয়ে ওঠে। তুলনামূলকভাবে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ রাখে শেখ জামাল। কিন্তু সুযোগ নষ্ট করায় গোলের দেখা পাচ্ছিল না তারা। ২৪ মিনিটে সতীর্থদের বাড়ানো বলে ডি বক্সের ভিতরে পেলেও সহজ সুযোগ নষ্ট করেন শেখ জামালের সলোমন কিং। শট নিলেই জালে বল। গাম্বিয়ান এই ফুটবলার বলের নিয়ন্ত্রণই রাখতে পারেননি। পাঁচ মিনিট পর আরও একটি সুযোগ হাতছাড়া হয় শেখ জামালের। ৩৮ মিনিটে অবশ্য নাবীব নেওয়াজ জীবন পোস্টে শট নিতে ব্যর্থ হওয়ায় আবাহনীও গোলের সুযোগ হাতছাড়া করে। প্রথমার্ধে গোল আর হয়নি। ৫৭ মিনিটে এগিয়ে যায় আবাহনী। ওয়ালী ফয়সালের ক্রসে বল পেয়ে গোল করেন জীবন। আক্রমণ করেও সমতায় ফিরতে পারছিল না শেখ জামাল। মনে হচ্ছিল আবাহনী জিতেই মাঠ ছাড়বে। শেষ পর্যন্ত ইনজুরি টাইমে স্বস্তি ফিরে আসে জামালের শিবিরে। ডি বক্সে জটলার বল পেয়ে দুর্দান্ত শটে গোল করেন জাহিদ পারভেজ চৌধুরী। ম্যাচ ১-১ গোলে ড্র হয়। তবে রেফারি ঠিকমতো চোখ রাখলে ম্যাচটি হয়তো শেখ জামালই জিতে যেত। কেননা ৮৪ মিনিটে রাফায়েলের শট আবাহনীর গোলরক্ষক সোহেল ফেরানোর পর সামনে থাকা সলোমন ফিরতি শট নেন। গোল লাইন থেকে বাদশা তা রক্ষা করেন। গ্যালারি থেকে মনে হয়েছে বলটি টার্চ লাইন ক্রস করেছে। রেফারি গোল না দেওয়ায় কোচ আফুসিকে মাঠে ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা যায়। দুর্ভাগ্য বলতে হয় শেখ জামালের। রেফারির অসতর্কতায় জেতা ম্যাচ ড্র করে মাঠ ছাড়তে হয় তাদের।


আপনার মন্তব্য