Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:১৯

চোখ থাকবে রোনালদো-নেইমারে

রাশেদুর রহমান

চোখ থাকবে রোনালদো-নেইমারে

বড় বড় তারকাদের নিয়ে এই এক সমস্যা। ওরা যাই করুক, ভক্তকুল যেমন লাঠি হাতে পিছনে দাঁড়িয়ে যায় তেমনি সমালোচকগোষ্ঠীর তীক্ষ্ন তীর ছুটে আসে। রোনালদো এতদিন গোল পাননি। ভক্তদের ভাষ্য, একজন তারকাকে কী প্রতিটা ম্যাচেই গোল করতে হবে নাকি! অন্যদিকে সমালোচকদের ভাষ্য, তেত্রিশ থেকে চৌত্রিশে পা দিয়েই রোনালদোর জারিজুরি সব খতম! গোলের বিতর্কটা গত শনিবারেই শেষ করেছেন রোনালদো দারুণ এক হ্যাটট্রিক করে। কিন্তু হ্যাটট্রিক ম্যানের তীর্যক অঙ্গুলি নির্দেশ সমালোচকদের ঠিক পছন্দ হলো না। তাদের দাবি, এটা রোনালদোর বাড়াবাড়ি। অহঙ্কার। সে যাই হোক, ভক্তরা কিন্তু এবার আশায় বুক বেঁধেছেন। অন্তত চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ট্রফিটা রোনালদো জিতিয়ে দিবেন এ মৌসুমে।

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে শেষ ষোলর প্রথম লেগ খেলতে আজ নেইমারদের পিএসজি আসছে সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে। এই খবরটা পুরনো হলেও নতুন করে ভীতি জেগেছে লস ব্ল্যাঙ্কোসদের মনে। কেউ কেউ তো নেইমারের জন্য অভিশাপই দিয়ে রেখেছেন। ‘নেইমারকে আটকানোর ফর্মুলাটা আমরা জানি না। একটাই আশা করব, বুধবারটা যেন নেইমারের জীবনে একটা খারাপ দিন হয়।’ রিয়াল ডিফেন্ডার দানি কার্ভাহালের অভিশাপটা নেইমারের উপর কতটা প্রভাব ফেলবে বলা কঠিন। তবে সত্যিটা হলো, বার্সেলোনা থেকে অনেকটা জোর করে নেইমারকে দলে টেনে পিএসজি এখন ইউরোপ সেরার তকমা নিয়ে টানাটানি শুরু করেছে। পিএসজির আর্জেন্টাইন তারকা অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া যেমনটা বললেন, ‘গতবারের চেয়ে আমাদের শক্তি এবার অনেক বেশি। রিয়ালের বিরুদ্ধে আমাদের কেউ আন্ডারডগ ভাবলে ভুল করবে।’ ডি মারিয়ার কথায় যথেষ্ট যুক্তি রয়েছে। লিওনেল মেসি আর ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো গত এক দশকে যেমন একক আধিপত্য বিস্তার করে রেখেছিলেন, তা আর নেই। মেসি-রোনালদো দুজনেই ত্রিশ পেরিয়ে গেছেন। গোলের ধারা দুজনেই ধরে রেখেছেন। কিন্তু নতুনরাও কম যাচ্ছে না। নেইমার, এমবাপ্পে, হ্যারি কেইন, আগুয়েরোরা দুরন্ত গতিতে ছুটে চলেছেন। চলতি মৌসুমে মেসি ৩৬ ম্যাচে ২৭ গোল করেছেন। রোনালদো করেছেন ২৮ ম্যাচে ২৩ গোল। অথচ টটেনহ্যামের ইংলিশ স্ট্রাইকার হ্যারি কেইন ৩৩ ম্যাচেই করেছেন ৩২ গোল! আগুয়েরোর গোল সংখ্যা ৩২ ম্যাচে ২৮টি। এই কারণেই বুঝি লিওনেল মেসি বলে দিলেন, সামনের লড়াই অনেক কঠিন হবে। এখন আর দুজনের মধ্যে নেই শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইটা।

নেইমার চলতি মৌসুমে পিএসজির জার্সিতে ২৭ ম্যাচে ২৮ গোল করেছেন। এসিস্টের সংখ্যাটাও নেহাত কম নয়। এই ভয়ঙ্কর তারকাকে রুখবার জন্য ভিন্ন মন্ত্রই জঁপতে হবে রিয়াল মাদ্রিদকে। গত দুবারের উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগজয়ী ক্লাবটা এবার শেষ ষোলতেই না আবার বিদায় নেয়! তবে রোনালদো কিন্তু চূড়ান্ত হুমকির সুরে বলেছেন, ‘এই দুটি ম্যাচ ভালো খেলতেই হবে। আমরা কিন্তু ঐক্যবদ্ধ দল। ফলের জন্য একই সঙ্গে লড়াই করি।’ রোনালদোর এই হুমকিতে কতটা ভয় পাবেন নেইমাররা!


আপনার মন্তব্য