শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ২৪ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৪ জুলাই, ২০২০ ০০:১৯

১০৭৮ উইকেটের বোলিং জুটি বনাম তারুণ্যে ভরা ব্যাটিং

ইংল্যান্ড-উইন্ডিজ তৃতীয় টেস্ট শুরু আজ

মেজবাহ্-উল-হক

এখন যারা খেলছেন-এমন বোলারদের তালিকা করলে অ্যান্ডারসন এক নম্বরে এবং দুইয়ে থাকবেন ব্রড। দুই ইংলিশ পেস কিংবদন্তির উইকেটের যোগফল ১০৭৮। ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে আজ থেকে শুরু হওয়া টেস্টে দুই সহস্রাধিক উইকেট শিকারি পেস জুটির সামনেই পরীক্ষা দিতে হবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের তারুণ্যে ভরা ব্যাটিং লাইনআপকে।

সাদা পোশাকে জেমস অ্যান্ডারসনের উইকেট সংখ্যা এখন ৫৮৭। টেস্ট ইতিহাসে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি পেসার। স্টুয়ার্ট ব্রডের উইকেট ৪৯১। চতুর্থ সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি পেসার।

স্পিনারদের কথা আমলে নিলে উইকেট শিকারের দিক দিয়ে অ্যান্ডারসন চতুর্থ এবং ব্রড সপ্তম। তবে এখনো যারা খেলছেন-এমন বোলারদের তালিকা করলে অ্যান্ডারসন এক নম্বরে এবং দুইয়ে থাকবেন ব্রড। দুই ইংলিশ পেস কিংবদন্তির উইকেটের যোগফল ১০৭৮। ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে আজ থেকে শুরু হওয়া টেস্টে দুই সহস্রাধিক উইকেট শিকারি পেস জুটির সামনেই পরীক্ষা দিতে হবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের তারুণ্যে ভরা ব্যাটিং লাইনআপকে।

সাউদাম্পটন টেস্টে খেলেছেন অ্যান্ডারসন, ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে একাদশে ছিলেন ব্রড। অ্যান্ডারসন প্রথম ইনিংসে তিন উইকেট নিয়েও দ্বিতীয় ইনিংসে বোলিংয়ে ক্যারিশমা দেখাতে পারেননি। ম্যাচে ইংলিশরাও হেরে যায়। তবে হারের পেছনে বড় কারণ ছিল ব্যাটসম্যানদের নিষ্প্রভ থাকা।

ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে অ্যান্ডারসনকে বিশ্রামে রাখা হয়। সুযোগ পাওয়া ব্রড দুর্দান্ত বোলিং করেন। দুই ইনিংসেই তিনটি করে উইকেট নিয়ে জয়ে রাখেন বড় ভূমিকা।

সিরিজে এখন ১-১ ড্র। আজ থেকে ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে শুরু হচ্ছে ফাইনাল টেস্ট। জয়ের জন্য মরিয়া হয়েই মাঠে নামবে ইংলিশরা। এদিকে দলের সেরা বোলার জোফরা আর্চার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বর্ণবাদের শিকার হয়ে আছেন বিপর্যস্ত অবস্থায়। ‘বায়ো-সিকিউর বাবল’ প্রটোকল ভাঙার কারণে দ্বিতীয় টেস্টে খেলতে পারেননি। এই টেস্টেও খেলতে পারবেন কিনা!

শেষ পর্যন্ত আর্চার খেলতে না পারলে অ্যান্ডারসন-ব্রড জুটিই আজ ইংলিশদের বোলিং আক্রমণের প্রধান অস্ত্র। তবে আর্চার ফিরলেও কোচ সিলভারউড শিরোপা নির্ধারণী টেস্টে কোনো রকম ঝুঁকি না নিয়ে দুই সিনিয়র পেসারকে একসঙ্গে খেলাতে পারেন।

ব্যাটিং লাইনআপ নিয়ে স্বাগতিকদের ভাবার কিছু নেই। সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজের বোলিং লাইনআপও টেস্টের পরীক্ষিত শক্তি! উভয় দলই এই টেস্টে প্রতিপক্ষের দুর্বল জায়গায় আঘাত করার কৌশল নিয়ে মাঠে নামবে। তাই সিরিজ নির্ধারণী টেস্টে আসল লড়াইটা হবে ইংল্যান্ডের বোলিং বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটিং।

ক্যারিবীয় কিংবদন্তি ব্রায়ান লারা সিরিজ শুরুর আগে উইন্ডিজের ব্যাটিং লাইনআপ নিয়ে খুবই সংশয় প্রকাশ করেছিলেন। পঞ্চম দিন পর্যন্ত নাকি টিকতেই পারবে না ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যানরা। কিন্তু লারার কথাকে ভুল প্রমাণ করে দিয়ে সাউদাম্পটনে পঞ্চম দিনে দুর্দান্ত ব্যাটিং করেই জয় তুলে নিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

ছয় নম্বরে ব্যাট করতে নামা জ্যামাইকার জার্মেইন ব্ল্যাকউডের কী দারুণ ব্যাটিং! প্রথম টেস্টে তিনি পঞ্চম দিনে ইংল্যান্ডের পরীক্ষিত বোলারদের সামনে বুক চিতিয়ে লড়াই করে ৯৫ রানের জাদুকরী এক ইনিংস খেলে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে এনে দিয়েছিলেন দারুণ এক জয়। দ্বিতীয় টেস্টেও লড়াই জমিয়ে তুলেছিলেন। ৫৫ রানের ইনিংস খেলে ভয় ধরিয়ে দিয়েছিলেন ইংলিশদের মনে। এ ছাড়া ডওরিচ, চেজ, ব্রুকস দারুণ ব্যাটিং করছেন। দারুণ ফর্মে আছেন ওপেনার ব্রাথওয়েটও। দুই টেস্টে দুটি হাফ সেঞ্চুরি করেছেন। এই টেস্টেও শুরুটা ভালো করতে পারলে ইংলিশ বোলারদের জন্য কাজটা অনেক চ্যালেঞ্জিং হয়ে যাবে।

জেসন হোল্ডারের চোখেমুখে এখনো রেকর্ডের হাতছানি। এই টেস্টে জিততে পারলে ইংল্যান্ডের মাটিতে ৩২ বছর পর টেস্ট সিরিজ জয়ের আনন্দে মেতে উঠতে পারবেন ক্যারিবীয়রা।

ইংলিশ অধিনায়ক জো রুটের জন্য এটা অনেক বড় চ্যালেঞ্জ। সর্বশেষ সিরিজে তারা দক্ষিণ আফ্রিকায় গিয়ে ৩-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতেছে। আর ঘরের মাঠে ক্যারিবীয়দের সিরিজে হারাতে না পারলে যে আত্মবিশ্বাসেই বড় চোট লাগবে। তাই সতর্ক হয়েই মাঠে নামছে ইংল্যান্ড।

প্রথম টেস্টে হারলেও দ্বিতীয় টেস্টে জিতে স্বাগতিকরা এখন আত্মবিশ্বাসের তুঙ্গে। তা ছাড়া ক্যারিবীয়দের পার্টি মাটি করে দেওয়ার জন্য ‘মিস্টার অবিশ্বাস্য’ বেন স্টোকস তো আছেনই।

ক্যারিবীয় ক্যাপ্টেন হোল্ডার কি পারবেন তার ক্ষুরধার মস্তিষ্কের ক্যারিশম্যাটিক পরিকল্পনা কাজে লাগিয়ে এবং জাদুকরী নৈপুণ্য প্রদর্শন করে ‘মিস্টার অবিশ্বাস্য’কে আটকে দিয়ে ইংল্যান্ডের মাটিতে নতুন যুগের সূচনা করতে?


আপনার মন্তব্য