শিরোনাম
প্রকাশ : ৬ এপ্রিল, ২০২০ ১৩:০১

ভয় লাগে, এমন পরিস্থিতি পৃথিবীতে আগে দেখিনি: সৌরভ গাঙ্গুলি

অনলাইন ডেস্ক

ভয় লাগে, এমন পরিস্থিতি পৃথিবীতে আগে দেখিনি: সৌরভ গাঙ্গুলি
সৌরভ গাঙ্গুলি

এখন তো টোটাল লকডাউন, ছুটিতে আছি। আর মানুষের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছি। মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দান করলাম। দেড় লাখ কেজি চাল দিয়েছি যাদের প্রয়োজন সে রকম মানুষদের। খাবার পৌঁছে দিচ্ছি। এর পাশাপাশি ১০ হাজার পিপিই (পার্সোনাল প্রোটেক্টিভ ইকুইপমেন্ট) কিট দেব। বেলুড় মঠে দু’হাজার কেজি চাল দিলাম। ওঁরা প্রচুর গরিব মানুষকে খাওয়ান। ওঁদের মাধ্যমে ঠিক জায়গায় পৌঁছনো যায়। আমি তো নিজে পৌঁছতে পারি না সব জায়গায়, সে জন্য ‘ইস্কন’-এর সঙ্গে টাই আপ করেছি। আমার আর আমার ফাউন্ডেশনের (সৌরভ গাঙ্গুলি ফাউন্ডেশন) পক্ষ থেকে প্রতিদিন পাঁচ হাজার মানুষকে খাওয়াই। এসবই করছি এখন, যতটা আমাদের পক্ষে সম্ভব। এভাবেই মানুষের পাশে আছি। সবাইকে মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে। না হলে সিচুয়েশন থেকে বেরোনো যাবে না। খুব টাফ সিচুয়েশন। আমি জীবনে কখনও এ রকম দেখিনি।

কথাগুলো গণমাধ্যমকে বলছিলেন ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি ও ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলি।

বাড়ির কাজও করছেন? এ প্রশ্নের জবাবে গাঙ্গুলি বলেন, কিছুই করি না। ফ্যামিলির মানুষদের সঙ্গে প্রচুর গল্প করছি। আর অনলাইনে বসে বিসিসিআই-এর কাজ করছি। অনেক ইমেল করতে হয়, অনেক কন্ট্যাক্ট করতে হয়।

আপনার স্ত্রী ডোনা এবং কন্যা সানা বাড়ি কি সামলাচ্ছেন? উত্তরে বিসিসিআই সভাপতি বললেন, না, সানাকে কিছু করতে হয় না। ডোনা আছে, মা আছেন, বাড়িতে আরও মানুষরা আছেন, তারাই বাড়ি সামলাচ্ছেন।

 

সারা দিন কী করছেন, জানতে চাইলে গাঙ্গুলি বলেন- বাড়িতেই থাকি বাড়ির মানুষদের সঙ্গে। আর সুইমিং করি, এক্সারসাইজ করি যাতে শরীরটাকে রেজিস্ট্যান্ট করে তুলতে পারি। এক্সারসাইজ ইজ ভেরি ইম্পর্ট্যান্ট। ডায়েট মেনটেন করি। গরম পানি, মধু খাই। প্যারাসিটামল খেতে থাকি যাতে টেম্পারেচার না আসে। করোনার তো কোনও ওষুধ নেই, আপাতত সেভাবে কোনও চিকিৎসা নেই। তাই যতটা ঠিক থাকা যায়। 

বাইরে গেলে কীভাবে সংস্পর্শ এড়ানোর চেষ্টা করছেন? এ ব্যাপারে তিনি বলেন, বেলুড় মঠ ছাড়া আর কোথাও যাইনি। সূত্র: আনন্দবাজার

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য