শিরোনাম
প্রকাশ : ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১০:১০
আপডেট : ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১০:৩৫
প্রিন্ট করুন printer

চট্টগ্রাম টেস্ট: চতুর্থ দিন মাঠে নেমেছে টাইগাররা

অনলাইন প্রতিবেদক

চট্টগ্রাম টেস্ট: চতুর্থ দিন মাঠে নেমেছে টাইগাররা
সংগৃহীত ছবি

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে ২১৮ রানে এগিয়ে তৃতীয় দিন শেষ করে বাংলাদেশ। তারপরও অতীত রেকর্ডের বিচারে জয়ের স্বপ্ন দেখতে পারেন মুমিনুলরা। জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে চতুর্থ ইনিংস তাড়া করে ম্যাচ জয়ের রেকর্ড সাকল্যে তিনটি। তাড়া করে চার নম্বর জয়ের সুযোগ রয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সামনে। এজন্য আজ চতুর্থ দিন বাংলাদেশকে কম রানে অলআউট করতে হবে। এখানে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ রান তাড়া করে ম্যাচ জেতার রেকর্ড নিউজিল্যান্ডের। বাংলাদেশের ৩১৭ রান ছুড়ে দেওয়া টার্গেট ব্ল্যাক ক্যাপসরা টপকেছিল ৭ উইকেট হারিয়ে। 

চলতি টেস্টে তৃতীয় দিন শেষে মুমিনুল হকের বাংলাদেশ ৩ উইকেটে ৪৭ রান করে। এখন দ্বিতীয় ইনিংসে কতদূর গিয়ে থামবে টাইগাররা, সেটা আজ শনিবার বোঝা যাবে। কিন্তু তার আগে টেস্ট জয়ের বিষয়ে আত্মবিশ্বাসী হতেই পারে মুমিনুল বাহিনী। জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে এর আগে আরও একবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে একটি টেস্ট খেলেছিল বাংলাদেশ এবং জিতেছিল ৬৪ রানে। অতীত রেকর্ডই আত্মবিশ্বাস জোগাচ্ছে টাইগারদের। এজন্য অবশ্য টাইগারদের কঠিন লড়াই করতে হবে। কেননা দলের মূল ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান কুঁচকির টানের জন্য মাঠের বাইরে। খেলতে পারবেন কিনা, নিশ্চিত নয়। 

গতকাল শুক্রবার (৫ ফেব্রুয়ারী) জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে শেষ সেশনটি হঠাৎ করেই রং বদলে দেয়। সফরকারী ক্যারিবীয়রা তাদের শেষ ৫ উইকেট হারায় মাত্র ৬ রানের ব্যবধানে ২২ বলের মধ্যে। ২৫৩ রানে ষষ্ঠ উইকেটের পতনের পর ২৫৯ রানে অলআউট। ১৭১ রানে এগিয়ে যাওয়ার সুবিধাকে অবশ্য কাজে লাগাতে পারেনি টাইগাররা। দ্বিতীয় ওভারে মাত্র ৩ বলের ব্যবধানে ১ রানের মধ্যে হারায় তামিম ও নাজমুলকে। ৩৩ রানে ফিরে যান সাদমান। ৩ উইকেট হারিয়ে কোণঠাসা দলকে এগিয়ে নিয়ে যান অধিনায়ক মুমিনুল ও মুশফিকুর রহিম।  আজ শনিবার চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ দিন শুরু করেছে হাতে ৭ উইকেট ও স্কোরবোর্ডে ৪৭ রান নিয়ে। এখন ক্রিজে আছেন অপরাজিত ২ ব্যাটসম্যান মুমিনুল হক (৪১) ও মুশফিকুর রহিম (১৫)। 

প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের সংগ্রহ ছিল ৪৩০ রান এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের ২৫৯ রান। জহুর আহমেদে বাংলাদেশ আগের ১৯ টেস্টে জিতেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। ক্যারিবীয়দের ৬৪ রানে হারিয়েছিল ২০১৮ সালে। জিম্বাবুয়েকে হারিয়েছিল ১৮৬ রানে। এ মাঠে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ দলগত স্কোর বাংলাদেশের ৩৩১। তাড়া করে জয়ের রেকর্ড ৩১৭ রান। এ ছাড়া শ্রীলঙ্কা জিতেছে ১৮৬ এবং অস্ট্রেলিয়া ৮৭ রান তাড়া করে। ক্যারিবীয়রা এর আগে টাইগারদের ছুড়ে দেওয়া ২০৩ রান তাড়া করতে নেমে তাইজুলের ঘূর্ণিতে ১৩৯ রানে গুটিয়ে হেরেছিল। আশ্চর্য হলেও সত্যি, ওই জয়ের চার স্পিনারই খেলছেন এবার। তবে কুঁচকির টানের জন্য সাকিবের স্পিন সহায়তা পাচ্ছে না টাইগাররা।


বিডি-প্রতিদিন/সিফাত আব্দুল্লাহ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৯:৫১
প্রিন্ট করুন printer

গোলশূন্য ড্র করেও শেষ ষোলোতে ম্যানইউ

অনলাইন ডেস্ক

গোলশূন্য ড্র করেও শেষ ষোলোতে ম্যানইউ

রিয়াল সোসিয়েদাদের বিপক্ষে বৃহস্পতিবার গোলশূন্য ড্র করল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। তারপরও ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ ক্লাবের শেষ ষোলোয় উঠেছে দলটি।

৪-০ গোলে প্রথম লেগ জিতে পরের ধাপে এক পা দিয়েই রেখেছিল ইউনাইটেড। বৃহস্পতিবার ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে দ্বিতীয় লেগে গোলপোস্ট অক্ষত রেখে বাকি আনুষ্ঠানিকতা সারলো তারা।

বড় ব্যবধানে প্রথম লেগ জিতলেও ম্যানইউ কোচ উলা গুনার সুলশার যে আত্মতৃপ্তিতে ভুগছিলেন না, তা কিছুটা প্রমাণিত হয় শক্তিশালী দল নামানোয়। ব্রুনো ফার্নান্দেস ও অ্যান্থনি মার্শাল ছিলেন শুরু থেকে। তবে সোসিয়েদাদ তৈরি করে প্রথম সুযোগ। ড্যানিয়েল জেমসের চ্যালেঞ্জে ১৩তম মিনিটে পেনাল্টি পায় অতিথিরা। ভাগ্য সহায় হয়নি তাদের, অধিনায়ক মাইকেল ওয়ারজাবালের উঁচু শট গোলবারের পাশ দিয়ে যায়।

ইউনাইটেড লিড বাড়িয়ে নিতে মরিয়া ছিল। ফার্নান্দেস ২৪ মিনিটে ক্রসবারে আঘাত করেন। ৩৬ মিনিটে তার তুলে দেওয়া বলে জেমসের হেড সেভ করেন রেমিরো। বিরতিতে দুই দলই তিনটি বদল আনে। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে মার্কাস র‌্যাশফোর্ডের ফ্রি কিক অল্পের জন্য ঠিকানা খুঁজে পায়নি। অতিথিদের হয়ে মোদিবো সাগনানের হেড লাগে গোলবারে।

ম্যানইউর বদলি নামা অ্যাক্সেল টুয়ানজেবের হেড ৬৩ মিনিটে জালে জড়ালেও ভিএআরে বাতিল হয়। গোলটি বিল্ড আপের সময় ভিক্তর লিন্ডলফ ফাউল করেছিলেন জন বাতিস্তাকে। ম্যাচের শেষ সময়ে নামেন শোলা শোরেটায়ার। ইউরোপিয়ান মঞ্চে ইউনাইটেডের সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড়ের মর্যাদা পান ১৭ বছর ২৩ দিন বয়সী এই ফরোয়ার্ড।

সুলশার বলেন, গত বছরের চেয়েও এবার বেশি দূর যেতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ ম্যানইউ। গত মৌসুমে ইউরোপা লিগ, এফএ কাপ ও লিগ কাপের সেমিফাইনাল খেলেছিল তারা। যদিও এই মৌসুমের লিগ কাপ সেমিতে ম্যানসিটির কাছে হেরে গেছে তারা। ম্যানইউ কোচ বলেছেন, ‘জয়ের চেয়ে আপনারা হারের কথাই বেশি মনে রাখেন। যে কোনও প্রতিযোগিতায় সেমিফাইনালে ওঠা মানে অনেক কাছে পৌঁছানো। গতবার তিনবার সেখানে ছিলাম, এ বছর একটা হেরে গেছি, সুতরাং এই দল জানে এটা কেমন অনুভূতি। আমরা আরও দূরে যেতে চাই।’


এদিকে ঘরের মাঠে নাপোলি ২-১ গোলে দ্বিতীয় লেগ জিতেও বিদায় নিয়েছে। প্রথম লেগে ২-০ গোলে জিতে দুই লেগের অগ্রগামিতায় ৩-২ এ শেষ ষোলোতে উঠেছে গ্রানাদা। ১০ জনের রেড স্টার বেলগ্রেডের সঙ্গে ১-১ গোলের ড্র করেও দুই লেগের অগ্রগামিতায় ৩-৩ এ পরের ধাপে এসি মিলান। আগের লেগে প্রতিপক্ষের মাঠে ২-২ গোলে ড্র করেছিল ইতালিয়ান জায়ান্টরা। অ্যাওয়ে গোলে এগিয়ে থাকায় শেষ ষোলোতে মিলান।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৯:৩৩
প্রিন্ট করুন printer

নাটকীয়তার ম্যাচে শেষ মুহূর্তে গোল, শেষ ষোলোর টিকিট পেল আর্সেনাল

অনলাইন ডেস্ক

নাটকীয়তার ম্যাচে শেষ মুহূর্তে গোল, শেষ ষোলোর টিকিট পেল আর্সেনাল

উয়েফা ইউরোপা লিগের শেষ ষোলো নিশ্চিত করেছে আর্সেনাল। 

শেষ ৩২ এর ফিরতি লেগে বৃহস্পতিবার রাতে বেনফিকার মুখোমুখি হয় ইংলিশ ক্লাব আর্সেনাল। নিরপেক্ষ ভেন্যুতে অনুষ্ঠিত এই ম্যাচে তারা ৩-২ গোলের জয় পায়। এতে দুই লেগ মিলিয়ে ৪-৩ ব্যবধানে জিতে শেষ ষোলোতে স্থান করে নেন গার্নার্সরা।

প্রথম লেগে বেনফিকার সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করেছিল আর্সেনাল। শেষ ষোলো নিশ্চিত করতে ফিরতি লেগে জয় প্রয়োজন ছিল আউবেমেয়াং-ডেভিড লুইসদের। কিন্তু দেখা দেয় নাটকীয়তা।

২১ মিনিটে পিয়েরে এমরিক আউবেমেয়াং এর গোলে এগিয়ে যায় ইংলিশ ক্লাবটি। তবে ৪৩ মিনিটে বেনফিকার দিয়গো গনকালভেস গোল করে সমতা ফেরান। এই সমতা নিয়ে শেষ হয় প্রথমার্ধের খেলা।

বিরতির পর ৬১ মিনিটে বেনফিকার রাফা গোল করে এগিয়ে নেন দলকে। তাতে বিপাকে পড়ে আর্সেনাল। ৬৭ মিনিটে কিয়েরান তিয়েরনি গোল করে সমতা ফেরান। কিন্তু এই ২-২ গোলের সমতা নিয়ে ম্যাচ শেষ হলে আর্সেনালকে যে বিদায় নিতে হবে। এমন অস্বস্তির মধ্যে ৮৭ মিনিটে আউবেমেয়াং তার জোড়া গোল পূর্ণ করলে শেষ ষোলোর টিকিট পায় আর্সেনাল।

বিডি প্রতিদিন/কালাম


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৯:১০
প্রিন্ট করুন printer

৪০০ উইকেটের মাইলফলক স্পর্শ অশ্বিনের

অনলাইন ডেস্ক

৪০০ উইকেটের মাইলফলক স্পর্শ অশ্বিনের
ফাইল ছবি

৪০০ উইকেটের মাইলফলক স্পর্শ করে ফেললেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। মাত্র ৭৭টি টেস্ট ম্যাচ খেলে অনিল কুম্বলে, কপিল দেব এবং হরভজন সিংয়ের ৪০০ উইকেটের ক্লাবে ঢুকে পড়লেন অশ্বিন। অনিল কুম্বলের ৬০৮ উইকেটের রেকর্ড ভাঙবেন কিনা তা নিশ্চিত না হলেও, কপিল (৪৩২) এবং হরভজনকে (৪১৭) টপকে যাওয়া সময়ের অপেক্ষা। 

ভারতীয়দের মধ্যে চতুর্থ বোলার হিসেবে এবং সবমিলিয়ে দ্বিতীয় দ্রুততম সময়ে এই ক্লাবে প্রবেশ করলেন অশ্বিন। অশ্বিনের আগে ৪০০ বা তার বেশি উইকেট শিকার করা ভারতীয় বোলার-অনিল কুম্বলে (৬১৯), কপিল দেব (৪৩৪) এবং হরভজন সিং (৪১৭)। ৪০০ উইকেটের চূড়ায় দ্রুততম সময়ে পৌঁছানোর ক্ষেত্রে মুরালির পরেই এখন অশ্বিনের নাম শোভা পাচ্ছে। শ্রীলঙ্কার কিংবদন্তি স্পিনার মুরালি ৭২ টেস্টেই ওই উচ্চতায় পৌঁছান। অশ্বিনের লেগেছে ৭৭ টেস্ট।

এদিকে, ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে আহমেদাবাদে সিরিজের তৃতীয় ডে-নাইট টেস্টে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ১০ উইকেটের বিশাল জয় পেয়েছে ভারত। দ্বিতীয় দিনের তৃতীয় সেশনের খেলা অনেকটা বাকি থাকতেই এ বিশাল জয় তুলে নিয়েছে স্বাগতিকরা। ১৯৩৫ সালের পর এটাই সবচেয়ে কম দৈর্ঘ্যের টেস্ট।

গতকাল বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) গুজরাটের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে টেস্টে ইংলিশদের ছুড়ে দেওয়া মাত্র ৪৯ রানের লক্ষ্য কোনো উইকেট না হারিয়েই পেরিয়ে যায় স্বাগতিকরা। প্রথম ইনিংসের মতো নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসেও ভারতীয় স্পিনে বিধ্বস্ত হয়েছে ইংল্যান্ড। অক্ষর প্যাটেল ও অশ্বিনের তোপে মাত্র ৮১ রানেই গুটিয়ে গেছে সফরকারীরা। টেস্টে ভারতের বিপক্ষে এটাই তাদের সর্বনিম্ন ইনিংস। এর আগে ১৯৭১ সালে ওভালে ১০১ রান করেছিল ইংলিশরা।  

 

বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ সিফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৮:৪৭
প্রিন্ট করুন printer

আইসিসির কোভিড-১৯ বিধি নিয়ে বিরক্ত আফ্রিদি

অনলাইন ডেস্ক

আইসিসির কোভিড-১৯ বিধি নিয়ে বিরক্ত আফ্রিদি
ফাইল ছবি

করোনা পরিস্থিতিতে সুরক্ষা জোরদার করার জন্য কিছু নতুন নিয়ম এসেছে ক্রিকেটে। তার মধ্যে একটা হলো বোলারদের টুপি ধরতে পারবে না আম্পায়াররা। পাকিস্তানের সাবেকক্রিকেট তারকা শহিদ আফ্রিদি এই নিয়মের বিরোধিতা করলেন। টুইট করে কারণও জানতে চাইলেন আইসিসির কাছে। 

আগে বল করার আগে টুপি, সোয়েটার এবং রোদচশমা খুলে আম্পায়ারের কাছে রাখত ক্রিকেটাররা। ওভার শেষ হলে আবার ফেরত নিয়ে নিত। কোভিড-১৯ সুরক্ষাবিধিতে এখন এসব চলবে না। টুপি, চশমা সব রাখতে হচ্ছে অন্য খেলোয়াড়দের কাছে। আফ্রিদি এই নিয়মের বিরোধিতা করছেন। 

তিনি বলেছেন, আম্পায়াররা খেলোয়াড়দের সঙ্গে একই সুরক্ষা বলয়ে থাকেন। ম্যাচের শেষে তাদের সঙ্গে হাতও মেলান। তাহলে টুপি ধরতে আপত্তি কেন?

পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএল) খেলা আরও বেশ কিছু ক্রিকেটার আইসিসির এই নিয়ম নিয়ে বিস্মিত হয়েছিলেন। তবে যতদিন না অতিমারি সম্পূর্ণভাবে বিদায় নিচ্ছে ততদিন এ নিয়ম শিথিল হবে বলে মনে হয় না।


বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ সিফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৬:০৪
প্রিন্ট করুন printer

পিসিবির প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলেন হাফিজ

অনলাইন ডেস্ক

পিসিবির প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলেন হাফিজ
ফাইল ছবি

আবারও আলোচনায় মোহাম্মদ হাফিজ ও পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি)। বোর্ডের চোখে হাফিজের বয়সটাই যেন বড় অযোগ্যতা। অথচ তিনি দলের অভিজ্ঞ খেলোয়াড়, পারফর্মও করছেন ভালো। এরপরও পাকিস্তান জাতীয় দলের বর্ষীয়ান এই ব্যাটসম্যানকে ‘সি’ ক্যাটাগরির চুক্তির প্রস্তাব দিয়েছে বোর্ড।

হাফিজ অবশ্য সরাসরিই জানিয়ে দিয়েছেন, তার চুক্তির দরকার নেই। ‘ক্রিকইনফো’র প্রতিবেদনে এসেছে, মূলত নিচের সারির চুক্তি প্রস্তাব করায়ই রাগ করে সেটা ফিরিয়ে দিয়েছেন পাকিস্তানি অলরাউন্ডার।

২০১৯ সালে বোর্ডের কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে বাদ পড়েন হাফিজ। কিন্তু চুক্তির বাইরে থাকার পরও সিনিয়র ক্রিকেটার হিসেবে সম্মান দেখিয়ে গত বছর তাকে ম্যাচপ্রতি ‘এ’ ক্যাটাগরির ফি দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় পিসিবি। হাফিজও টি-টোয়েন্টিতে বছরটা কাটিয়েছেন স্বপ্নের মতো। গত ১২ মাসে এই ফরমেটে ডেডিভ মালানের পর সবচেয়ে বেশি রান করেন এই ব্যাটসম্যান। মালানের রান ছিল ৩৮৬, হাফিজের ৩৩১।

সর্বশেষ ৯টি ইনিংসে করেছেন পাঁচটি হাফসেঞ্চুরি। এই সময়ে মাত্র দু’বার ২০ রানের কম স্কোরে আউট হয়েছেন হাফিজ। স্বভাবতই বয়স বিবেচনায় না আনলে তার ‘মূল্য’ বেশিই থাকার কথা পিসিবির কাছে।

কিন্তু বোর্ডের চুক্তিতে সেই প্রতিফলন দেখা গেল না। হাফিজকে ‘সি’ ক্যাটাগরির চুক্তির প্রস্তাব দেয়া হয়েছে এবং তিনি তা ফিরিয়ে দিয়েছেন। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে পিসিবির প্রধান নির্বাহী ওয়াসিম খান বলেন, ‘হাফিজের সিদ্ধান্তে আমি হতাশ। তবে তার সিদ্ধান্তকে সম্মান জানাচ্ছি।’


বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর