শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১১ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১০ মার্চ, ২০২১ ২২:২৯

করোনায় হারিয়ে যাওয়া কীর্তিমান

করোনা মহামারী গত এক বছরে প্রায় ৮ হাজার মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে। করোনা মহামারী মোকাবিলায় বিশ্বের অনেক দেশ থেকে বাংলাদেশের সাফল্য অনেক। মৃত্যুহারও অনেক দেশ থেকে কম। কিন্তু এই মহামারী সময়ে আমরা এমন কিছু কীর্তিমান মানুষকে হারিয়েছি যা আমাদের দেশের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি বয়ে এনেছে। এ তালিকায় যেমন রয়েছেন প্রখ্যাত রাজনীতিক তেমনি রয়েছেন সাংবাদিক, চলচ্চিত্রকার, অভিনেতাসহ নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ। প্রয়াত এমন কিছু কীর্তিমান মানুষকে নিয়েই  আজকের রকমারি।

লিখেছেন- সাইফ ইমন

 

শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ

রাজনীতিবিদ

সাবেক ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে মারা যান গত বছর ১৩ জুন রাত ১২টার দিকে। ১৯৪৫ সালের ৮ সেপ্টেম্বর গোপালগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। তাঁর পিতা মরহুম শেখ মো. মতিউর রহমান এবং মাতা মরহুমা মোসাম্মৎ রাবেয়া খাতুন। শিক্ষাজীবন শেষে তিনি সুলতানশাহী কেকানিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। পরবর্তীকালে তিনি অ্যাডভোকেট হিসেবে গোপালগঞ্জ জজকোর্ট এবং ঢাকা জজকোর্টে প্র্যাকটিস শুরু করেন। তিনি অসংখ্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা এবং পৃষ্ঠপোষক হিসেবে ধর্মীয় ক্ষেত্রে অসামান্য অবদান রেখে আসছিলেন।

 

মোহাম্মদ নাসিম

রাজনীতিবিদ

গত বছর ১৩ জুন করোনা জটিলতায় মারা যান বিশিষ্ট রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব মোহাম্মদ নাসিম। ১৯৪৮ সালের ২ এপ্রিল সিরাজগঞ্জ জেলার কাজীপুর উপজেলায় নাসিম জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা এম মনসুর আলী ছিলেন বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক। তিনি স্বাধীনতা-পরবর্তী বঙ্গবন্ধু সরকারের মন্ত্রিসভায় প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেন। ষাট দশকে ছাত্র আন্দোলনের অন্যতম সক্রিয় কর্মী ছিলেন নাসিম। তিনি ১৯৭৩ সালে যুবলীগের সভাপতিম-লীর সদস্য হন। ’৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকারের ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী, পরে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বও পালন করেন।

সবশেষ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পান নাসিম।

 

নুরুল ইসলাম বাবুল

শিল্পপতি

যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বাবুল মারা যান গত বছর ১৩ জুলাই। তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। দৈনিক যুগান্তর ও যমুনা টেলিভিশনের প্রতিষ্ঠাতা নুরুল ইসলাম দেশের একজন শীর্ষ ব্যবসায়ী। তাঁর স্ত্রী সাবেক মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী এবং সংসদ সদস্য সালমা ইসলাম, ছেলে শামীম ইসলাম যমুনা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং তিন মেয়ে রোজালিন ইসলাম, মনিকা ইসলাম ও সোনিয়া ইসলাম। তিনি মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। ১৯৭৪ সালে যমুনা গ্রুপ প্রতিষ্ঠা করেন। বস্ত্র, ইলেকট্রনিক, ওভেন গার্মেন্ট, রাসায়নিক, চামড়া, পানীয়, টয়লেট্রিজ, মোটরসাইকেল এবং আবাসন খাতে তাঁর ব্যবসা ছিল।

 

জয়নুল হক সিকদার

শিল্পপতি

বাংলাদেশের অন্যতম শিল্পগোষ্ঠী সিকদার গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজের চেয়ারম্যান জয়নুল হক সিকদার মারা গেছেন গত ১০ ফেব্রুয়ারি। দুবাইয়ের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়। তাঁর বয়স হয়েছিল ৯১ বছর। ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেডের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান জয়নুল হক সিকদারের গড়া সিকদার গ্রুপের ব্যবসা ছড়িয়ে আছে ব্যাংক ও বীমা, বিদ্যুৎ, ইকোনমিক জোন, এভিয়েশন, আবাসন, স্বাস্থ্যসেবা ও শিক্ষার মতো নানা খাতে। এর সহযোগী কোম্পানির মধ্যে রয়েছে পাওয়ার প্যাক পোর্টস, পাওয়ার প্যাক ইকোনমিক জোন, সিকদার ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড, পাওয়ার প্যাক হোল্ডিংস, সিকদার রিয়েল এস্টেট ও  মাল্টিপ্লেক্স হোল্ডিংস।

 

কামাল লোহানী

সাংবাদিক

সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, সাংবাদিক কামাল লোহানী করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন গত বছর ২০ জুন। ঢাকার শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়। কামাল লোহানীর বয়স হয়েছিল ৮৬ বছর। তিনি দুই মেয়ে ও এক ছেলে রেখে গেছেন। একুশে পদকপ্রাপ্ত কামাল লোহানী বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক আন্দোলন সংগঠনের একজন পুরোধা ব্যক্তি ছিলেন। সাংবাদিক কামাল লোহানী স্বাধীন বাংলা বেতারের বার্তা বিভাগের প্রধানের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশের বিজয়ের খবর বেতারে কামাল লোহানীই প্রথম পড়েছিলেন। ফুসফুস ও কিডনি জটিলতার পাশাপাশি  হৃদরোগও ছিল তাঁর।

 

জাহাঙ্গীর

রাজনীতিবিদ

গত ২৪ ডিসেম্বর করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যান পটুয়াখালী-৩ (দশমিনা-গলাচিপা) আসনের চারবারের সাবেক এমপি, সাবেক বস্ত্র প্রতিমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইন। তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৬ বছর।

আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইন ১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০১ ও ২০১৪ সালে পটুয়াখালী-৩ (গলাচিপা-দশমিনা) থেকে এমপি নির্বাচিত হন। তিনি শেখ হাসিনার প্রথম মন্ত্রিসভার বস্ত্র প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান ১৯৯৮ সালে। এর আগে ছাত্রাবস্থায় স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনের সময় ১৯৮১-৮৩ সালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের  সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

 

মুর্তজা বশীর

চিত্রশিল্পী

বরেণ্য চিত্রশিল্পী মুর্তজা বশীর গত বছর ১৫ আগস্ট সকাল ৯টা ১০ মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। ১২ আগস্ট তাঁর করোনা পরীক্ষা করা হলে পজিটিভ আসে। চিত্রশিল্পী মুর্তজা বশীর ভাষাবিদ ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহর ছেলে। তিনি ১৯৩২ সালের ১৭ আগস্ট ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। ৮৮ বছর বয়সী এ চিত্রশিল্পীকে এর আগেও বিভিন্ন শারীরিক জটিলতা নিয়ে একাধিকবার হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে হয়েছে। চিত্রকলায় গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য ১৯৮০ সালে একুশে পদক পান মুর্তজা বশীর। একই কাজে স্বাধীনতা পুরস্কার পান ২০১৯ সালে। কর্মজীবনে তিনি দীর্ঘদিন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের অধ্যাপক ও চেয়ারম্যান হিসেবে  কর্মরত ছিলেন।

 

মাহবুবে আলম

অ্যাটর্নি জেনারেল

বাংলাদেশের অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম মারা গেছেন গত বছর ২৭ সেপ্টেম্বর। তিনি ২০০৯ সালে অ্যাটর্নি জেনারেলের পদে নিয়োগ পান। তারপর মৃত্যু অবধি ওই পদে ছিলেন। বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের চেয়ারম্যানও ছিলেন। সর্বোচ্চ আদালতে একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার বিচারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিলেন মাহবুবে আলম। এ ছাড়া সংবিধানের পঞ্চম, সপ্তম, ত্রয়োদশ ও ষোড়শ সংশোধনী মামলাও পরিচালনা করেন তিনি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকান্ডের মামলায়ও যুক্ত ছিলেন মাহবুবে আলম। আলোচিত বিডিআর বিদ্রোহ হত্যা মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান আইনজীবীর দায়িত্বে  ছিলেন তিনি।

 

ইব্রাহিম খালেদ

অর্থনীতিবিদ

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ মারা যান গত ২৪ ফেব্রুয়ারি। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। তাঁর বয়স হয়েছিল ৮০ বছর। করোনায় সংক্রমিত হয়ে তিনি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। এরপর আরও নানা সমস্যা ধরা পড়ে। বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর ছাড়াও বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং সোনালী, অগ্রণী ও পূবালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ। ২০১০ সালে শেয়ারবাজারের পতনের কারণ অনুসন্ধানে সরকার গঠিত তদন্ত কমিটির প্রধান  ছিলেন তিনি।

 

আলী যাকের

নাট্যব্যক্তিত্ব

অভিনেতা ও নির্দেশক আলী যাকের ক্যান্সারের সঙ্গে চার বছর লড়াই শেষে চিরবিদায় নেন গত বছর ২৭ নভেম্বর। তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর। মৃত্যুর দুই দিন আগে করোনাভাইরাস সংক্রমণও ধরা পড়েছিল। চট্টগ্রামে জন্ম হলেও আলী যাকেরের পৈতৃক নিবাস ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে। বাবা মোহাম্মদ তাহেরের বেঙ্গল সিভিল সার্ভিসের চাকরির সুবাদে ছেলেবেলায় এক শহর থেকে আরেক শহরে ঘুরে বেড়িয়েছেন আলী যাকের। ফেনী, খুলনা, কুষ্টিয়া ঘুরে বাবা যখন প্রাদেশিক সরকারের সচিব হলেন, তখন আলী যাকেরের পরিবার থিতু হয় ঢাকায়। বিশ্ববিদ্যালয় জীবনেই জড়িয়ে পড়েন নাট্যচর্চায়, সেই সঙ্গে ছাত্ররাজনীতিতে। আলী যাকের তখন ছাত্র  ইউনিয়ন করতেন।

 

এম হাসেম

শিল্পপতি

বিশিষ্ট শিল্পপতি ও পারটেক্স গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান এম এ হাসেম গত বছর ২৪ নভেম্বর রাত ১টা ২০ মিনিটে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন। ১৯৭০-এর কিছু আগে তিনি চট্টগ্রামে মেসার্স হাসেম করপোরেশন গড়ে তোলেন। দেশ স্বাধীনের পর তিনি নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যের পাশাপাশি সিমেন্ট, ইস্পাত আমদানি শুরু করেন। এরপর দেশেই বিভিন্ন কারখানা গড়ে তোলেন। এভাবেই গড়ে ওঠে পারটেক্স গ্রুপ। গ্রুপটির ড্যানিশ কনডেন্সড মিল্ক, মাম পানি ও কোমল পানীয় ব্র্যান্ড আরসি অন্যতম। এম এ হাসেম বিভিন্ন ব্যবসার পাশাপাশি বেসরকারি খাতের সিটি ও ইউনাইটেড  কমার্শিয়াল ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতাদেরও একজন।

 

আনিসুজ্জামান

শিক্ষাবিদ

গত বছর ১৪ মে মারা যান জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। তাঁর জন্ম ১৯৩৭ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি অবিভক্ত ভারতের চব্বিশ পরগনা জেলার বসিরহাটে। তিনি চট্টগ্রাম ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃতী শিক্ষক। মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতে গিয়ে বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য হিসেবে কাজ করেন। বর্তমানে বাংলা একাডেমির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছিলেন। আনিসুজ্জামান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের ইমেরিটাস অধ্যাপক। তিনি ভাষা আন্দোলন (১৯৫২), ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান (১৯৬৯) ও ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন। এ ছাড়া বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২ সালে ড. কুদরাত-এ-খুদাকে প্রধান করে গঠিত জাতীয় শিক্ষা কমিশনের সদস্য ছিলেন।

 

নিলুফার মঞ্জুর

শিক্ষাবিদ

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দেশের স্বনামধন্য শিক্ষাবিদ ও সানবিমস স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ নিলুফার মঞ্জুর মারা যান গত বছর ২৬ মে। তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। অধ্যক্ষ নিলুফার মঞ্জুর সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের (এমটিবি) প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও এপেক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান সৈয়দ মঞ্জুর এলাহীর স্ত্রী। তিনি স্বামী, ছেলে, মেয়ে ও নাতি-নাতনিসহ অসংখ্য আত্মীয়স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। ১৯৭৪ সালের ১৫ জানুয়ারি ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সানবিমস স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন নিলুফার মঞ্জুর। তাঁর বাবা ড. মফিজ আলী চৌধুরী ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রিসভার একজন  সদস্য ও মন্ত্রী ছিলেন।

 

মনজুরে মওলা

কবি

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বাংলা একাডেমির সাবেক মহাপরিচালক কবি, প্রাবন্ধিক মনজুরে মওলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন গত ২০ ডিসেম্বর। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ায় গত ৫ ডিসেম্বর মনজুরে মওলাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। ১৫ দিনের মাথায় মৃত্যুবরণ করেন তিনি। পেশাজীবনে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিবের দায়িত্ব পালন করা মনজুরে মওলা গত শতকের আশির দশকের শুরুর দিকে বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক ছিলেন। বাংলা একাডেমিতে তাঁর তিন বছরের কার্যকালেই ‘একুশ আমাদের পরিচয়’ প্রত্যয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয় অমর একুশে গ্রন্থমেলা, যা আজ বিশ্বের দীর্ঘ সময়ব্যাপী  চলা বই উৎসব।

 

মালিক কাজেমী

সাবেক ডেপুটি গভর্নর

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর আল্লাহ মালিক কাজেমী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন গত বছর ২৬ জুন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। তাঁর বয়স হয়েছিল ৭১ বছর। তিনি স্ত্রী, দুই মেয়ে এবং এক ছেলে রেখে গেছেন। ছেলে দেশেই থাকেন। এক মেয়ে যুক্তরাষ্ট্র এবং আরেক মেয়ে যুক্তরাজ্যে থাকেন। তিনি একজন নিপাট ভালো মানুষ ও দক্ষ ব্যাংকারই ছিলেন না, ছিলেন একটি প্রতিষ্ঠান। কী গভীর ছিল তাঁর বহুমাত্রিক জ্ঞানের ভা-ার তা অনেকেরই অজানা। কেন্দ্রীয় ব্যাংকিং ও আর্থিক খাত বিষয়ক এক চলন্ত এনসাইক্লোপিডিয়া আল্লাহ মালিক কাজেমী এ সময়টায় চলে যাওয়ায় যে শূন্যতা তৈরি হলো  তা পূরণ হওয়ার নয়।

 

আবদুল কাদের

অভিনেতা

বছর শেষে ২৬ ডিসেম্বর করোনা ও অন্যান্য জটিলতায় মারা যান জনপ্রিয় অভিনেতা আবদুল কাদের। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘ডাকঘর’ নাটকে অমল চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে তাঁর প্রথম নাটকে অভিনয়। ১৯৭২-৭৪, পরপর তিন বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মহসীন হল ছাত্র সংসদের নাট্য সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭২ সালে আন্তহল নাট্য প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন মহসীন হলের নাটক সেলিম আল দীন রচিত ও নাসির উদ্দীন ইউসুফ নির্দেশিত ‘জন্ডিস ও বিবিধ বেলুন’-এ অভিনেতা হিসেবে পুরস্কার পেয়েছিলেন। প্রয়াত হুমায়ূন আহমেদের ‘কোথাও কেউ নেই’ নাটকে বদি চরিত্রে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে আবদুল কাদের সর্বাধিক  জনপ্রিয়তা অর্জন করেন।

 

খন্দকার মুনীরুজ্জামান

সাংবাদিক

দৈনিক সংবাদের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক, কলামিস্ট খন্দকার মুনীরুজ্জামান হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান গত বছর ২৪ নভেম্বর। ৭৩ বছর বয়সী মুনীরুজ্জামান করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে তিন সপ্তাহ ঢাকার মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। ১৯৭০ সালে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির মুখপত্র সাপ্তাহিক একতায় মুনীরুজ্জামানের সাংবাদিকতার শুরু। পরে রাজনৈতিক বিশ্লেষণধর্মী কলাম লেখক হিসেবে তিনি পরিচিতি পান। বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন, জাতীয় প্রেস ক্লাব, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির নেতৃবৃন্দ পৃথক বিবৃতিতে এই সম্পাদকের মৃত্যুতে  শোক প্রকাশ করেন।

 

মিজানুর রহমান খান

সাংবাদিক

বিশিষ্ট সাংবাদিক ও প্রথম আলোর যুগ্ম সম্পাদক মিজানুর রহমান খান ১১ জানুয়ারি মারা যান করোনায়। রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি ইন্তেকাল করেন।

মিজানুর রহমান খান মা, স্ত্রী, তিন সন্তান, পাঁচ ভাই, তিন বোনসহ অসংখ্য আত্মীয়স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। গত ৫ ডিসেম্বর তিনি গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে ভর্তি হন। তাঁর শারীরিক সমস্যা বাড়লে সেখান থেকে গত ১০ ডিসেম্বর তাঁকে মহাখালীর ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তাঁকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হয়। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে লাইফ সাপোর্টে  নেওয়া হয়।

 

আমিনুল ইসলাম

চিত্রসম্পাদক

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত বছর ২০ ডিসেম্বর মারা যান চারবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত চিত্রসম্পাদক আমিনুল ইসলাম মিন্টু। তিনি ১৯৮৬ সালে ‘আঘাত’ ছবির জন্য প্রথমবার শ্রেষ্ঠ চিত্রসম্পাদক হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন। এরপর ১৯৮৭ সালে দিলীপ বিশ্বাসের ‘অপেক্ষা’, ১৯৯০ সালে ‘গরিবের বউ’ এবং সর্বশেষ ১৯৯৬ সালে দিলীপ বিশ্বাসের ‘অজান্তে’ ছবির জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান। চিত্রসম্পাদক হিসেবে প্রথম কাজ করেন ১৯৬৩ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত মুস্তাফিজ পরিচালিত ‘পয়সে’ ছবিতে। এরপর তিনি মালা, আখেরি স্টেশন, তালাশ, আনাড়ি, চকোরী, চান্দ অর চাঁদনী, পিচঢালা পথসহ অনেক ছবিতে  কাজ করেন।